সিডনি প্রবাসী রিফিউজিদের আর্থিক সহায়তা দেবে সিডনি প্রেস এ্যান্ড মিডিয়া কাউন্সিল

সম্প্রতি করোনা ভাইরাসে অর্থনৈতিক সংকট মোকাবিলায় অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসন আগামী ৬ মাসের জন্য ১৮৯ বিলিয়ন ডলারের যে আর্থিক সহায়তা ঘোষনা করেছেন অস্ট্রেলিয়ার নাগরিক সহ ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরাই এর সুবিধা পাবেন। সিডনিতে বাংলাদেশী অনেক রিফিউজি রয়েছেন, যারা করোনা ভাইরাসের কারনে সম্প্রতি চাকরীচ্যুত হয়েছেন এবং অনেকের কাজের বৈধ কোন অনুমতি নেই বিধায় অস্ট্রেলিয়ান সরকারের কাছ থেকে তারা কোন আর্থিক সহযোগিতা পাবে না।

তাই ‘সিডনি প্রেস এ্যান্ড মিডিয়া কাউন্সিল’ রিফিউজিদেরকে জরুরী প্রয়োজনে সম্ভাব্য সহায়তা প্রদানের সিদ্বান্ত নিয়েছে। এছাড়াও করোনা ভাইরাস থেকে নিরাপদে থাকার জন্য বাংলাদেশের অসহায় মানুষদের পাশে দাঁড়াবে সিডনি প্রেস এ্যান্ড মিডিয়া কাউন্সিল। তাদের জন্য সার্জিক্যাল মাস্ক, হাত ধোয়ার জন্য তরল সাবান ও হ্যান্ড সেনিটাইজার সহ প্রাথমিক চিকিৎসার প্রয়োজনীয় ঔষধ সরবরাহ করবে।

সিডনি প্রেস এ্যান্ড মিডিয়া কাউন্সিলের সভাপতি ডঃ এনামুল হক ও সাধারন সম্পাদক মোহাম্মাদ আব্দুল মতিন জানান, করোনা ভাইরাস সঙ্কটে যে সমস্ত সিডনি প্রবাসী বাংলাদেশী রিফিউজি তাদের চাকুরি হারিয়েছেন কিংবা অর্থনৈতিক মন্দায় দিন যাপন করছেন তাদের সহযোগিতা করা আমাদের মানবিক দায়িত্ব। আমরা আমাদের অবস্থান থেকে তাদের সম্ভাব্য সহায়তা দেওয়ার জন্য আপ্রান চেষ্টা করবো ইনশাআল্লাহ। পাশাপাশি তারা অস্ট্রেলিয়া প্রবাসী বাংলাদেশ কমিউনিটির যে কোন সহৃদয় ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানকে এই মহতি উদ্যোগে তাদের সাথে অংশগ্রহন করার বিনীত অনুরোধ জানান।  

সিডনি প্রবাসী বাংলাদেশী রিফিউজিরা যে কোন জরুরী সম্ভাব্য সহায়তার জন্য এবং সাহায্যকারী ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানকে সিডনি প্রেস এ্যান্ড মিডিয়া কাউন্সিলের সভাপতি ডঃ এনামুল হক ( ০৪১৬ ৭৪৭ ৯১৪), সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মাদ আব্দুল মতিন ( ০৪৩৩ ৩৪৮ ৮০২) কিংবা সিনিয়র সহ-সভাপতি আবদুল্লাহ ইউসুফ শামীম ( ০৪২৩ ০১৩ ৫৪৬) এর সাথে এই নম্বরে যোগাযোগ করতে বিনীত অনুরোধ জানিয়েছেন।

