কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন বাংলাদেশ অস্ট্রেলিয়া’র প্রেস বিজ্ঞপ্তি

আমরা অতীব আনন্দের সাথে জানাচ্ছি যে,আমাদের কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন বাংলাদেশ অস্ট্রেলিয়া শাখার পক্ষ থেকে Bush Fire Appeal এ সাড়া দিয়ে অস্ট্রেলিয়ায় বসবাসরত কৃষিবিদ ভাই ও বোনেরা সহ কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন, বাংলাদেশ এর কেন্দ্রীয় কমিটিও অস্ট্রেলিয়ার ভয়াবহ দাবানলে মানবিক সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন। সেই অনুযায়ী স্থানীয় কৃষিবিদ ও কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন বাংলাদেশ এর কেন্দ্রীয় কমিটি থেকে সর্ব সাকুল্যে প্রাপ্ত অনুদান (তিন হাজার ডলার) Rural Fire Service কে প্রদান করা হয়েছে।

মানবিক কারনে এই মহান জনকল্যাণে স্থানীয় কৃষিবিদ সহ কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন বাংলাদেশ কেন্দ্রীয় কমিটি এগিয়ে আসার জন্য অশেষ ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি। বিশেষ করে কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন বাংলাদেশ, কেন্দ্রীয় কমিটির অবদান আমরা গভীর কৃতজ্ঞতার সাথে স্মরণ করছি।

মানুষ মানুষের জন্য এই মূল মন্ত্রে দীক্ষিত হয়ে সকল কৃষিবিদ অতীতে মানব কল্যাণে যেমন আমাদের সাথে ছিলেন, এখনও আছেন এবং আগামীতেও থাকবেন এই দৃঢ় বিশ্বাস আমাদের আছে। মানবতার জয় হোক। সকল কৃষিবিদ ভাই বোনের কল্যাণ কামনা করছি।

ধন্যবাদান্তে

কৃষিবিদ ডঃ আবদুস সাদেক

সভাপতি,

কৃষিবিদ পরমেশ ভট্টাচার্য

সাধারণ সম্পাদক,

কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন বাংলাদেশ, অস্ট্রেলিয়া শাখা (Registration no. INC1801143)

সীমান্তে হত্যা বন্ধের দাবি জানিয়েছে সিডনি প্রেস এন্ড মিডিয়া কাউন্সিল

বাংলাদেশ ভারত যৌথচুক্তি অনুসারে বিনা অনুমতিতে বাংলাদেশ থেকে কেউ ভারতে প্রবেশ করলে অনুপ্রবেশকারী হিসেবে গণ্য হবে। আইনি প্রক্রিয়ার মাধ্যমে তার বিচার হবে। কিন্তু বিএসএফ নিজেরাই আইন হাতে তুলে নিচ্ছে এবং নির্বিচারে বাংলাদেশীদের হত্যা করছে।

সিডনি প্রেস এন্ড মিডিয়া কাউন্সিল সভাপতি ড. এনামুল হক এবং সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মাদ আব্দুল মতিন স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে অবিলম্বে সীমান্তে হত্যা বন্ধের দাবি এবং খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদারের দেশদ্রোহী মন্তব্যের তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছে।

বর্তমানে বিএসএফ সীমান্তবর্তী বাংলাদেশিদের জন্য এক আতঙ্কের নাম। প্রায় প্রতিদিনই কেউ না কেউ বিএসএফ’র গুলিতে নিহত হচ্ছে। বছরের প্রথম ২৩ দিনে বিএসএফ’র গুলিতে ১৫ বাংলাদেশি নিহত হয়েছে কিন্তু বাংলাদেশের পক্ষ থেকে তেমন কোনো প্রতিবাদ হচ্ছে না। এমনকি ভারত থেকেও কোন দুঃখ প্রকাশ করছে না।

বাংলাদেশ-ভারত সীমান্তে বিএস-এফের গুলিতে বাংলাদেশিদের হত্যা বন্ধ করতে হলে ভারতীয় সীমান্তরক্ষীদের দোষ দিয়ে লাভ নেই বলে সম্প্রতি মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশের খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার। কাউন্সিল এধরনের দেশদ্রোহী মন্তব্যের তীব্র প্রতিবাদ এবং অবিলম্বে সীমান্তে হত্যা বন্ধের দাবি জানিয়েছে। আর একজন বাংলাদেশিও নিহত হওয়ার আগে তারা এর সুরাহা চেয়ে সীমান্তে হত্যা বন্ধ এবং যেসমস্ত পরিবার সীমান্তে হত্যার শিকার হয়েছে সরকারের পক্ষ থেকে তাদের ক্ষতিপূরণ দেওয়ার দাবিও জানিয়েছে। (সংবাদ বিজ্ঞপ্তি)

