পবিত্র ঈদুল আযহা উপলক্ষে সিডনি প্রেস এ্যান্ড মিডিয়া কাউন্সিলের শুভেচ্ছা

পবিত্র ঈদুল আযহা উপলক্ষে সিডনি প্রেস এ্যান্ড মিডিয়া কাউন্সিলের সভাপতি ড. এনামুল হক ও সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মাদ আবদুল মতিন অস্ট্রেলিয়া বাংলাদেশসহ মুসলিম উম্মাহর সকল ভাই-বোনদের প্রতি আন্তরিক শুভেচ্ছা ও মোবারকবাদ জানিয়েছেন।

এক বার্তায় তারা বলেন, ত্যাগের মহিমায় ভাস্বর পবিত্র ঈদ-উল-আযহা মহান আল্লাহর প্রতি অপরিসীম আনুগত্যের অনুপম নিদর্শন। পবিত্র ঈদ-উল-আযহার মহান আদর্শ ও শিক্ষাকে আমাদের চিন্তা ও কর্মে প্রতিফলিত করতে হবে। পবিত্র ঈদ-উল-আযহা মুসলিম জাতির ঐক্য, সংহতি ও ভ্রাতৃত্ববোধকে আরো সুসংহত করবে বলে আমার বিশ্বাস। তারা আরো বলেন, এইবার এমন একটি সময়ে ঈদুল আযহা উদযাপিত হতে যাচ্ছে যখন সমগ্র বিশ্ব মহামারি করোনা ভাইরাসের প্রকোপে তটস্থ। এই পরিস্থিতিতে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা, ধৈর্য্য ও সহনশীলতা অপরিহার্য। ঈদ-উল-আযহা সবার জন্য আনন্দপূর্ণ ও কল্যাণকর হোক। মহান আল্লাহ্ আমাদের সকলকে ভয়াবহ বৈশ্বিক মহামারি করোনা ভাইরাস থেকে হেফাজত করুক। 

জাবি শিক্ষক ড. মোজাম্মেলের মৃত্যুতে সিডনিতে শোকের ছায়া

আজ ২৭ জুলাই (সোমবার) স্থানীয় সময় সকাল সাড়ে নয়টায় জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অধ্যাপক ড. মোজাম্মেল হক চৌধুরী সিডনির ব্যাথার্স্টে নিজ বাসভবনে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)।

তিনি স্কলারশিপ নিয়ে ব্যাথার্স্টের চার্লস স্টুয়ার্ট বিশ্ববিদ্যালয়ে গবেষণা করে অতি সম্প্রতি পিএইচডি সম্পন্ন করেন। ড. মোজাম্মেল অধ্যয়নরত অবস্থায় দুরারোগ্য ফুসফুস ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে দীর্ঘদিন যাবত চিকিৎসাধীন ছিলেন। তিনি স্ত্রী ও দুই কন্যা রেখে গেছেন। আগামীকাল মঙ্গলবার সিডনির মাউন্ট ড্রুট মসজিদে তার জানাযা শেষে স্থানীয় কবরস্থানে দাফন করা হবে বলে জানা গেছে।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন শিক্ষার্থীরা জানান, গত ৩ বছর আগে ড. মোজাম্মেলের ফুসফুসে ক্যান্সার ধরা পড়ার পর পরবর্তীতে মস্তিষ্কে ছড়িয়ে পড়ে। তিনি গত ৫ বছর আগে পিএইচডি করার উদ্দেশে অস্ট্রেলিয়া আসেন। তার গ্রামের বাড়ি বাংলাদেশের নেত্রকোনা জেলায়।

ড. মোজাম্মেলের মৃত্যুতে সিডনিতে শোকের ছায়া নেমে আসে। সিডনিতে বসবাসরত জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন শিক্ষার্থীরা ড. মোজাম্মেলের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করে শোক সংতপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন।

সিডনিতে ঈদুল আজহা ৩০ জুলাই ও ১ অগাস্ট

সিডনিতে এবারও দুই দিনব্যাপী ঈদুল আজহা উদযাপিত হবে। সিডনি সহ অস্ট্রেলিয়ার বিভিন্ন স্থানে আজ (মঙ্গলবার) জিলহজ্জ মাসের চাঁদ দেখা যাওয়ায় ‘মুন সাইটিং অস্ট্রেলিয়া’র পক্ষ থেকে আগামী ১ অগাস্ট (শনিবার) ঈদ পালনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। অন্যদিকে অস্ট্রেলিয়ান ন্যাশনাল ইমাম কাউন্সিল’ আগামী ৩০ জুলাই (শুক্রবার) অগাস্ট ঈদুল আজহা উদযাপনের ঘোষণা দিয়েছে।

