অস্ট্রেলিয়ায় শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ৪০ শাহাদাত বার্ষিকী উদযাপন

স্বাধীনতার মহান ঘোষক,  বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ৪০ তম শাহাদাত বার্ষিকী উপলক্ষে এক আলোচনা সভা গত রবিবার (৩০ মে) সিডনির লাকেম্বাস্থ স্থানীয় ইউনাইটিং চার্চ হলে স্বাধীনতার সূবর্ন জয়ন্তী উদযাপন কমিটি অস্ট্রেলিয়া মহাদেশের উদ্যোগে অনুষ্ঠিত হয়।

অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ থেকে বক্তব্য রাখেন প্রধান অতিথি হিসাবে স্বাধীনতার সূবর্ন জয়ন্তী জাতীয় কমিটির আহ্ববায়ক ও বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ডক্টর খন্দকার মোশারফ হোসেন, বিশেষ অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী, ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু, স্বাধীনতার সূবর্ন জয়ন্তী জাতীয় কমিটির সদস্য সচিব বীর মুক্তিযোদ্ধা আবদুস সালাম, তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক একে এম ওয়াহিদুজ্জামান, আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক শামা ওবায়েদ।

নেতৃবৃন্দ শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের জীবনীর সংক্ষিপ্ত আলোচনা করে বলেন, জিয়াউর রহমানের জম্ম না হলে বাংলাদেশ স্বাধীন হতো কিনা সন্দেহ।

স্বাধীনতার সূবর্ন জয়ন্তী উদযাপন কমিটি অস্ট্রেলিয়া মহাদেশের আহ্ববায়ক মো.মনিরুল হক জর্জের সভাপতিত্বে এবং সদস্য সচিব মোহাম্মদ রাশেদুল হকের পরিচালনায় দোয়া ও আলোচনা সভায় শুরুতেই স্বাগতম বক্তব্য রাখেন স্বাধীনতার সূবর্ন জয়ন্তী উদযাপন কমিটির সিনিয়র যুগ্ম আহ্ববায়ক মো. মোসলেহ উদ্দিন হাওলাদার আরিফ, অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন স্বাধীনতার সূবর্ন জয়ন্তী উদযাপন কমিটি অস্ট্রেলিয়া মহাদেশের প্রধান উপদেষ্টা মো. দেলোয়ার হোসেন, চালস স্টুয়ার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক শিবলী আব্দুল্লাহ, যুগ্ম আহ্ববায়ক এ এফ এম তৌহীদুল ইসলাম, উপদেষ্টা আরিফুল হক।

উপস্থিত ছিলেন যুগ্ম আহ্ববায়ক কুদরত উল্লাহ লিটন, ফারুক আহম্মেদ খান, ইলিয়াস কান্চন শাহীন, আলহাজ্ব লুৎফুল কবির, এ্যাডভোকেট আবু সাঈদ শিবলু গাজী, মো.আবুল হাছান, খালিদ হোসাইন, ইয়াসির আরাফাত সবুজ, মোবারক হোসেন, রুহুল আমিন, রাশেদ আল হাসান, এএন এম মাসুম, আশরাফুল ইসলাম, এসএম নিগার চৌধুরী, ফেরদৌস অমি, আলহাজ্ব নাসিম উদ্দিন আহম্মেদ, সেলিম লকিয়ত, তরিকুল ইসলাম মিঠু, কৃষিবিদ একে এম মাহবুব তালুকদার, উপদেষ্টা হাবিব মোহাম্মদ জকি, আব্দুল ওহাব, একে এম ফজলুল হক শফিক, জাসাসের সভাপতি আব্দুস সামাদ শিবলু, কামরুল হাসান আজাদ, নুরে আলম লিটন, কামরুল ইসলাম শামীম,  মোবারক হোসেন, গোলাম রাব্বানী, এম ডি কামরুজ্জামান, গোলাম রাব্বানী শুভ, মো. নাসির উদ্দিন, আরমান হোসেন ভূইয়া, মশিউর রহমান তুহিন, আব্দুল করিম, হুমায়ুন কবির, আনোয়ার হসেন, আবিদা সুলতানা, অসিত গোমেজ সহ অসংখ্য নেতৃবৃন্দ। প্রেস বিজ্ঞপ্তি

