বাসভূমিতে ন্যান্সী কন্যার অভিষেক

অস্ট্রেলিয়াভিত্তিক বাংলা অনলাইন টেলিভিশন বাসভূমি করোনাকালে দেশের বিভিন্ন ক্ষেত্রের খ্যাতিমানদের নিয়ে নানা ধরণের অনুষ্ঠান প্রচার করে দেশে ও প্রবাসে জনপ্রিয়তা অর্জন করেছে। এবার বাসভূমি দর্শকদের জন্য নিয়ে আসছে একটি নতুন চমক। দেশের জনপ্রিয় সংগীতশিল্পী ন্যান্সী কন্যা রোদেলা প্রথমবারের মত একক গান ও আড্ডায় অংশ নিতে আসছে বাসভূমিতে। আগামী ৮ নভেম্বর রোববার বাংলাদেশ সময় বিকেল ৪ টায় এবং অস্ট্রেলিয়া সময় রাত ৯ টায় এই বিশেষ অনুষ্ঠানটি প্রচারিত হবে। লাইভ দেখা যাবে বাসভূমির ফেসবুক পেজে এবং ইউটিউব চ্যানেলে।

অনুষ্ঠান সম্পর্কে বাসভূমি কর্ণধার আকিদুল ইসলাম বলেন, ন্যান্সী দেশের একজন মেধাবী ও গুণী শিল্পী। বাংলা গানে তার মেয়ের অভিষেক একটি বড় ঘটনা ও ইতিহাস। সেই ইতিহাসের অংশ হতে পেরে আমরা আনন্দিত।

শিশু শায়ানকে বাঁচাতে আপনার সহায়তার প্রয়োজন

লায়ন্স ক্লাব অফ সিডনি সাউথ শাপলা শালুক ইনক দেশে অসুস্থ চার মাসের শিশু শায়ানের চিকিত্সার জন্য উদারভাবে অনুদানের জন্য আবেদন জানিয়েছে।

শিশুটির জন্মগতভাবে পিত্তথলি না থাকায় সে পিত্তনালীর অ্যাট্রেসিয়ায় ( Biliary atresia with congenital absence of gall bladder) ভুগছে। বিশেষজ্ঞ ডাক্তারদের মতে তাঁর জীবন বাঁচানোর একমাত্র উপায় হলো লিভার ট্রান্সপ্ল্যান্ট করা। এই চিকিৎসা অত্যন্ত ব্যয়বহুল এবং শিশু শায়ানের দরিদ্র পরিবারের পক্ষে এই ব্যয়ভার বহন করা সম্ভবপর নয়। তাই দেশ বিদেশের সহৃদয় ব্যক্তিবর্গকে মানবিক ভিত্তিতে শাপলা শালুক লায়ন্স ক্লাব তাদের নীচের অ্যাকাউন্টে শায়নের জন্য উদারভাবে দান করার বিনীত অনুরোধ জানিয়েছেঃ শাপলা শালুক লায়ন্স ক্লাব, কমনওয়েলথ ব্যাংক, বিএসবি ০৬২২৫২ অ্যাকাউন্ট নম্বর: ১০১৭৫৪৭১ সুইফট কোডঃ সিটিবিএএইউ২এস।

বিস্তারিত তথ্যের জন্য লায়ন্স ক্লাব অফ সিডনি সাউথ শাপলা শালুক ইনক এর সভাপতি ডাঃ মইনুল ইসলামের সাথে ০৪০৩ ১১৪ ১৭৯ এ যোগাযোগ করা যেতে পারে। প্রসঙ্গত লায়ন্স ক্লাব অফ সিডনি সাউথ শাপলা শালুক ইনক অস্ট্রেলেশিয়ায় একমাত্র বাংলাদেশী লায়ন ক্লাব যারা বিগত বছরগুলোতে সিডনি ও বাংলাদেশে বিভিন্ন ধরনের সেবামূলক কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছে।

অস্ট্রেলিয়ায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শোক দিবস উপলক্ষে ভার্চুয়াল স্মরণসভা

শতদল তালুকদারঃ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শোক দিবস উপলক্ষে অস্ট্রেলিয়াতে এক ভার্চুয়াল স্মরণসভার আয়োজন করা হয়। শনিবার (১৭ অক্টোবর) জুম অ্যাপের মাধ্যমে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে জগন্নাথ হল অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশন অস্ট্রেলিয়া। 