সিডনিতে ঈদের নামাজ সীমিত পরিসরে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে স্থানীয় মসজিদ ও ইসলামিক সেন্টারে অনুষ্ঠিত হবে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। সিডনি প্রবাসী বাংলাদেশিরা এবারে স্থানীয় গ্রোসারি শপ ও মসজিদ কমিটির তত্বাবধানে সীমিত ভাবে তাদের কুরবানী সম্পন্ন করবেন বলে জানা গেছে। 

সিডনিতে দাফন সংকট সমাধানে ‘পরপার’

ইসলামে পুরো জানাজা প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা প্রতিটি স্থানীয় মুসলিম সম্প্রদায়ের দায়িত্ব ও কর্তব্য। তবে অস্ট্রেলিয়ার সিডনিতে যখনই কোনো মৃত্যুর ঘটনা ঘটে তখন মৃত ব্যক্তির জানাজা, দাফন সম্পন্ন করতে প্রয়োজনীয় অর্থের তাৎক্ষণিক যোগান দেয়া একটি পরিবারের জন্য ভীষণ কষ্ট সাধ্য হয়ে উঠে। 

অনেক সময় অন্তিম শোকের মুহূর্তেও মৃত ব্যক্তির পরিবারের সদস্যদের তার নিকটতম আত্মীয় স্বজন এবং বন্ধুবান্ধবদের কাছে সাহায্যের জন্য হাত পাততে হয়। অনেক সময় পরিবারটিকে সামাজিকভাবে অপ্রীতিকর অবস্থার মধ্যে পড়তে হয়। এর স্মৃতি অনেক সময়ই সুখকর হয় না। 

সম্প্রতি এনিয়ে সিডনিতে পরোপার নামের একটি সংগঠন কাজ করছে। সংগঠনের আহ্বায়ক আসলাম মোল্লা জানান, ‘আমরা কমিউনিটির সদস্যদের কাছ থেকে দাফনের তহবিলের জন্য বিগত কয়েক বছর ধরে অনুরোধ পাচ্ছি। ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে যাতে এ দায়িত্ব পালনের ক্ষেত্রে বিড়ম্বনায় না পড়ে তার উদ্দেশ্যেই সিডনিতে আমরা ‘‘পরোপার” নামে সংগঠনটির উদ্যোগ নিয়েছি। এই সামাজিক সঞ্চয়ী প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে আমরা নিজেদের পরপারের সুন্দর ব্যবস্থা নিজেরাই নিশ্চিত করতে পারব এবং আমাদের পরিবারকে আর কখনো এ ধরনের সামাজিক বিড়ম্বনায় পড়তে হবে না।’

আসলাম মোল্লা আরও বলেন, ‘একসাথে তহবিল গঠনের মাধ্যমে সবাই উপকৃত হতে পারে। এতে জানাজা দাফন খরচ কমে আসবে। সবাই একে অন্যকে সহযোগিতা করতে পারবো। ফলে কাউকে সামাজিক বিড়ম্বনায় পড়তেও হবে না।  আমাদের সামাজিক এবং ধর্মীয় দায়িত্বও সঠিকভাবে সম্পন্ন হবে।’

তিনি জানান, এর মাধ্যমে সংগঠনের সদস্যরা তাদের আপনজনের জানাজা দাফন সম্পন্ন করার জন্য প্রাক-অর্থ প্রদান করে, সঞ্চয় করে বা অনুদানের মাধ্যমে নিয়মিত অবদান রাখতে পারবেন।

নিউজিল্যান্ডে মসজিদে হামলাকারীর বিচার শুরু হচ্ছে

নিউজিল্যান্ডের মসজিদ হামলাকারীর সাজা শুরু হচ্ছে ২৪ আগস্ট। গত বছরের ১৫ মার্চ নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চ শহরের দু’টি মসজিদে জুমার নামাজের সময় নির্বিচারে গুলি করে হত্যাযজ্ঞ চালান ব্রেনটন ট্যারেন্ট। ব্রেনটন তার হামলার দৃশ্য সরাসরি নিজের ফেসবুকে সম্প্রচারও করেন।

ওই হামলায় ৫১ জন নিহত হন। আহত ৪০ জন। নৃশংস ওই হামলায় অন্তত চারজন বাংলাদেশি নিহত হয়েছিলেন। পরে হত্যা ও সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের অভিযোগে ব্রেন্টন ট্যারেন্টকে দোষী সাব্যস্ত করে পুলিশ হেফাজতে নেয়া হয়। আদালত গত ৩ জুলাই জানিয়েছে, নিউজিল্যান্ডের নৃশংসভাবে ৫১ জন মুসলিমকে হত্যার অভিযোগে ব্রেন্টন ট্যারেন্টের সাজার শুনানি শুরু হয়েছে।