সিডনিতে জন্মভূমি টেলিভিশনের বার্ষিক বনভোজন অনুষ্ঠিত

৩০ মে (রবিবার) সিডনির ওয়ারাগাম্বাডেম এর পিকনিক পার্কে আয়োজন করা হয়েছিলো অস্ট্রেলিয়া থেকে সম্প্রচারিত প্রথম ও একমাত্র ২৪ ঘণ্টার বাংলা টেলিভিশন চ্যানেল জন্মভূমি টেলিভিশন এর বার্ষিক বনভোজন ২০২১। সকাল ৯ টা থেকে বনভোজন শুরু হয়ে শেষ হয় বিকেল ৪ টায়। শীতের হালকা আমেজ ও চমৎকার আবহাওয়ায় সুন্দর পিকনিক পার্কে এই আয়োজনটি ছিল উপভোগযোগ্য।

বনভোজনের অন্যান্য আয়োজনের মধ্যে ছিল মহিলাদের পিলো পাসিং ও পুরুষদের বল পাসিং। আনন্দঘন পরিবেশে ও আনন্দ উচ্ছাসের মধ্যে উপস্থিত অথিতিবৃন্দ্ এতে অংশগ্রহণ করেন। এই আয়োজনটি পরিচালনা করেন নাইম আবদুল্লাহ, কাজী সামসুল আলম রুবেল ও আবিদা আসওয়াদ।

মহিলাদের পিলো পাসিং খেলায় প্রথম দ্বিতীয় ও তৃতীয় হয়েছেন যথাক্রমে, রাহেলা আরেফিন, সৈয়দ জাফরিন আরা পিংকি ও সঞ্চিতা মতিন। সান্ত্বনা পুরস্কার পেয়েছেন আবিদা আসওয়াদ। পুরুষদের বল পাসিং খেলায় প্রথম দ্বিতীয় ও তৃতীয় হয়েছেন যথাক্রমে ফারুক আহমেদ, এইচ এম রিজভী ও ডঃ কাইউম পারভেজ। এই খেলার পুরো আয়োজনটি স্পনসর করেন, টাচ প্রিন্টিং, বাংলা হেয়ার ও কামরুল হুদা। পরে তারা বিজয়ীদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ করেন।

বঙ্গজ ক্রিয়েটিভ মিউজিক প্রোডাকশনের শিল্পীরা সুরের মূর্ছনায় মাতিয়ে রাখেন উপস্থিত অতিথিদের। সঙ্গীত পরিবেশন করেন সাহানা, রকি, আবদুল্লাহ মামুন, রায়হান ও সহিনি খান।জন্মভূমি টেলিভিশনের পক্ষ থেকে এ সময় শিল্পীদের ফুলের তোড়া দিয়ে শুভেচ্ছা জানান টেলিভিশনের সিইও রাহেলা আরেফিন।

দুপুরের খাবারে মেনুতে ছিল কাচ্চি বিরিয়ানি, বোরহানি, সালাদ, ড্রিঙ্কস ও মিষ্টান্ন। বিকেলের হাল্কা নাস্তায় ছিল চা, কফি, ফিরনি, জিলাপি ও কেক। অতিথি আপ্যায়নের আংশিক স্পন্সর ছিলেন জাহাঙ্গীর আলম। মুখরোচক এই কাচ্চি বিরিয়ানি রান্না করেন কাজী সামসুল আলম রুবেল। তাকে সহযোগিতা করেন রাহেলা আরেফিন ,কবিতা পারভেজ, শিরিন আক্তার মুন্নি, ডঃ ফয়জুল আজিম চঞ্চল ও আসওয়াদুল হক বাবু। ফটোগ্রাফি ও ব্যবস্থাপনা সহযোগিতায় ছিলেন নাইম আবদুল্লাহ ও আবিদা আসওয়াদ।