১৯৮৫ সালের ১৫ অক্টোবর রাতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) জগন্নাথ হলের টিভি রুমের ছাদ ধসে ৪০ জন শিক্ষার্থী, কর্মচারী ও অতিথির মর্মান্তিক মৃত্যু হয়। এরপর থেকেই বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন এ দিনটিকে ঢাবি শোক দিবস হিসেবে ঘোষণা করে।

অনুষ্ঠানের শুরুতে নিহতদের আত্মার শান্তি কামনা করে এক মিনিট নিরব প্রার্থনা করা হয়। এরপর ভক্তিগীতি ও কোরাস গেয়ে ওই ঘটনার তাৎপর্য ফুঁটিয়ে তোলার চেষ্টা করা হয়। সংগীত পরিবেশন করেন নির্মল চৌধুরী, জ্যোতি বিশ্বাস, পলাশ বসাক, অদিতি রাউথ ও বর্ণালী রায়। এরপর উপস্থিত বক্তারা ঢাবি শোক দিবসের ইতিহাস ও কার্যকারণ নিয়ে আলোচনা করেন।

আশীষবরণ রায়ের সভাপতিত্বে এবং তুষার রায়ের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি ড. মো. আকখারুজ্জামান এবং বিশেষ অতিথি ছিলেন ক্যানবেরাস্থ বাংলাদেশ হাইকমিশনের মাননীয় হাইকমিশনার মোহম্মদ সফিউর রহমান। আয়োজনে আরও উপস্থিত ছিলেন ঢাবির জগন্নাথ অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশনের বিভিন্ন দেশের প্রতিনিধিবৃন্দ।

সিডনিতে খুন হয়েছেন বাংলাদেশী তরুণী

গত ১৪ সেপ্টেম্বর (বুধবার) ভোরে সিডনির ওয়েন্টওয়ার্থভিল সাবার্বে সাবাহ হাফিজ (২৩) নামে এক বাংলাদেশী তরুণীর হস্যজনক মৃত্যু হয়। নিহত সাবাহ বাংলাদেশী বংশদ্ভুত তরুণী বলে এসবিএস বাংলা জানিয়েছে।

স্থানীয় সংবাদ মাধ্যম জানিয়েছে, ঐদিন ভোর রাত ২ টা ৪০ মিনিটে সাবাহ’র এপার্টমেন্টের প্রতিবেশীরা এমারজেন্সীতে কল করলে প্যারামেডিকরা এসে তাকে বাঁচানোর চেষ্টা করলেও মারাত্মক জখমের কারনে ঘটনাস্থলেই তাঁর মৃত্যু হয়।

সাবাহ অস্ট্রেলিয়া মূলধারার মডেলিং ও অভিনয় পেশার সাথে জড়িত ছিলেন বলে সংবাদ মাধ্যম জানিয়েছে। ওয়েন্টওয়ার্থভিলের একই এপার্টমেন্টে সাবাহ তাঁর স্বামীর সাথে থাকতেন।

পুলিশ গতকাল বৃহস্পতিবার সিডনির মারুব্রা থেকে নিহতের স্বামী এডাম কিইরটনকে গ্রেফতার করেছে। ডিটেক্টিভ এক্টিং সুপারইনটেন্ডেন্ট সাইমন গ্ল্যাসার জানান, পুলিশের ধারনা সাবাহকে প্রচন্ড প্রহার করা হয়েছে, তবে কি ধরণের অস্ত্র ব্যবহার করা হয়েছে তা জানা যায়নি। পুলিশ ঘটনাটি তদন্তে বিশেষ স্ট্রাইক ফোর্স গঠন করেছে।

সিআইপি হাসান মাহমুদ চৌধুরীর মৃত্যুতে সিডনি প্রেস এন্ড মিডিয়া কাউন্সিলের দোয়া মাহফিল