সিডনিতে শরীয়তপুর এসোসিয়েশন অস্ট্রেলিয়া’র বার্ষিক বনভোজন অনুষ্ঠিত

বর্ণাঢ্য আয়োজনে গত ২৭ জানুয়ারি (সোমবার) সিডনির সিমস বিচ পার্কে শরীয়তপুর এসোসিয়েশন অস্ট্রেলিয়া তাদের বার্ষিক বনভোজনের আয়োজন করে। বর্নিল এই মিলন মেলায় অস্ট্রেলিয়ায় বসবাসরত শরিয়তপুর বাসীরা স্ব-পরিবারে অংশগ্রহন করেন। বনভোজনকে ঘিরে অনুষ্ঠানে গান বাজনা, বাচ্চাদের বিভিন্ন খেলাধুলা, কৌতুক প্রতিযোগিতা শেষে বিজয়ীদের মধ্যে পুরস্কার বিতরন করা হয়। উক্ত অনুষ্ঠানে শরিয়তপুর বাসীরা ছাড়াও সিডনিতে বসবাসরত গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

সংগঠনের সদস্যবৃন্দ আগত অতিথিদের ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, আপনাদের অংশগ্রহণে আজকের এই অনুষ্ঠান অত্যন্ত সুন্দর ও সার্থক ভাবে সম্পন্ন হয়েছে। আগামীতে আপনাদের সহযোগিতা পেলে আরও বড় ও ব্যাপক  আকারে আয়োযন করার চেষ্টা করব। বনভোজনে বারবিকিউ সহ রকমারি স্বাদের মুখরোচক দেশীয় খাবার পরিবেশন করা হয়।

সিডনিতে ১৫ই ফেব্রুয়ারী “ভালোবাসার বাংলাদেশ মেলা” উপলক্ষে সাংবাদিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত

আগামী ১৫ই ফেব্রুয়ারী (শনিবার) ব্যাঙ্কসটাউনের পল কিটিং পার্কে অনুষ্ঠিত হবে ‘ভালোবাসার বাংলাদেশ’ মেলা। এবারের মেলায় বাংলাদেশী কৃষ্টি ও সংস্কৃতিকে ভিনদেশীদের সাথে পরিচিত করিয়ে দিতে চলছে বর্ণিল আয়োজন।

এ উপলক্ষে আয়োজক সংস্থা ব্র্যান্ডিং বাংলাদেশ ইনক গত ২৫ জানুয়ারি (শনিবার) সন্ধ্যায় লাকেম্বাস্থ গ্রামীন চটপটি রেস্টুরেন্টে এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে। এবারের “ভালোবাসার বাংলাদেশ” মেলাটির টাইটেল স্পন্সর অস্ট্রালবিল্ট (AustralBuilt) প্রতিষ্ঠান।

২০১৭ সালে শুরু হওয়া এই মেলায় এইবার সিডনির প্রতিষ্ঠিত শিল্পীদের সাথে অংশ নিতে বাংলাদেশ থেকে আসছেন জনপ্রিয় শিল্পী শুভ্র দেব ও জিঙ্গেল শিল্পীরা। পাশাপাশি অংশ নিবে সিডনির বিভিন্ন শিশুকিশোর সংগঠনের শিল্পীরাও।

আয়োজকদের পক্ষ থেকে সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, মেলা জুড়ে গান, নাচ, কবিতা, ফ্যাশন ও ফিউশন, এবং কনসার্টের আয়োজনের পাশাপাশি স্টল বুকিং এর কাজ প্রায় শেষ হয়েছে। মেলায় চটপটি-পেয়াজু-ঝালমুড়িতে স্টলে স্টলে মেতে উঠবে সিডনির সবাই। বাহারী সব রঙের পোশাকে আসবে তারুন্য, বাজবে ঢোল, সানাই সবাইর হৃদয়ে। ডিজিটাল ডিসপ্লে, লেজার আর শাড়ী-চুড়িতে আবার জমবে মেলা পল কিটিং পার্ক, ব্যাঙ্কসটাউন।