জন্মভুমি টেলিভিশনের পক্ষে বনভোজনে অংশ নেন, আবু রেজা আরেফিন, রাহেলা আরেফিন, সৈয়দ আকরাম উল্লাহ, নাইম আবদুল্লাহ, সাখাওয়াত হোসেন বাবু, কাজী সামসুল আলম রুবেল, শিরীন আক্তার মুন্নি, আবিদা আসওয়াদ, ডঃ ফয়জুল আজিম চঞ্চল, বেলায়েত রবীন, আসওয়াদুল হক বাবু ও কানিতা আহমেদ।

অতিথিদের মধ্যে স্ব-পরিবারে অংশ নেন ডঃ কাইউম পারভেজ, জাহাঙ্গীর আলম, মোহাম্মদ আব্দুল মতিন, শফিকুর রহমান লস্কর, ফারুক আহমেদ, আকাশ দে, সাদ্দাম খান, কাউসার খান, রানা শরীফ ও কামরুল হাই। আরো উপস্থিত ছিলেন কামরুল হুদা, শাহিন শাহনেওয়াজ প্রমুখ। এবারের বনভোজনের আয়োজনটি স্বল্পপরিসরে জন্মভূমি টেলিভিশন পরিবার ও কিছু আমন্ত্রিত অতিথিদের মধ্যে সীমাবদ্ধ ছিল।

জন্মভূমি টেলিভিশনের চেয়ারম্যান আবু রেজা আরেফিন বলেন, অল্প সময়ের প্রস্তুতি এবং হঠাৎ সিদ্ধান্তের কারণে এবারের বনভোজনে ইচ্ছা থাকা সত্ত্বেও অনেক শুভাকাঙ্ক্ষীদের নিমন্ত্রন জানাতে পারি নাই বলে আমি আন্তরিকভাবে দুঃখিত। তিনি আরও বলেন, আগামী বছর আমরা আরো বৃহৎ কলেবরে, বাসে চড়ে ব্যানার লাগিয়ে, মাইক বাজিয়ে অনেকে মাইল দূরে গিয়ে একেবারে প্রকৃতির সাথে মিশে বাংলাদেশের আমেজে বনভোজনের স্থানে রান্না (চড়ুইভাতি) করবো। যাদের এবারে বলা হয়নি আমাদের সেই সব শুভানুধ্যায়ীদের আগামীতে নিমন্ত্রন জানানোর ইচ্ছা রয়েছে। সবশেষে তিনি উপস্থিত অতিথি, স্পনসরদের ও জন্মভূমি টিমকে  ধন্যবাদ জানিয়ে বনভোজন ২০২১ এর সমাপ্তি ঘোষণা করেন।

সিডনীতে বাংলাদেশের প্রাক্তন স্কাউট পরিবারের পূনর্মিলনী অনুষ্ঠিত

স্থানীয় সময় আজ ২৯ মে (শনিবার) অষ্ট্রেলিয়া প্রবাসী বাংলাদেশী ৩০ জন প্রাক্তন স্কাউট ও তাদের পরিবারের সদস্যদের পূনর্মিলনী ও মিলনমেলা অনুষ্ঠিত হয়।

সিডনীর ব্ল্যাক্সল্যান্ড পার্কে দিনব্যাপী অনুষ্ঠিত এই পূনর্মিলনী ও মিলনমেলায় অংশগ্রহনকারী অর্ধ শতাধিক শিশু, কিশোর ও নারী সদস্যরা ক্রীড়া প্রতিযোগীতা, স্মৃতিচারন, গল্প বলার আসর ও মধ্যাহ্ন ভোজন সহ নানা আনন্দময় কর্মসূচির মধ্য দিয়ে দিনটি অতিবাহিত হয়।