গত ১২ সেপ্টেম্বর (সোমবার) সন্ধ্যায় সিডনি প্রেস এন্ড মিডিয়া কাউন্সিল চট্টগ্রাম নগরের চান্দগাঁও আবাসিক কল্যাণ সমিতির সভাপতি ও কাশেম-নুর ফাউন্ডেশনের কো-চেয়ারম্যান শিল্পপতি হাসান মাহমুদ চৌধুরী (সিআইপি) র মৃত্যুতে তার কর্মময় জীবনের উপর সংক্ষিপ্ত আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করে। সংগঠনের সাধারন সম্পাদক মোহাম্মদ আব্দুল মতিনের পরিচালনায় আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের সিনিয়র সহ সভাপতি আব্দুল্লাহ ইউসুফ শামীম।

সংগঠনের সদস্যরা মরহুমের আলোকিত কর্মময় জীবনীর উপর আলোকপাত করে বলেন, তিনি করোনা আইসোলেশন সেন্টার চট্টগ্রামের জন্য ৫ লাখ টাকা, চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন সেবকদের নতুন পোশাকের জন্য ২০ লাখ টাকাসহ চসিককে ২২ লাখ টাকার অনুদান দেন। এছাড়াও হাসান মাহমুদ চৌধুরী দেশে করোনা মহামারিতে অন্তত দেড় লক্ষ মানুষকে খাদ্য সহায়তা দিয়েছেন। এর মধ্যে চট্টগ্রামে প্রায় ৫০ হাজার মানুষের ঘরে পোঁছে দিয়েছেন খাদ্য সহায়তা। তাঁর জীবদ্দশায় বহু মসজিদ, মাদ্রাসা, এতিমখানা, স্কুল, কবরস্থান, নানা ধরনের দাতব্য প্রতিষ্ঠান সহ অস্ট্রেলিয়ার বিভিন্ন সংগঠনকে তিনি মুক্ত হস্তে দান করে গেছেন।

পরে পরম করুনাময় মহান আল্লাহর নিকট তাঁর রূহের মাগফেরাত কামনা করে শোকার্ত পরিবরের প্রতি সমবেদনা জ্ঞাপন করে দোয়া পরিচালনা করেন মাওলানা নজরুল ইসলাম।

সিডনি প্রেস এন্ড মিডিয়া কাউন্সিলের সদস্যদের মধ্যে আরো উপস্থিত ছিলেন, ড. ফজলে রাব্বি, ড.রতন কুন্ড, আব্দুল আউয়াল খান, মিজানুর রহমান সুমন, আলতাফ হোসেইন, দিদার হোসেন, হাজী দেলোয়ার, নাইম আবদুল্লাহ, প্রমুখ। আলোচনা ও দোয়া অনুষ্ঠানে বাংলাদেশী সিনিয়র সিটিজেন অব অস্ট্রেলিয়ার প্রতিষ্ঠাতা সদস্য হোসেন আরজু, হাবিব হাসান ও বৃহত্তর চট্টগ্রাম সমিতি অস্ট্রেলিয়ার সাধারন সম্পাদক ইফেখারউদ্দিন ইফতু অংশ নেন।

প্রসঙ্গত, করোনা কালীন সময়ে হাসান মাহমুদ চৌধুরী ঢাকায় অবস্থান করে মানবিক সহায়তার তদারকি করছিলেন। পরে চট্টগ্রামের কিছু মানবিক কাজ, চান্দগাঁও আবাসিক কল্যাণ সমিতির আলোচনা সভা, রক্তদান কর্মসূচি ও গরিবদের মাঝে খাদ্যসামগ্রি বিতরণে অংশ নিতে তিনি চট্টগ্রামে ছুটে যান। এসময় তিনি করোনায় আক্রান্ত হলে তাকে পুনরায় ঢাকায় আনোয়ার খান মেডিকেল কলেজে ভর্তি করা হয় এবং ২৮ সেপ্টেম্বর তার মৃত্যু হয় (ইন্না লিল্লাহে ও ইন্না ইলেইহে রাজেউন)।

বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশনের অস্ট্রেলিয়া শাখা কমিটির অনুমোদন

গত ১১ অক্টোবর (রবিবার) বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশনের কেন্দ্রীয় কমিটি মোল্লা মোঃ রাশিদুল হককে সভাপতি এবং সানিয়াত ইসলামকে সাধারন সম্পাদক করে তাদের অস্ট্রেলিয়া শাখার কমিটির অনুমোদন দেয় এবং তাদেরকে পুর্নাঙ্গ কমিটি দেয়া সহ অস্ট্রেলিয়ার সমস্ত রাজ্যে কমিটি দেয়ার জন্যে নির্দেষ প্রদান করে।

