বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ও জন্মভূমি টেলিভিশনের ৫ বছরে পদার্পন উপলক্ষ্যে জাঁকজমক পূর্ণ অনুষ্ঠানের আয়োজন

অস্ট্রেলিয়া থেকে সম্প্রচারিত একমাত্র ২৪ ঘন্টার বাংলা টেলিভিশন চ্যানেল ‘জন্মভূমি টেলিভিশন’ বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ও জন্মভূমি টেলিভিশনের ৫ বছরে পদার্পন উপলক্ষে ২৮ শে মার্চ সন্ধ্যায় সিডনির রকডেলের রেডরোজ ফাংশন সেন্টারে জাঁকজমক পূর্ণ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

জন্মভূমি টিভির চেয়ারম্যান আবু রেজা আরেফিন এবং সিইও রাহেলা আরেফিন সমাগত অতিথিদের স্বাগত জানান।

অনুষ্ঠানের শুরুতে আদিবাসীদের প্রতি সম্মান জানিয়ে তাদের ভাষায় অস্ট্রেলিয়ার জাতীয় সংগীত এককভাবে পরিবেশন করে সামা, পরে বাংলাদেশের জাতীয় সংগীত সমবেতভাবে পরিবেশন করে আদ্রিতা, আনান, রোকসানা রহমান, নাবিলা স্রোতস্বীনি, হৃদসি, আবিদা ও সামা।

সাদিয়া ও সারিয়ার নাচের পর নুসরাত জাহান স্মৃতির  কবিতা আবৃতি করেন এবং আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেন অনুষ্ঠান শুরুর। এর পর পরই আগামী প্রজন্মের শিল্পী আদ্রিতার “হৃদয়ে আমার বাংলাদেশ”  নাচটি  মুগ্ধ করে দর্শকদের।

দ্বিতীয় পর্বে অনুষ্ঠানের শুরুটা করেন নুরুন্নাহার ফাহমি। এসময়ে এই  প্রজন্মের আরেক শিল্পী গানের পাখি নাবিলা স্রোতস্বীনির সূর্যোদয়ে তুমি দেশাত্ববোধক গানটি পিন পতন নীরবতায় উপভোগ করেন দর্শকরা।

গানটি শেষ হওয়ার পর শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন অনুষ্ঠানের আহ্বায়ক ও জন্মভূমি টেলিভিশনের, ডিরেক্টর ফাইন্যান্স ,সৈয়দ আকরাম উল্লাহ।

বক্তব্যের পর মাগরিবের নামাজের বিরতি দেয়া হয়। বিরতির পর হালকা নাস্তা  পরিবেশন করা হয়।

তৃতীয় পর্বে রোকসানা রহমান আবিদা ও সামা পরিবেশন করেন “আগুনের পরশমনি ” গানটি এই গানটির উল্লেখযোগ্য দিক হলো সে সময় কোনো বাদ্য যন্ত্র ব্যবহার করা হয়নি, নারী জাগরণের প্রতি সম্মান জানিয়ে গানটি গাওয়া হয়।

মঞ্চে আমন্ত্রণ জানানো হয় বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের সিডনি কনস্যুলেটের কনসাল জেনারেল খন্দকার মাসুদুল আলমকে তিনি তার শুভেচ্ছা বক্তব্যের পর , বাংলাদেশের মহান স্বাধীনতার ৫০ বছর পূর্তি উপলক্ষে “জন্মভূমি বিশেষ সম্মাননা পদক ২০২১” মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক হিসাবে মরহুম রফিক উল্যাহ মাস্টারকে মরণোত্তর সম্মামনা প্রদান করা হয়। পদকটি গ্রহণ করেন তার পুত্র সিডনি প্রবাসী বিশিষ্ট ব্যবসায়ী জনাব আশরাফ হক।

এছাড়াও মহান মুক্তিযুদ্ধে সম্মুখ সমরের যোদ্ধা সিডনি প্রবাসী মুক্তিযোদ্ধা রেজাউর রহমানকে “জন্মভূমি বিশেষ সম্মামনা পদক ২০২১” তুলে দেন কনসাল জেনারেল খন্দকার মাসুদুল আলম।

জন্মভূমি এই প্রবাসে আগামী প্রজন্মকে তুলে ধরতে চায় ,এই পর্যায়  ছোট্ট শিশু রোদোশীর নাচের মূর্ছনায় মুহুমুহু করতালিতে ভোরে উঠে অনুষ্ঠানস্থল।