সংবাদ সম্মেলনে আরো জানানো হয়, মেলায় পার্কিং এবং প্রবেশ সম্পুর্ন ফ্রি। মেলা ৩টা থেকে শুরু হয়ে চলবে গভীর রাত পর্যন্ত। মেলা কমিটির পক্ষ্ থেকে প্রচারণার অংশ হিসেবে ইতিমধ্যে ফেসবুকে প্রচারণা, সিডনীতে পোষ্টার ও লিফলেট বিতরণ শেষ করা হয়েছে।

এই মেলার প্লাটিনাম স্পন্সর হচ্ছে অস্ট্রেলিয়া থেকে প্রকাশিত পত্রিকা প্রভাত ফেরী, OHA হোম ডিজাইন, শর্মা কিচেন। গোল্ড স্পন্সর আরসিএস ল’ফার্ম, এপলো ইন্টারন্যাশনাল, পারিস পেসেন্স ল’ফার্ম, গ্লোবাল একাউন্টিং, লবস্টার টেইলস, স্টার কিডস, স্যাফায়ার স্টেট এজেন্টস, সিগ্নেচার ট্রাভেলস, টেলিঅজ, এমআই এডুকেশন। এছাড়াও অস্ট্রেলিয়া বাংলাদেশ প্রেস এন্ড মিডিয়া ক্লাব, নিউ সাউথ ওয়েলস স্টেট মাল্টিকালচারাল মিনিস্ট্রি ও কেন্টারবুরী কাউন্সিল এই মেলার অন্যতম পৃষ্ঠপোষক।

সংবাদ সম্মেলনে সিডনির সংবাদ মাধ্যম ব্যক্তিত্বরা উপস্থিত ছিলেন। সব শেষে সবাইকে নৈশ্যভোজে আপ্যায়িত করে সম্মানিত করেন আয়োজক কমিটি।

সিডনির একুশে প্রভাতফেরীতে অংশ নিবেন ভিকারুননিসা এলামনাই’র সদস্যবৃন্দ

ভিকারুননিসা এলামনাই আগামী ৯ই ফেব্রুয়ারি (রবিবার) সিডনীর এশফিল্ডে মহান একুশে ফেব্রুয়ারি স্মরনে আয়োজিত বইমেলা ও প্রভাতফেরীতে অংশগ্রহন করবে। ঐদিন সকাল সাড়ে আটটায় এলামনাইয়ের সদস্যরা শহীদ বেদীতে পুষ্পস্তবক অর্পন করবে।

ভিকারুননিসা এলামনাই’ র সভাপতি ডাঃমাহবুবা খানম মুক্তা ও সাধারন সম্পাদক ডাঃ সুরঞ্জনা জেনিফার রহমান সংগঠনের পক্ষ থেকে উক্ত অনুষ্ঠানে সকল ভিকারুননিসা এলামনাইবৃন্দকে অংশগ্রহণের আহবান জানিয়েছেন।

সিডনির লাকেম্বায় ঐতিহ্যবাহী মেজবান ১৬ ফেব্রুয়ারি

মেজবান বাংলাদেশের বৃহত্তর চট্টগ্রাম অঞ্চলের বহুমাত্রিক ঐতিহ্যবাহী একটি ভোজের অনুষ্ঠান। ফারসি মেজবান শব্দের অর্থ অতিথি আপ্যায়নকারী এবং মেজবানি শব্দের অর্থ আতিথেয়তা বা মেহমানদারি। চট্টগ্রামের ভাষায় একে মেজ্জান বলা হয়। কারো মৃত্যুর পর কুলখানি, মৃত্যুবার্ষিকী, শিশুর জন্মের পর আকিকা, জন্মদিবস উপলক্ষে, ব্যক্তিগত সাফল্য, নতুন কোনো ব্যবসা আরম্ভ, নতুন বাড়িতে প্রবেশ, পরিবারে আকাঙ্ক্ষিত শিশুর জন্ম, বিবাহ, খৎনা, মেয়েদের কান ছেদন এবং ধর্মীয় ব্যক্তির মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে মেজবানির আয়োজন করা হয়। এছাড়া নির্দিষ্ট উপলক্ষ বা কোনো শুভ ঘটনার জন্যও মেজবান করা হয়। ঐতিহাসিকভাবে মেজবানি একটি ঐতিহ্যগত আঞ্চলিক উৎসব যেখানে অতিথিদের সাদা ভাত এবং গরুর মাংস খাওয়ার জন্য আমন্ত্রণ জানানো হয়।