অস্ট্রেলিয়া কমিটির সভাপতি মোল্লা মোঃ রাশিদুল হক অস্ট্রেলিয়া কমিটি অনুমোদন দেয়ার জন্যে বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন কেন্দ্রীয় কমিটির সম্মানিত সভাপতি ও মাননীয় পররাষ্ট্র মন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন, সম্মানিত সাধারণ সম্পাদক ও আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য এ্যাডভোকেট নুরুল ইসলাম ঠান্ডু, সম্মানিত নির্বাহী ও প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি এ্যাডভোকেট মশিউর মালেক, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রাশিদা হক কনিকা এবং যুগ্ম সাধারন সম্পাদক রফিক ফরাজীকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানান।

তিনি নতুন কমিটির সকল সদস্যদের আন্তরিক অভিনন্দন জানান এবং যারাই বঙ্গবন্ধুকে ভালোবাসেন এবং বঙ্গবন্ধুর জীবন নিয়ে কাজ করতে ইচ্ছুক তাদের বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশনে যোগ দিতে আহ্বান জানান। যোগ্য মেধাবী এবং দেশের জন্যে কাজ করতে ইচ্ছুকদের তিনি অতি সত্বর যোগাযোগের জন্যে অনুরোধ করেন।

তিনি অস্ট্রেলিয়ায় অবস্থানরত বাংলাদেশী বুদ্ধিজীবীদের নিয়ে বঙ্গবন্ধুর জীবনের উপর গবেষণাসহ বঙ্গবন্ধুর পলাতক খুনীদের দেশে ফিরিয়ে এনে বিচারের সন্মুখীন করানোর ব্যাপারে সব ধরনের সহযোগিতা প্রদানের ব্যাপারে দৃঢ় প্রত্যয় ব্যাক্ত করেন। বঙ্গবন্ধুর আদর্শে উজ্জীবিত বাংলাদেশের উন্নয়নে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করতে তিনি দেশের সবার প্রতি আহ্বান জানান।

সিডনিতে প্রবাসী বাংলাদেশীদের ধর্ষণ বিরোধী মানববন্ধনের আয়োজন

আজ ১০ অক্টোবর (রবিবার) সিডনির লাকেম্বায় প্রবাসী বাংলাদেশীরা তাদের মাতৃভুমিকে কলংক জনক ধর্ষণের হাত থেকে  মুক্ত করার জন্য ও ধর্ষকদের দৃষ্টান্ত মুলক শাস্তির দাবিতে এক মানব বন্ধন কর্মসুচিতে অংশগ্রহণ করে।

বিএনপি অস্ট্রেলিয়ার নেতৃত্বে যুবদল, মহিলা দল, স্বেচ্ছাসেবক দল ও বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন ল্যাকেম্বার রেলওয়ে প্যারাডে এই  মানববন্ধন কর্মসুচিতে সংগঠন গুলো ধর্ষন ও নারী নির্যাতনের প্রতিবাদে ইংরেজীতে লেখা বিভিন্ন শ্লোগান সম্বলিত প্লাকার্ড, ফেস্টুন প্রদর্শন করতে থাকে। প্ল্যাকার্ডে বিভিন্ন শ্লোগানের মধ্যে ছিল:

