সিডনিতে খুন হয়েছেন বাংলাদেশী তরুণী

গত ১৪ সেপ্টেম্বর (বুধবার) ভোরে সিডনির ওয়েন্টওয়ার্থভিল সাবার্বে সাবাহ হাফিজ (২৩) নামে এক বাংলাদেশী তরুণীর হস্যজনক মৃত্যু হয়। নিহত সাবাহ বাংলাদেশী বংশদ্ভুত তরুণী বলে এসবিএস বাংলা জানিয়েছে।

স্থানীয় সংবাদ মাধ্যম জানিয়েছে, ঐদিন ভোর রাত ২ টা ৪০ মিনিটে সাবাহ’র এপার্টমেন্টের প্রতিবেশীরা এমারজেন্সীতে কল করলে প্যারামেডিকরা এসে তাকে বাঁচানোর চেষ্টা করলেও মারাত্মক জখমের কারনে ঘটনাস্থলেই তাঁর মৃত্যু হয়।

সাবাহ অস্ট্রেলিয়া মূলধারার মডেলিং ও অভিনয় পেশার সাথে জড়িত ছিলেন বলে সংবাদ মাধ্যম জানিয়েছে। ওয়েন্টওয়ার্থভিলের একই এপার্টমেন্টে সাবাহ তাঁর স্বামীর সাথে থাকতেন।

পুলিশ গতকাল বৃহস্পতিবার সিডনির মারুব্রা থেকে নিহতের স্বামী এডাম কিইরটনকে গ্রেফতার করেছে। ডিটেক্টিভ এক্টিং সুপারইনটেন্ডেন্ট সাইমন গ্ল্যাসার জানান, পুলিশের ধারনা সাবাহকে প্রচন্ড প্রহার করা হয়েছে, তবে কি ধরণের অস্ত্র ব্যবহার করা হয়েছে তা জানা যায়নি। পুলিশ ঘটনাটি তদন্তে বিশেষ স্ট্রাইক ফোর্স গঠন করেছে।

সিআইপি হাসান মাহমুদ চৌধুরীর মৃত্যুতে সিডনি প্রেস এন্ড মিডিয়া কাউন্সিলের দোয়া মাহফিল

গত ১২ সেপ্টেম্বর (সোমবার) সন্ধ্যায় সিডনি প্রেস এন্ড মিডিয়া কাউন্সিল চট্টগ্রাম নগরের চান্দগাঁও আবাসিক কল্যাণ সমিতির সভাপতি ও কাশেম-নুর ফাউন্ডেশনের কো-চেয়ারম্যান শিল্পপতি হাসান মাহমুদ চৌধুরী (সিআইপি) র মৃত্যুতে তার কর্মময় জীবনের উপর সংক্ষিপ্ত আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করে। সংগঠনের সাধারন সম্পাদক মোহাম্মদ আব্দুল মতিনের পরিচালনায় আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের সিনিয়র সহ সভাপতি আব্দুল্লাহ ইউসুফ শামীম।

সংগঠনের সদস্যরা মরহুমের আলোকিত কর্মময় জীবনীর উপর আলোকপাত করে বলেন, তিনি করোনা আইসোলেশন সেন্টার চট্টগ্রামের জন্য ৫ লাখ টাকা, চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন সেবকদের নতুন পোশাকের জন্য ২০ লাখ টাকাসহ চসিককে ২২ লাখ টাকার অনুদান দেন। এছাড়াও হাসান মাহমুদ চৌধুরী দেশে করোনা মহামারিতে অন্তত দেড় লক্ষ মানুষকে খাদ্য সহায়তা দিয়েছেন। এর মধ্যে চট্টগ্রামে প্রায় ৫০ হাজার মানুষের ঘরে পোঁছে দিয়েছেন খাদ্য সহায়তা। তাঁর জীবদ্দশায় বহু মসজিদ, মাদ্রাসা, এতিমখানা, স্কুল, কবরস্থান, নানা ধরনের দাতব্য প্রতিষ্ঠান সহ অস্ট্রেলিয়ার বিভিন্ন সংগঠনকে তিনি মুক্ত হস্তে দান করে গেছেন।

পরে পরম করুনাময় মহান আল্লাহর নিকট তাঁর রূহের মাগফেরাত কামনা করে শোকার্ত পরিবরের প্রতি সমবেদনা জ্ঞাপন করে দোয়া পরিচালনা করেন মাওলানা নজরুল ইসলাম।

সিডনি প্রেস এন্ড মিডিয়া কাউন্সিলের সদস্যদের মধ্যে আরো উপস্থিত ছিলেন, ড. ফজলে রাব্বি, ড.রতন কুন্ড, আব্দুল আউয়াল খান, মিজানুর রহমান সুমন, আলতাফ হোসেইন, দিদার হোসেন, হাজী দেলোয়ার, নাইম আবদুল্লাহ, প্রমুখ। আলোচনা ও দোয়া অনুষ্ঠানে বাংলাদেশী সিনিয়র সিটিজেন অব অস্ট্রেলিয়ার প্রতিষ্ঠাতা সদস্য হোসেন আরজু, হাবিব হাসান ও বৃহত্তর চট্টগ্রাম সমিতি অস্ট্রেলিয়ার সাধারন সম্পাদক ইফেখারউদ্দিন ইফতু অংশ নেন।

প্রসঙ্গত, করোনা কালীন সময়ে হাসান মাহমুদ চৌধুরী ঢাকায় অবস্থান করে মানবিক সহায়তার তদারকি করছিলেন। পরে চট্টগ্রামের কিছু মানবিক কাজ, চান্দগাঁও আবাসিক কল্যাণ সমিতির আলোচনা সভা, রক্তদান কর্মসূচি ও গরিবদের মাঝে খাদ্যসামগ্রি বিতরণে অংশ নিতে তিনি চট্টগ্রামে ছুটে যান। এসময় তিনি করোনায় আক্রান্ত হলে তাকে পুনরায় ঢাকায় আনোয়ার খান মেডিকেল কলেজে ভর্তি করা হয় এবং ২৮ সেপ্টেম্বর তার মৃত্যু হয় (ইন্না লিল্লাহে ও ইন্না ইলেইহে রাজেউন)।