মঞ্চে আমন্ত্রণ জানানো হয় Hon Tony Burke MP, কে তিনি Member for Watson NSW, Manager of Opposition Business, Member of Australia Labor Party তার সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে জন্মভূমি টেলিভিশনের প্রশংসা করেন। তিনি এমন একটি ২৪ ঘন্টার টেলিভিশন চালানের ক্ষেত্রে যাদের অবদান তাদের প্রতি ধন্যবাদ জানান।

ফেডারেল এমপি টনি বার্ক প্রবাসে আলোকিত শিক্ষাবিদ হিসাবে “জন্মভূমি সম্মামনা পদক ২০২১” তুলে দেন শিক্ষাবিদ ডঃ কাইউম পারভেজ এবং আলোকিত নারী শিক্ষাবিদ হিসাবে  “জন্মভূমি সম্মামনা পদক ২০২১”তুলে দেন শিক্ষাবিদ ডঃ মমতা চৌধুরীর হাতে।

এর পরপরই সিডনির জনপ্রিয় সংগীত দম্পতি রোকসানা রহমান ও আনিসুর রহমান একটি  দৈত্ব সংগীত পরিবেশন করেন।অনুষ্ঠান মালা এমন ভাবে সাজানো হয়েছিল উপস্থিত সুধিমন্ডলী আসন ছেড়ে যেতে চাইলেও যেতে পারেননি।

অনুষ্ঠানের ধারাবাহিকতায় এর পর মঞ্চে আসেন Lindsay Wendy, Member of the Legislative Assembly, Member for East hills, Member of the liberal Party.

এমপি লিন্ডসে ওয়েন্ডির তার সংক্ষিপ্ত বক্তব্যের পর প্রবাসে আলোকিত সমাজসেবক হিসাবে “জন্মভূমি সম্মামনা পদক ২০২১” তুলে দেন সাবেক কাউন্সিলর রাজনীতিবিদ ও সমাজসেবক মোহাম্মদ জামান টিটুর হাতে।প্রবাসে আলোকিত নারী সমাজসেবী হিসাবে জন্মভূমি সম্মামনা পদক ২০২১”নেয়ার জন্য নাম ঘোষণা করা হয়  মিসেস লায়লা চৌধুরীর। তিনি  মেলবোর্ন থেকে সিডনি এসেও ব্যাক্তিগত কারণে জরুরিভাবে মেলবোর্ন ফেরত যান।এবং অনুষ্ঠানে উপস্থিত  থেকে পদক নিতে না পারায় দুঃখ প্রকাশ করেন।তার পদকটি কুরিয়ারে মেলবোর্ন পাঠানো ব্যবস্থা করা হয়। 

অনুষ্ঠানের ধারাবাহিকতায় মঞ্চে নুপুরের রিনিঝিনি আর নাচের ভঙ্গিমায় দর্শকদের বিমোহিত করেন এই প্রবাসের সবার প্রিয় নৃত্য শিল্পী অর্পিতা সোম।

মঞ্চে আসেন প্রবীণ রাজনীতিবিদ ও এক সময়ের ইমিগ্রেশন মিনিস্টার Hon Philip Ruddock AO, বর্তমানে Mayor Hornsby Shire তার  শুভেচ্ছা বক্তব্য তিনি  বাংলাদেশ ও বাঙালিদের ভূয়সী প্রশংসা করেন। বক্তব্যের পর তিনি  প্রবাসে আলোকিত ব্যবসায়ী উদ্যোক্তা হিসাবে “জন্মভূমি সম্মামনা পদক ২০২১” তুলে দেন Teleaus এর সিইও জাহাঙ্গীর আলমের হাতে।

এবং তিনি প্রবাসে আলোকিত নারী ব্যবসায়ি উদ্যোক্তা হিসাবে “জন্মভূমি সম্মামনা ২০২১” তুলে দেন স্ট্যাডি নেট এর ডিরেক্টর ,ইয়াসমিন আনোয়ারের হাতে।

তারপর মঞ্চে আসেন প্রভাত ফেরির প্রধান সম্পাদক শ্রাবন্তী কাজী। তিনি প্রবাসে আলোকিত সাংবাদিক হিসাবে  “জন্মভূমি সম্মামনা পদক ২০২১” তুলে দেন  প্রশান্তিকার সম্পাদক আতিকুর রহমান শুভর হাতে, এছাড়াও তিনি প্রবাসে আলোকিত নারী সাংবাদিক হিসাবে “জন্মভূমি সম্মামনা পদক ২০২১”  তুলে দেন কাজী সুলতানা সিমির হাতে।