এই পুনর্মিলনীতে বাংলাদেশ স্কাউটসের প্রধান জাতীয় কমিশনার ও দূর্নীতি দমন কমিশনের কমিশনার ডঃ মোজাম্মেল হক খাঁন, বাংলাদেশ স্কাউটস এর আন্তর্জাতিক বিষয়ক জাতীয় কমিশনার মাহমুদুল হক এবং বাংলাদেশ স্কাউটস এর জনসংযোগ ও মার্কেটিং বিষয়ক জাতীয় উপ কমিশনার মীর মোহাম্মদ ফারুক ভার্চুয়ালী যোগদান করেন।

কর্মসূচির আয়োজক কমিটির পক্ষে বাই সাইকেলে বিশ্বভ্রমনকারী স্কাউটার আলাউদ্দিনআলোক জানান, অষ্ট্রেলিয়ার ক্যানবেরা, সিডনী, মেলবোর্ন, এ্যাডিলেড ও পার্থসহ বিভিন্ন শহরে বাংলাদেশের শতাধিক প্রাক্তন স্কাউট, রোভার স্কাউট, স্কাউট লিডার ও স্কাউট সংগঠক বসবাস করেন। তাদের অনেকেই বাংলাদেশের শাপলা কাব, প্রেসিডেন্ট স্কাউট ও প্রেসিডেন্ট রোভার স্কাউট অ্যাওয়ার্ড প্রাপ্ত এবং উডব্যাজার, লিডার ট্রেনার ও বাংলাদেশ স্কাউটস ফাউন্ডেশনের সদস্য। তাদের নিয়ে বাংলাদেশ স্কাউটস ইন্টারন্যাশনাল ফোরাম অব অষ্ট্রেলিয়া নামে একটি সংগঠন গঠনের পরিকল্পনা আমাদের রয়েছে।

ইতোপূর্বে এসব স্কাউট পরিবারের সদস্যদের নিয়ে কয়েকবার পূনর্মিলনী আয়োজন করা হয়েছে বলেও তিনি জানান। জানান।

সিডনিতে জন্মভূমি টেলিভিশন পরিবারের বার্ষিক বনভোজন আগামীকাল

আগামীকাল ৩০ (রবিবার) সিডনির নিউ সাউথ ওয়েলসস্থ ওয়ারাগাম্বাডেম এ অস্ট্রেলিয়া থেকে সম্প্রচারিত প্রথম ও একমাত্র ২৪ ঘণ্টার বাংলা টেলিভিশন চ্যানেল জন্মভূমি টেলিভিশন পরিবার তাদের বার্ষিক বনভোজনের আয়োজন করেছে। সকাল ৯ টা থেকে বনভোজন শুরু হয়ে শেষ হবে বিকেল ৪ টায়।

বনভোজনের অনুষ্ঠান মালায় থাকবে বঙ্গজ ক্রিয়েটিভ মিউজিক প্রোডাকশন আয়োজিত সঙ্গীতানুষ্ঠান, খেলাধুলা, রাফেল ড্র, দুপুরের খাবার, বিকেলের হাল্কা নাস্তা ও ড্রিঙ্কস। বনভোজনের আয়োজনটি শুধুমাত্র জন্মভূমি টেলিভিশন পরিবার ও তাদের নিমন্ত্রিত অতিথিদের জন্য।

জন্মভূমি টেলিভিশনের চেয়ারম্যান আবু রেজা আরেফিন জানান, অল্প সময়ের প্রস্তুতি এবং হঠাৎ সিদ্ধান্তের কারণে আমরা এবারের বনভোজনে ইচ্ছা থাকা সত্ত্বেও অনেক শুভাকাঙ্ক্ষীদের নিমন্ত্রন জানাতে পারিনি বলে আন্তরিকভাবে দুঃখিত।