সিডনি প্রবাসী শিক্ষার্থীদের খাবার সরবরাহ করবে বাংলাদেশী অস্ট্রেলিয়ান কমিউনিটি

করোনা ভাইরাস সঙ্কটে যে সমস্ত সিডনি প্রবাসী বাংলাদেশী শিক্ষার্থী তাদের চাকুরি হারিয়েছেন কিংবা অর্থনৈতিক মন্দায় দিন যাপন করছেন বাংলাদেশী অস্ট্রেলিয়ান কমিউনিটি তাদের জন্য বিনা মূল্যে খাবারের ব্যবস্থা করবেন। বাংলাদেশী অস্ট্রেলিয়ান কমিউনিটির একজন মুখপাত্র প্রবাসী বাংলাদেশী শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে জানান, তারা এই দেশে একা নন, আমরা আপনাদের সাথে আছি। আমরা একবেলা খেলে আপনারাও একবেলা খাবেন। কেউই এই করোনা ভাইরাস সঙ্কটে না খেয়ে থাকবেন না।

মুখপাত্র প্রবাসী বাংলাদেশী শিক্ষার্থীরা যারা খাবার সঙ্কটে আছেন তাদের ০৪৮৭ ৭৭৭ ৭৫৫ এই নম্বরে টেক্সট কিংবা তাদের ফেজবুক পেজে ইনবক্স করতে বিনীত অনুরোধ করেছেন। সবার গোপনীয়তা রক্ষা করা হবে বলেও জানিয়েছেন তারা।

সিডনিতে ঢাকা ডিলাইট’র প্রশংসনীয় উদ্যোগ

সারাবিশ্বে এরই মধ্যে ১৫০টির বেশি দেশ নভেল করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে। অস্ট্রেলিয়ায় এখন পর্যন্ত ১০৯৮ জন যার মধ্যে নিউ সাউথ ওয়েলস এ ৪৬৯ জন এই রোগে আক্রান্ত হয়েছে। সমর্থিত সুত্র থেকে এখন পর্যন্ত কোন প্রবাসী বাংলাদেশীর এই রোগে আক্রান্ত হওয়ার খবর পাওয়া যায়নি।

তবে অনেক প্রবাসী বাংলাদেশী পরিবার সহ হোম কোয়ারেনটাইন বা সেলফ আইসোলেসনে আছে। অনেক বাংলাদেশী শিক্ষার্থী সহ অস্থায়ী চাকুরি জীবিরা চাকুরী হারিয়ে কিংবা ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা ক্রেতার অভাবে পরিবার নিয়ে মানবেতর দিন যাপন করছে। কোন কোন পরিবার নিত্য প্রয়োজনীয় খাদ্য সামগ্রী কিনতে পারছে না। তাদের আর্থিক ও অন্যান্য সহায়তা অত্যন্ত জরুরী।

এই ভয়াবহ পরিস্থিতিতে সিডনির ল্যাকাম্বার ৩৩ রেলওয়ে প্যারেডস্থ ঢাকা ডিলাইট কনফেকশনারী প্রবাসী বাংলাদেশীদের সাহায্যার্থে এগিয়ে এসেছে। প্রতিষ্ঠানটির সত্ত্বাধিকারী জাহাঙ্গীর কবির মুঠোফোনে কান্না জড়িত কণ্ঠে জানান, ঢাকা ডিলাইট কনফেকশনারী  সকল প্রবাসী বাংলাদেশী সহ বিশেষ করে বাংলাদেশী শিক্ষার্থী যারা আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন তাদের সবার জন্য কনফেকশনারী খোলার পর থেকে গভীর রাত পর্যন্ত বিনামুল্যে পর্যাপ্ত রুটি বিতরনের ব্যবস্থা করা হয়েছে। তিনি আরও জানান, খুব শীঘ্রই আমরা এই রুটির সাথে বিনামূল্যে সব্জির বিতরনেরও ব্যবস্থা করবো। যে কোন প্রবাসী বাংলাদেশী আমাদের কাছ থেকে এই সেবা নিতে পারেন। পাশাপাশি আমরা সবার নাম ঠিকানা গোপন রাখবো।

জাহাঙ্গীর কবির কমিউনিটিতে করোনা ভাইরাসের কারনে আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত সবাইকে এই সেবা গ্রহন করার জন্য বিনীত অনুরোধ জানিয়েছেন।