এর পরপরই সিডনির প্রখ্যাত নজরুল সঙ্গীত শিল্পী অমিয়া মতিন তার সুরের ঝংকারে মাতিয়ে তুলেন দর্শকদের।

মঞ্চে আমন্ত্রণ জানানো হয় অস্ট্রেলিয়া বাংলাদেশ বিসনেস কাউন্সিলের চেয়ারম্যান আসিফ কাউনাইনকে। তিনি তার সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে জন্মভূমি টেলিভিশনের প্রশংসা করেন। শত প্রতিকূলতায় টেলিভিশনটি তাদের সম্প্রচারের ধারাবাহিকতায় পাঁচ বছরে পা রাখছে উল্লেখ করে তিনি এই টেলিভিশনের সাথে সংশ্লিষ্ট সকলকে ধন্যবাদ জানান।

তিনি প্রবাসে আলোকিত সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব হিসাবে “জন্মভূমি সম্মামনা পদক ২০২১” তুলে দেন এই প্রবাসের জনপ্রিয় নাট্য ব্যক্তিত্ব শাহীন শাহনেওয়াজ এর হাতে। প্রবাসে আলোকিত নারী সাংস্কৃতিক ব্যাক্তিত্ব হিসাবে মরহুমা শারমিন পাপিয়ার নাম ঘোষণা করা হয়। তার পক্ষে পরবর্তীতে তার স্বামী হায়দার বাবু ” জন্মভূমি সম্মামনা পদক ২০২১”(মরণত্তোর) গ্রহণ করেন।

গান নাচ বক্তিতা দর্শক একটু ভিন্ন কিছু চাইছিলো সে দিকে খেয়াল রেখে অনুষ্ঠানের আয়োজকরা কৌতুক পরিবেশন করতে মঞ্চে আমন্ত্রণ জানান ডাক্তার দম্পতি ডাঃ মীর জাহান মাজু ও ডাঃ ফাহিমা সাত্তারকে। তাদের পরিবেশিত কৌতুকটি পুরো অনুষ্ঠানে হাসির রোল তুলে।

অনুষ্ঠানে সময়ের দিকে খেয়াল রেখে বক্তব্য সংক্ষিপ্ত রাখার অনুরোধ জানানো হয় সকল বক্তাদের ,কোনো বক্তায় তাদের বক্তব্য দীর্ঘ করেননি ,শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখার জন্য আমন্ত্রণ জানানো হয় গণপ্রজনতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের সাবেক অনারারি কনসাল জেনারেল এন্থনি খৌরিকে। তিনি তার সেই সময়কার কিছু স্মৃতি রোমন্থন করেন। এবং জন্মভূমি টেলিভিশনের উত্তর উত্তর সাফল্য কামনা করেন।পরে তিনি প্রবাসে আলোকিত পেশাজীবী হিসাবে “জন্মভূমি সম্মামনা পদক ২০২১” তুলে দেন ডাক্তার একরামুল হক চৌধুরীর হাতে।

এরপর মঞ্চে ডাকা হয় এই প্রবাসে ডাক্তারদের সংগঠনের সাবেক কর্মকর্তা , ডাক্তার শায়লা ইসলামকে তিনি  প্রবাসে আলোকিত নারী পেশাজীবী হিসাবে “জন্মভূমি সম্মামনা পদক ২০২১” তুলে দেন ডাক্তার নাহিদ সায়মার হাতে।

সিডনিটি গত কয়েক দিনের  একটানা বৃষ্টির পর বৃষ্টির গান দিয়ে উপস্থিত দর্শকদের সুরের মূর্ছনায় মাতিয়ে তুলেন শিল্পী জিয়াউল ইসলাম তমাল । এই গানের পরে জন্মভূমি টেলিভিশনের এই আয়োজনের সম্মানিত স্পনসরদের হাতে স্পনসর অ্যাওয়ার্ড তুলে দেন জন্মভূমি টেলিভিশনের চেয়ারম্যান আবু রেজা আরেফিন। এই পর্যায়ে  তিনি অতিথিদের সাথে জন্মভূমি টেলিভিশনের পুরো  টিমকে পরিচয় করিয়ে দেন।