তিনি আরও জানান, আগামী বছর আমরা আরো বৃহৎ কলেবরে বাসে চড়ে ব্যানার লাগিয়ে, মাইক বাজিয়ে অনেকে মাইল দূরে গিয়ে একেবারে প্রকৃতির সাথে মিশে বাংলাদেশের আমেজে বনভোজনের স্থানে রান্না (চড়ুইভাতি ) করবো। যাদের এবারে বলা হয়নি আমাদের সেই সব শুভানুধ্যায়ীদের আগামীতে আমন্ত্রণ জানানোর ইচ্ছা রয়েছে।

সিডনিতে বাংলা সঙ্গীতে জীবনের গল্প ২৬ জুন

আগামী ২৬ জুন (শনিবার) সন্ধ্যা ৬ টায় ওয়াইলি পার্কস্থ হরাইজন থিয়েটারে সারগাম এবং হরাইজন থিয়েটার যৌথ উদ্যোগে “বাংলা সঙ্গীতে জীবনের গল্প” শিরোনামে একটি সঙ্গীত সন্ধ্যার আয়োজন করেছে।

আয়োজক কমিটি জানান, আবিদা আসওয়াদের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে রাহুল হাসান ও নাসিম কামাল শিপলু মৌলিক ও আধুনিক গান করবেন। জেরিন আফরিন, ফারজানা হাসান এবং মাকছুদা সুলতানা কবিতা আবৃতি করবেন। একক নৃত্য পরিবেষণ করবেন অর্পিতা সোম। তবলায় ও কিবোর্ডে থাকছেন অভিজিৎ দাঁ ও জছিন্ত সান্তা মারিয়া।

তারা আরও জানান, প্রবেশ মূল্য হিসেবে নিউ সাউথ ওয়েলস এর ডাইন ও ডিসকভার ভাউচার ব্যবহার করা যাবে। অনুষ্ঠান সংক্রান্ত যে কোন প্রয়োজনে যোগাযোগ করা যাবে রাহুল হাসান ০৪৩৪৪৬৬৯৬৯।

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে অস্ট্রেলিয়া বিএনপির উদযাপন কমিটি

বাংলাদেশের স্বাধীনতার ৫০ বছর পূর্তিতে বছরব্যাপী যথাযোগ্য মর্যাদায় উদযাপনের লক্ষ্যে দেশে ও প্রবাসে সুবর্ণ জয়ন্তী উদযাপন কমিটি গঠনের অংশ হিসেবে অস্ট্রেলিয়া বিএনপির উদযাপন কমিটি করছে কেন্দ্রীয় কমিটি। মোঃ দেলওয়ার হোসেনকে প্রধান উপদেষ্টা, মনিরুল হক জর্জকে আহবায়ক, মো.মোসলেহ উদ্দিন হাওলাদার আরিফকে সিনিয়র যুগ্ম আহ্ববায়ক এবং মোহাম্মদ রাশেদুল হক সদস্য সচিব করে ২৫৯ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠনের ঘোষণা দেয়া হয়েছে।

বিএনপির চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা ও স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী কেন্দ্রীয় উদযাপন কমিটির  আহবায়ক ড. খন্দকার মোশারফ হোসেন স্বাক্ষরিত এক বার্তায় এই ঘোষণা দেন।

সিডনিতে ডাঃ সাব্বির মনজুর খানের ইন্তেকাল

সিডনির ব্লাইর আথল নিবাসী ডাঃ সাব্বির মনজুর খান (অপু) আজ ২৫ মে (মঙ্গলবার) সকাল সাড়ে এগারটায় ক্যাম্বেলটাউন হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন (ইন্না লিল্লাহে ও ইন্না ইলেইহে রাজেউন)। আটান্ন বছর বয়স্ক ডাঃ সাব্বির দীর্ঘদিন যাবত দুরারোগ্য ক্যান্সারের সাথে যুদ্ধ করে বেঁচে ছিলেন।