•Stop rape in Bangladesh

•Stop violence against women in Bangladesh

•BCL and rape is vis a vis

•We want legal action against rapist

•We want BCL free Bangladesh

•No place for rapist in Bangladesh

•NO MORE MANIK IN BANGLADESH

মানব বন্ধনে উপস্থিত ছিলেন বিএনপি অস্ট্রেলিয়ার আহ্বায়ক ড. হুমায়ের চৌধুরী রানা, সদস্য সচিব মোহাম্মদ হায়দার আলী ,জিয়া ফোরাম অস্ট্রেলিয়ার সভাপতি আরিফুল হক , সাধারন সম্পাদক সোহেল ইকবাল, বংলাদেশী কালচারাল ফোরাম  অস্ট্রেলিয়ার সদস্য সচিব ও বিএনপি নেতা জাকির আলম লেনিন, বিএনপি অস্ট্রেলিয়ার সাবেক সদস্য সচিব আশরাফুল আলম লেনিন,  খুলনা সরকারী মহিলা কলেজের সাবেক ভিপি মিতা কাদরী, যুবদলের আহ্বায়ক রকিবুল অলম মিয়া অপু, সদস্য সচিব মিজানুর রহমান, মহিলা দলের আহ্বায়ক মাহমুদা আরাফাত, সদস্য সচিব তাফতুন নাইম নিতু, আবৃত্তিকার নাহার নেহার, স্বেচ্ছাসেবক  দলের আহ্বায়ক হাজী ইউসুফ আলী, সদস্য সচিব  মাহফুজুর রহমান নয়ন, এ ছাড়াও বিএনপি নেতা ফরিদ মিয়া, হোসেন আরা সিদ্দীকা রিনা, রেহানা রহমান ,মন্জুরুল আলম আলমগীর, ইয়াছিন আরাফাত ইসলাম, মিজানুর রহমান সহ অন্যান্য সামাজিক ও রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ। ( প্রেস বিজ্ঞপ্তি)

সিডনিতে টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে শুরু হচ্ছে বাংলাদেশ সুপার লিগ

অস্ট্রেলিয়ার সিডনিতে আগামী ১১ই অক্টোবর শুরু হতে যাচ্ছে বাংলাদেশ সুপার লিগ টি-২০ ক্রিকেট টু্নামেন্ট। টুর্নামেন্টে অংশ নিতে পারবেন শুধু প্রবাসী বাংলাদেশি ক্রিকেটাররা। স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার (৮ অক্টোবর) সিডনির ল্যাকেম্বার একটি রেস্ট্রুরেন্টে এনিয়ে ‘মিট দ্য প্রেস’ আয়োজন করে টু্নামেন্ট আয়োজক কমিটি ও অস্ট্রেলিয়া বাংলাদেশ প্রেস ও মিডিয়া ক্লাব।

অনু্ষ্ঠানে বাংলাদেশ সুপার লিগ সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য তুলে ধরেন শাহ নেওয়াজ আলো ও সারফরাজ খান, আলী আশরাফ হিমেল ও সাংবাদিক আমিনুল ইসলাম রুবেল। জানানো হয়, এবছর টুর্নামেন্টে ২৪টি দল অংশ নেবে। সিডনির ছয়টি মাঠে অনুষ্ঠিত হবে ১০০ টিরও বেশি ম্যাচ। টুর্নামেন্টে চ্যাম্পিয়ন দল প্রাইজমানি পাবে ৩০০০ ডলার আর রানার আপ দলের জন্য থাকবে ১৫০০ ডলার পুরস্কার। এছাড়াও প্রতিটি ম্যাচে পুরস্কারের ব্যবস্থা করা হয়েছে।

‘মিট দ্য প্রেস’এ টুর্নামেন্টটির টাইটেল স্পন্সর বিংগো ফাইন্যান্স, টিএম এলায়েন্স মোটরস, এও হোমস, ধানসিঁড়ি রেস্ট্রুরেন্টসহ অন্যান্য স্পন্সরদাতা প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন সাবেক কাউন্সিলর ও সুপার লিগের উপদেষ্টা শাহে জামান টিটো, বাংলাদেশ প্রেস ও মিডিয়া ক্লাবের সভাপতি মো. রহমতুল্লাহ, সাধারণ সম্পাদক ইউসুফ টুটুল, শাখাওয়াত নয়ন, আসলাম মোল্লা, আতিকুর রহমান শুভ, আমিনুল ইসলাম রুবেল, আল নোমান শামীম, আকাশ দে, আবিদা আসওয়াদ, আউয়াল খান, আরিফুর রহমান, ফাহাদ আসমা। এসময় প্রতিটি ম্যাচে মাঠে উপস্থিত থেকে খেলোয়াড়দের উৎসাহিত করতে সবাইকে অনুরোধ করা হয়।

আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাসিমের মায়ের মৃত্যুতে অা.লীগ অস্ট্রেলিয়ার দোয়া ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাসিমের রত্নগর্ভা মা নুরজাহান বেগমের মৃত্যুতে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ অস্ট্রেলিয়ার আয়োজনে গত বৃহস্পতিবার (৮ অক্টোবর) সিডনির লাকেম্বার ধানসিঁড়ি রেস্টুরেন্টে দোয়া ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

দোয়া অনুষ্ঠানের জন্য আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাসিম কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন। যদিও তিনি আওয়ামী লীগের সভায় ব্যস্ত থাকায় লাইভের মাধ্যমে অনুষ্ঠানে যুক্ত হতে পারেন নি।  তবে ভিডিও সংলাপে অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সফিউল আলম চৌধুরী নাদেল, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার আব্দুস সবুর, বাহাউদ্দিন নাসিমের সহোদর মাদারীপুরের মেয়র খালিদ হোসেন ইয়াদ, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ অস্ট্রেলিয়ার উপদেষ্টা ড. মাসুদুল হকসহ প্রমুখ নেতৃবৃন্দ। দোয়া অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ অস্ট্রেলিয়ার সভাপতি মো. সিরাজুল হক ও  সঞ্চালনা করেন সাধারণ সম্পাদক পি এস চুন্নু। 

দোয়া অনুষ্ঠানের আলোচনায় বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ অস্ট্রেলিয়ার সভাপতি মো. সিরাজুল হক বলেন, আজকে আমরা এমন একজন রত্নগর্ভা মায়ের জন্য দোয়া ও আলোচনা সভার আয়োজন করেছি যিনি মৃত্যুকালে আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাসিমের মত সুসন্তান রেখে গেছেন। বাহাউদ্দিন নাসিম শুধু একজন নামকাওয়াস্তে বাংলাদেশ অাওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক নন, তিনি প্রকৃত অর্থে ত্যাগ ও তিতিক্ষায় বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে ধারণ করেন এবং মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর একনিষ্ঠ কর্মী।

বঙ্গবন্ধু পরিষদ, সিডনির সভাপতি ড. মাসুদুল হক বলেন, যে কোনো মৃত্যুই মানুষকে ভাবায়-কাঁদায়, কিন্তু কিছু কিছু মৃত্যু আছে যা জাতির জন্য অপূরণীয় ক্ষতি। ঠিক তেমনি আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাসিমের মায়ের মৃত্যুতে বাংলাদেশ একজন রত্নগর্ভা মাকে হারালো। আমরা তাঁর আত্মার মাগফিরাত কামনা করছি।

দোয়া ও আলোচনা অনুষ্ঠানটিতে  উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী অস্ট্রেলিয়ার যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান কচি, আব্দুল খান রতন, সাংগঠনিক সম্পাদক মোসলেউর রহমান খুসবু,  এস এম দিদার হোসেন, মহিলা সম্পাদিকা বিলকিস আক্তার, নবিন হোসেন, বাংলাদেশ অাওয়ামী সিডনির সাধারণ সম্পাদক ফয়সাল আজাদ, বাংলাদেশ অাওয়ামী সিডনির সহ-সভাপতি আলতাফ হোসেন লাল্টু, শাহাজাহান মিলটন, নির্মল কস্টা,  মানিক নাগ, ড. তারিকুল ইসলাম, কোষাধ্যক্ষ আব্দুস সালাম, সদস্য মাহবুবুর রহমান, শাহিন, ফয়সাল হোসেন, সাবেক ছাত্রনেত্রী এবং কমিউনিটি ব্যক্তিত্ব সেলিমা বেগম,  ব্যারিষ্টার  এন্ড সলিসিটর নির্মলীয়া তালুকদার নান্টু,  ছাত্রললীগের সভাপতি আমিনুল ইসলাম রুবেলসহ আওয়ামী লীগ, ছাত্রলীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

আরো উপস্থিত ছিলেন সময় টিভির অস্ট্রেলিয়া প্রতিনিধি ডব্লিউ রুবেল, আর টিভির প্রতিনিধি আকাশ, প্রশান্তিকার সম্পাদক আতিকুর রহমান শুভ, বাংলা কথার আউয়াল খান প্রমুখ।  অনুষ্ঠানে দেশে করোনাকালে মৃত্যুবরণকারী সকলের জন্য দোয়া করা হয়৷ এছাড়া অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দীর্ঘায়ু কামনাসহ বাংলাদেশের সমৃদ্ধির জন্যও দোয়া করা হয়। 