সিডনির একই অনুষ্ঠানে এতজন মিডিয়া ব্যাক্তিত্বের উপস্থিতি সচারাচর চোখে পরে না। এই আয়োজনের তাদের উপস্থিতি অনুষ্ঠানটির মর্যাদা আরো বাড়িয়ে দিয়েছে। জন্মভূমি টেলিভিশনের চেয়ারম্যান আবু রেজা আরেফিন প্রায় তিন যুগের বেশি সময়ে ধরে মিডিয়ার সাথে জড়িত , তিনি  অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত সম্মানিত সাংবাদিকবৃন্দকে মঞ্চে আসতে অনুরোধ করেন এবং তাদের ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান।

এই প্রবাসের জনপ্রিয় শিল্পী আতিক হেলাল ও মিতা আতিক জুটি তাদের সুরেলা কণ্ঠে গান শুনিয়ে দর্শকদের বাড়ি যাওয়ার কথা ভুলিয়ে দেন।

শেষ হয়ে শেষ হচ্ছিলোনা অনুষ্ঠানমালা একের পর এক আবৃতি ,গান ,নাচ ,কৌতুক পুরো অনুষ্ঠানকে প্রাণবন্ত করে রেখেছিলো। দর্শকদের এক মুহূর্তের জন্য বিরক্ত হতে দেখা যায়নি তারা আনন্দের সাথে  উপভোগ করছিলো অনুষ্ঠানগুলো।

সুরেলা গানের কণ্ঠে শিল্পী সাজ্জাদ হোসেন শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত দর্শকদের তার সুরেলা কণ্ঠে গান দিয়ে বিমোহিত করেন।

রাত  বাড়তে থাকে হঠাৎ করে যেন বাড়ি যাওয়ার তাগাদা অনুভব করতে থাকে উপস্থিত দর্শকরা। এই পর্যায়ে আমন্ত্রিত অতিথিদের নৈশ ভোজে আমন্ত্রণ জানান জন্মভূমি টেলিভিশনের সিইও রাহেলা আরেফিন।

নৈশ ভোজের পরে জন্মভূমি টেলিভিশনের পাঁচ বছর পদার্পন উপলক্ষে কেক কেটে অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘোষনা করা হয়।এ সময়ে উপস্থিত দর্শকদের অনেক্ষন ধরে হলে উপস্থিত থেকে ফটো সেশন করেন।

জন্মভূমি টেলিভিশনের ৫ বছরে পদার্পন উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানটির সংবাদ সংগ্রহ ও নিউজ কনটেন্ট এর দায়িত্বে ছিলেন নাইম আবদুল্লাহ, ডিরেক্টর নিউজ এন্ড কনটেন্ট, সার্বিক সঞ্চালনের দায়িত্বে  ছিলেন আবিদা আসওয়াদ ডিরেক্টর প্রোগ্রাম জন্মভূমি টেলিভিশন।মঞ্চসজ্জা করেছেন জন্মভূমি টেলিভিশনের ডিরেক্টর ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট কানিতা আহমেদ।

শব্দ সঞ্চালনায় ছিলেন বেলায়েত রবিন  ডিরেক্টর টেকনিক্যাল,জন্মভূমি টেলিভিশন।অনুষ্ঠানটি সুষ্ঠ ভাবে পরিচালিত করার দায়িত্বে ছিলেন ডঃ সৈয়দ আজিম ,ডিরেক্টর প্রোডাকশন,জন্মভূমি টেলিভিশন।ভিডিও ধারণ করেছেন সিডনি সংবাদ চিত্রের মোস্তফা কামাল। আরো ভিডিও ধারণ করেছেন আসওয়াদ বাবু  ডিরেক্টর প্রোটোকল জন্মভূমি টেলিভিশন।ফটোগ্রাফি করেছেন মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর। এছাড়া  প্রকাশিত ম্যাগাজিনটি পরিকল্পনা ও ডিজাইন করেছেন শাখাওয়াত বাবু ডিরেক্টর প্রিন্টিং এন্ড পাবলিকেশন জন্মভূমি টেলিভিশন।ম্যাগাজিনটি ছাপা হয়েছে টাচ প্রিন্টিং থেকে। অতিথি আপ্যায়ন ও হল ব্যবস্থাপনায় ছিলেন কাজী আলম রুবেল, ডিরেক্টর বিজনেস রিলেশন জন্মভূমি টেলিভিশন,এবং ক্রিয়েটিভ ডিরেক্টর জন্মভূমি টেলিভিশন শিরিন আক্তার মুন্নি। সার্বিক ব্যাবস্থাপনায় ছিলেন রাহেলা আরেফিন সিইও জন্মভূমি টেলিভিশন।

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s