তার নামাজে জানাজা আগামীকাল ২৬ মে সকাল সোয়া এগারটায় নারিলেন কবরস্থানে অনুষ্ঠিত হাওয়ার পর সেখানেই দাফন করা হবে বলে তার আত্মীয়রা জানিয়েছেন। দাফনের আগে ল্যাকাম্বায় তার গোসলের পর সকাল ১০ টা থেকে সাড়ে দশটা পর্যন্ত শেষবারের মতো তাকে দেখানো হবে। এদিকে সাব্বির মনজুর খানের মৃত্যুর খবরে বাংলাদেশী কমিউনিটিতে শোকের ছায়া নেমে আসে। পরিবার আত্মীয় স্বজন এবং বন্ধুরা তার আত্মার মাগফেরাত কামনা করে দোয়া চেয়েছেন।

সিডনিতে নবধারা ফাউন্ডেশনের ঈদ পূর্ণমিলনী অনুষ্ঠিত

পবিত্র রমজানের পর গত ২২ মে (শনিবার) সিডনিতে নবধারা ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে ঈদ পূর্ণমিলনী অনুষ্ঠিত হয়। আবিদা আসওয়াদের সঞ্চালনায় বক্তব্য, গল্পকথা ও আড্ডার পর শিল্পী সাদিয়া নিতু গান গেয়ে অনুষ্ঠানকে আরো প্রাণবন্ত করে তোলেন।

ঈদ পূর্ণমিলনীতে যোগ দেন ড. ফয়জুল আজীম চঞ্চল, বেলাল হোসাইন, সাগর ওহিদুজ্জামান, বাবু আসওয়াদ, মুনিয়া কাইয়ুম, লিপি আক্তার, দিলারা জামান, সৈয়দ জাভেদ, জেরিন, দিদারুল আলম বুলু, জামিলুর রহমান, রাইসা, নুসাইবাহ, আকিব, আজমিনুর রহমান, আরিজ রহমান নাফসান, নাদভ প্রমুখ।

নবধারা ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান সাংবাদিক আবুল কালাম আজাদ খোকন ও সংগঠনটির প্রেসিডেন্ট ইজ্ঞিনিয়ার আব্দুল কাইয়ুম সকলকে ধন্যবাদ এবং কৃতজ্ঞতা জানান। ডিনারের পর অনুষ্ঠানের সমাপ্তি হয়।

সাউথ ওয়েস্ট সিডনি বাংলাদেশী কমিউনিটি অস্ট্রেলিয়ার উদ্যোগে ঈদ পরবর্তী আড্ডা অনুষ্ঠিত

ডঃ রতন কুণ্ডুঃ অস্ট্রেলিয়ার সিডনির বাঙালি অধ্যুষিত দক্ষিণ পশ্চিম অঞ্চল ক্যাম্পবেলটাউন সিটি কাউন্সিল ও আশেপাশের সিটি কাউন্সিলে বসবাসরত বাঙালি কমিউনিটির উদ্যোগে গঠিত সাংস্কৃতিক জোট সাউথ ওয়েস্ট সিডনি বাংলাদেশী কমিউনিটি অস্ট্রেলিয়া গত ২২ মে (শনিবার) সন্ধ্যায় গ্লেনফিল্ড কমিউনিটি হলে এক ঈদ আড্ডার আয়োজন করে।

ঈদ আড্ডায় একক ও দলীয় সংগীত পরিবেশন করেন ফারিয়া আহমেদ, রুনু রফিক, নিলুফা ইয়াসমিন, শিমা আহমেদ, ইসমাত নূর শ্যামল ও অন্যান্য শিল্পী বৃন্দ। অনবদ্য নৃত্য পরিবেশন করেন পূরবী পারমিতা বোস. তারা ও সারিকা। কবিতা আবৃত্তি করেন, খাইরুল চৌধুরী, রতন কুণ্ডু ও বিটিভির সাবেক উপস্থাপিকা নাসিমা আক্তার। হাস্য রসাত্মক নাটিকা পরিবেশন করেন ফারিয়া ও মোস্তাক। মালিক সাফি জাকি ও মোস্তাক আহমেদ একটি একাংকিকা পরিবেশন করেন। এ ছাড়াও আগত অতিথিদের অংশগ্রহণে কয়েকটি আকর্ষণীয় সাংস্কৃতিক পরিবেশনা উপস্থিত দর্শক শ্রোতাদের প্রশংসা কুড়ায়। সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে তবলায় সঙ্গত দেন সাকিনা আক্তার। মিউজিক ও শব্দ নিয়ন্ত্রনে ছিলেন মিঠু।