এ সময় বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সিডনির সভাপতি গাউসুল আলম শাহজাদার রোগমুক্তি হওয়ায় সৃষ্টিকর্তার প্রতি শোকর জ্ঞাপন করা হয়৷ দোয়া অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেছেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ অস্ট্রেলিয়ার ত্রাণ সম্পাদক আবুল বাশার রিপন ও হাবিবুর রহমান।

সিডনির গ্লেনফিল্ডে নতুন গ্রোসারি শপ ‘ডেইলি নিডস্’

সিডনির দক্ষিণ-পশ্চিম অঞ্চল গ্লেনফিল্ড স্টেশনের পাদদেশে চালু হয়েছে আরও একটি নতুন গ্রোসারি শপ ‘ডেইলি নিডস্’। প্রায় দুই সপ্তাহ আগে ৭০এ রেলওয়ে প্যারেড ঠিকানায় (গুরু ড্রাইভিং স্কুলের পাশে) দোকানটি উদ্বোধন হয়। দোকানটির কর্ণধার আশীষ ও শম্পা দম্পতি জানান, চালু হওয়ার পর থেকেই কমিউনিটির অসংখ্য মানুষ কেনাকাটা করছেন বা শুভকামনা জানাতে আসছেন। তিনি সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান এবং ক্রেতাদের অব্যাহত আগমন এবং চাহিদার ভিত্তিতে প্রয়োজনীয় পণ্য সরবরাহের প্রতিশ্রুতি দেন।

হালাল মাংস, মাছ, স্পাইসেস এবং নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি সহ রয়েছে দেশীয় পোষাক এবং জুয়েলারী কর্নার।

ডেইলি নিডস্ শপে হালাল বুচারি বা মাংস, বাংলাদেশের নানারকমের মাছ, শব্জি, হরেক রকমের স্পাইস, চাল, ডাল, মিস্টি ইত্যাদি পাওয়া যাচ্ছে। শপের ভেতরেই কাচঘেরা ঘরে আলাদা করে রাখা হয়েছে দেশীয় পোশাক ও জুয়েলারী। ক্রেতারা নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি কেনার সঙ্গে সঙ্গে পছন্দের পোশাকও একদামে ক্রয় করতে পারবেন। শপের মালিক আশীষ বলেন, দোকানের সামনে রাস্তার দুই পাশে পার্কিং এমনকি পেছনেও আনলিমিটেড পার্কিং সুবিধা রয়েছে। উদ্বোধন উপলক্ষে মাছ, মাংস এবং অন্যান্য পণ্যে বিশেষ ডিসকাউন্ট বা ছাড় চলছে বলে তিনি জানান।

ক্যাম্বেলটাউন কাউন্সিলের কাউন্সিলর মাসুদ চৌধুরী সহ কমিউনিটির ব্যক্তিরা এসেছেন ডেইলি নিডস্ শপে। সঙ্গে রয়েছেন কর্ণধার আশীষ।

আশেপাশের ম্যাকুয়ারীফিল্ডস, ইঙ্গেলবার্ন, গ্লেনফিল্ড, ক্যাসুলা, বার্ডিয়া, এডমুন্ডসেনপার্ক ও ক্যাসুলা সাবার্বে অসংখ্য বাংলাদেশী বসবাস করেন। গ্লেনফিল্ড স্টেশনটি জাংশন হওয়ায় বৃহৎ এলাকা জুড়ে থাকা বাংলাদেশীরা এই স্টেশন ব্যবহার করেন। কাজ থেকে বাড়ি ফেরার সময় তারা ট্রেন থেকে নেমেই সুলভ মূল্যে ডেইলি নিডস্ থেকে বাজার করে যেতে পারবেন। দোকানটি সপ্তাহের ৭দিন সকাল থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত খোলা থাকছে। হালাল বুচারি সেকশানে রয়েছেন মোহাম্মদ আব্দুল লতিফ, পোষাক ও জুয়েলারী সেকশনে শম্পা এবং কাউন্টারে রয়েছেন সদা হাসিমুখে আশীষ।