বিচারপতি ক্যামেরন ম্যান্ডার বলেন, শুনানিটি তিন দিন স্থায়ী হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। তবে বিচারের প্রয়োজনে বেশিদিনও লাগতে পারে। তিনি আরও জানান, হামলায় ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের সদস্য যারা বর্তমানে বিদেশে রয়েছেন এবং নিউজিল্যান্ডে ভ্রমণে অক্ষম তাদের জন্য সাজা দূরবর্তীভাবে দেখার জন্য ব্যবস্থা করা হবে।

করোনভাইরাসের বিধিনিষেধ প্রত্যাহার করার পর উপযুক্ত তারিখ খুঁজতে ট্যারেন্টের রিমান্ড বাড়ানো হয়েছিল বলেও বিচারপতি ক্যামেরন ম্যান্ডার উল্লেখ করেন। ছবিঃ ইন্টারনেট

সিডনি প্রেস অ্যান্ড মিডিয়া কাউন্সিলের সভায় লিগ্যাল টিম ও আইন উপদেষ্টা নিয়োগের সিদ্ধান্ত

স্থানীয় সময় গত শনিবার (১১ জুলাই) সন্ধ্যায় সিডনির ইঙ্গেলবার্ণস্থ থাইবার্ণ রেঁস্তোরায় অস্ট্রেলিয়া প্রবাসী বাংলাদেশি লেখক, সাংবাদিক ও সংবাদকর্মীদের বৃহত্তম সংগঠন ‘সিডনি প্রেস অ্যান্ড মিডিয়া কাউন্সিল’ এর কার্যনির্বাহী পরিষদের সভা অনুষ্ঠিত হয়। 

কাউন্সিলের সিনিয়র সহ-সভাপতি আবদুল্লাহ ইউসুফ শামীমের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মাদ আবদুল মতিনের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানের শুরুতে পবিত্র কুরআন থেকে তেলওয়াত করা হয়। সভায় কাউন্সিলের কার্যক্রমকে আরো গতিশিল করার জন্য বিভিন্ন মতামত পেশ করে বক্তব্য রাখেন, সিনিয়র সহ-সভাপতি আসলাম মোল্যা, কার্যনির্বাহী পরিষদের সদস্য নাইম আবদুল্লাহ ও ফজলে রাব্বি, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আবদুল আউয়াল, কোষাধ্যক্ষ মাকসুদা সুলতানা, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক মিজানুর রহমান সুমন এবং মিডিয়া ও কমুনিকেশন সম্পাদক আসিফ ইকবাল। 

সভায় সর্বসম্মতিক্রমে ‘ডিরেক্সলার এ্যান্ড পার্টনার্স’ ব্যারিস্টার এ্যান্ড সলিসিটর কোম্পানিকে সিডনি প্রেস অ্যান্ড মিডিয়া কাউন্সিলের লিগ্যাল টিম এবং ব্যারিস্টার হামাদ জেরেইকাকে প্রধান আইন উপদেষ্টা নিয়োগের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। এছাড়াও কাউন্সিলের সকল সদস্যদের জন্য ‘প্রেস আইডি কার্ড’ ও কোর্ট পিন, পুলওভার ব্যান্যার তৈরী, বাৎসরিক ক্যালেন্ডার, কমিউনিটি সভা, উপ-কমিটি গঠন, নতুন সদস্য নিয়োগ, জাতীয় দিবস সমূহ পালন, জুম মিটিং সহ বিভিন্ন কার্যক্রমের সিদ্বান্ত গৃহীত হয়। 

সংগঠনের সিনিয়র সহ-সভাপতি আসলাম মোল্যা তার প্রতিষ্ঠান ‘অজ প্রিন্টিং’ এর পক্ষ থেকে কাউন্সিলের সকল সদস্যদের জন্য সৌজন্যমূলকভাবে প্রেস আইডি কার্ড ও পুলওভার ব্যান্যার তৈরী করে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেন। করোনা পরিস্থিতির কারণে সংগঠনের সভাপতি ড. এনামুল হক মেলবোর্ন থেকে অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করতে না পেরে দু:খ প্রকাশ করেন। সবশেষে নৈশভোজ এবং মহামারি করোনাভাইরাস থেকে মুক্তির জন্য দোয়া ও মোনাজাতের মাধ্যমে সভার সমাপ্তি ঘোষণা করা হয়।