আয়োজকরা অতিথি শিল্পীদের ফুলের তোড়া দিয়ে সম্মানিত করেন। হল ভর্তি দর্শকেরা সাংস্কৃতিক সন্ধ্যাটি প্রাণ ভরে উপভোগ করেন। আগত অতিথিদের সবাইকে সান্ধ্যকালীন চা ও নৈশভোজে আপ্যায়ন করা হয়।

ফারিয়া আহমেদ, রুনু রফিক, নিলুফা ইয়াসমিন, শ্যামল মোস্তাক আহমেদ প্রমুখ শিল্পীদের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় মূলত সাউথ ওয়েস্ট সিডনি বাংলাদেশী কমিউনিটি অস্ট্রেলিয়া’র আত্মপ্রকাশ। নেপথ্য থেকে সহযোগিতা করেছেন রফিক উদ্দিন, নিজাম উদ্দিন, রফিকুল ইসলাম, মিলি ইসলাম, মালিক সাফি জাকি, রতন কুণ্ডু, শাহাদাৎ হোসেন, এমদাদ হোসেন, মুস্তাফিজ তালুকদার মঞ্জু প্রমুখ।

সাংবাদিক রোজিনা ইসলামের আটকের নিন্দা ও তার মুক্তির দাবি জানিয়েছে সিডনি প্রেস এ্যান্ড মিডিয়া কাউন্সিল

সাংবাদিকদের অধিকার নিয়ে কাজ করা অস্ট্রেলিয়া প্রবাসী বাংলাদেশি লেখক ও সাংবাদিকদের বৃহত্তম সংগঠন সিডনি প্রেস এ্যান্ড মিডিয়া কাউন্সিলের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আবদুল্লাহ ইউসুফ শামীম ও সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মাদ আবদুল মতিন বাংলাদেশ সচিবালয় সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে আটকে রেখে হেনস্তা করার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন।

এক বিবৃতিতে তারা বলেন, পেশাগত দায়িত্ব পালনকাল সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে সচিবালয়ে (স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সচিবের একান্ত সচিবের কক্ষে) পাঁচ ঘণ্টা আটকে রেখে হেনস্তা করা ন্যাক্কারজনক। দূর্নীতিতে জর্জরিত স্বাস্হ্য মন্ত্রণালয়ের সকল লুটপাট ও কলঙ্কের মধ্যে এটা একটি নিকৃষ্টতম ঘটনা। পাঁচ ঘন্টা অবরুদ্ধ থেকে রোজিনা অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে হাসপাতালে না নিয়ে থানায় নেওয়া হয় এবং অফিশিয়াল সিক্রেটস অ্যাক্টের ৩ ও ৫ ধারায় উল্টো অভিযোগ এনে তাঁকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে। এটা অনুসন্ধানী সাংবাদিকতা এবং মুক্ত গণমাধ্যমের প্রতি আক্রোশের প্রতিফলন। পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে গেলে ঘণ্টার পর ঘণ্টা আটকে রাখা অন্যায় ও অনভিপ্রেত। সাংবাদিক রোজিনাকে হেনস্তা করার পেছনে দায়ী ব্যক্তিদের খুঁজে বের করে তাদের শাস্তি ও অবিলম্বে তার মুক্তির দাবি জানিয়েছেন প্রবাসি সাংবাদিকরা।