অস্ট্রেলিয়ার সিডনিতেও প্রতি বছর বিভিন্ন সংগঠন মেজবানের আয়োজন করে থাকে৷ তবে বেশিরভাগ বাংলাদেশী মানুষের আবাস লাকেম্বায় এই প্রথম মেজবান আয়োজন করা হচ্ছে৷ নামমাত্র মূল্য দিয়ে আপনারা মেজবানে অংশ নিতে পারবেন৷ মাত্র ৮ ডলার জনপ্রতি খরচ করে শুধুমাত্র অনলাইনের এই লিংকে রেজিষ্ট্রেশন করতে হবে৷ ১৬ ফেব্রুয়ারির মেজবানে আয়োজক গ্লোবাল বিজনেস ও কালচারাল এসোসিয়েশনের  পাশাপাশি সহযোগী হিসেবে থাকছে,স্বাধীন কন্ঠ, ইএসআই গ্লোবাল, সোলার ওয়ার্ল্ড সহ বেশ কিছু প্রতিষ্ঠান৷ টিকেট নিশ্চিত করতে নিচের লিংকে ক্লিক করুন৷ http://esiglobal.com.au/event/event/mezzainne-khana/

সিডনিতে শহীদ জিয়ার ৮৪ তম জন্ম বার্ষিকী পালন

গত ১৯শে জানুয়ারী (রবিবার) জিয়া ফোরাম অস্ট্রেলিয়া সিডনিতে জিয়াউর রহমানের ৮৪তম জন্ম বার্ষিকী উপলক্ষে তাঁর কর্মময় জীবনীর উপর এক আলোক চিত্র প্রদর্শনীর আয়োজন করে। এই আলোক চিত্র প্রদর্শনী ল্যকেম্বার বনফুল রেস্টুরেন্টের উপর তলায় বিকাল ৬টা থেকে রাত ১০টা পর্য্যন্ত সকলের জন্য উন্মুক্ত ছিল।

সিডনী কমিউনিটির ব্যক্তিবর্গ সহ নিউ সাউথ ওয়েলস পার্লামেন্টের এসিসটেন্ট স্পিকার মার্ক কুরী এমপি, ক্যান্টারবুরী ব্যাংকসটাউন কাউন্সিলর শাহ জামান টিটু, বিএনপি অস্ট্রেলিয়ার আহবায়ক ড. প্রফেসর হূমায়ের চৌধুরী রানা, সদস্য সচিব মোহাম্মদ হায়দার আলী, আই রাইটস এর হাবিবুর রহমান, জিয়া ফোরামের সভাপতি আরিফুল হক, সাধারন সম্পাদক সোহেল মাহমুদ ইকবাল, সাংগঠনিক সম্পাদক জাকির আলম লেনিন, আশরাফুল আলম, মো. ফরিদ মিয়া, মন্জুরুল ইসলাম আলমগীর, ফয়জুর চৌধুরী, মিতা কাদরী, সায়দ তানবীর আলম, মিয়া রাকিবুল আলম অপু, ইয়াসির আরাফাত অপু, হাজী ইউসুফ আলী,মিজানুর রহমান, মাহমুদা আরাফাত রেনু, সালমা বেগম, আনিসুর রহমান, সা’দ সামাদ, তাফতুন নাইম নিতু প্রমুখ আলোক চিত্র প্রদর্শনীটি ঘুরে দেখেন।

পাশাপাশি এইদিনটিকে আরো মহিমান্বিত করতে জিয়া ফোরাম অস্ট্রেলিয়া’র সব সদস্যরা স্বতঃস্ফূর্ত ভাবে সিডনীর ভয়াবহ বুশফায়ারের ক্ষতিগ্রস্থদ্রের পরিবারের সাহায্যার্থে অর্থ সাহায্য করেন।

মেলবোর্নে জগন্নাথ হল অ্যালামনাই এসোসিয়েশন অস্ট্রেলিয়ার পুনর্মিলনী অনুষ্ঠিত

শতদল তালুকদারঃ গত ১৮ জানুয়ারি (শনিবার) অস্ট্রেলিয়ার ভিক্টোরিয়া রাজ্যের মেলবোর্নে জগন্নাথ হল এলামনাই এসোসিয়েশন অস্ট্রেলিয়া শাখার পুনর্মিলনী অনুষ্ঠিত হয়। জাগো নতুন প্রভাত জাগো সময় হল, জাগো নব দিনমণি অন্ধ তিমিরও দ্বার খোলো হে খোল—শিব চক্রবর্তীর পরিবেশনা দিয়ে শুরুর হয়। অস্ট্রেলিয়ায় বসবাসরত ঐতিহ্যবাহী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জগন্নাথ হলের সাবেক ছাত্রদের সংগঠন জগন্নাথ হল এলামনাই এসোসিয়েশন অস্ট্রেলিয়া। প্রাচ্যের অক্সফোর্ড নামে খ্যাত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রথম যে তিনটি হল নিয়ে যাত্রা শুরু করেছিল জগন্নাথ হল তার একটি। 

পুনর্মিলনী উপলক্ষে সিডনি সহ ভিক্টোরিয়া রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে থাকা অনেক এলামনাই হাজির হন মেলবোর্নে। অভিজিৎ সাহার পরিচালনায় এ পুনর্মিলনী সভায় জগন্নাথ হল এলামনাই এসোসিয়েশন অস্ট্রেলিয়া শাখার সদস্যবৃন্দ ও তাদের পরিবারসহ অংশগ্রহণ করেন। অনুষ্ঠানে অস্ট্রেলিয়া তথা বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে জগন্নাথ হলের প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের অসামান্য অবদানের কথা তুলে ধরা হয়। এই হলের এক সময়ের আবাসিক শিক্ষক ডক্টর সজল পালিত, প্রভোস্ট নিহার রঞ্জন সরকারের স্মৃতিচারণমূলক বক্তব্য যেন এক একটি রূপকথা।

এছাড়া সংগঠনের সদস্য ও তাদের পরিবারের সদস্যদের জগন্নাথ হল নিয়ে গল্পকথায় স্মৃতিচারণ, হাসি আর বেদনার গল্প যেন সবাইকে নিয়ে যায় হারানো সেই পুরোনো দিনগুলিতে। ১৯৭১ খ্রীস্টাব্দের ২৫ মার্চ মধ্যরাতে ঢাকায় গণহত্যায় জগন্নাথ হলের বহু আবাসিক ছাত্র ও কর্মচারী নিহত হয়। অনুষ্ঠানে নিহতদের ও ১৯৮৫ খ্রীস্টাব্দের ১৫ অক্টোবর জগন্নাথ হলের ট্র্যাজেডিতে যে মর্মান্তিক দুর্ঘটনা হয় তাদের স্মরণে এক মিনিট নিরবতা পালন করা হয়।

খুদে শিল্পী ধ্রুব জ্যোতি রায় প্রাজ্ঞর পরিবেশনা আমরা শান্তির পায়রা, সূর্যের মতো মোরা উজ্জ্বল- ছিল এই মিলনমেলার অতিথিদের স্লোগান। এই মূলমন্ত্রকে সামনে রেখেই হোক এসোসিয়েশনের আগামীর পথ চলা। 

আগামী ৭ই মার্চ প্রবাসবান্ধব ‘জয়যাত্রা টিভি’র প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী ও সিডনি স্টুডিও উদ্বোধন

প্রবাস বান্ধব বাংলাদেশের প্রথম স্যাটেলাইট টিভি চ্যানেল জয়যাত্রা টিভি ‘আর্তমানবতার সেবায় আমাদের এই পথ চলা’ এই শ্লোগানে সফলতার সাথে দ্বিতীয় বর্ষ অতিক্রম করেছে। দেশের সীমানা পেরিয়ে প্রবাসের বিভিন্ন দেশে বাংলাদেশী প্রবাসীদের সুখ দুঃখের খবর পরিবারের কাছে পৌঁছে দিতে অগ্রনী ভূমিকা রেখেছে এই জনপ্রিয় টিভি চ্যানেলটি। সাম্প্রতিক সময়ে অস্ট্রেলিয়া প্রবাসী বাংলাদেশীদের জয়জাত্রা কর্তৃক আরো বেশি সেবা প্রদানের লক্ষে অস্ট্রেলিয়া বাংলাদেশ প্রেস এন্ড মিডিয়া ক্লাবের সভাপতি রহমত উল্লাহর সভাপতিত্বে সিডনির রকডেলের ২ উইলিয়াম স্ট্রিটে সিডনি স্টুডিও, অস্ট্রেলিয়া উদ্বোধন করা সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। জয়যাত্রা টিভি অস্ট্রেলিয়ার উদ্যোগে আগামী ৭মার্চ ২০২০ জয়যাত্রা টিভির প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী ও সিডনি স্টুডিও উদ্বোধন অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে।

অস্ট্রেলিয়া বাংলাদেশ প্রেস এন্ড মিডিয়া ক্লাবের সভাপতি রহমত উল্লাহর সভাপতিত্বে আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকছেন জয়যাত্রা টিভির চেয়ারম্যান, এফবিসিসিআইয়ের পরিচালক ও বাংলাদেশ সরকারের সিআইপি হেলেনা জাহাঙ্গীর। উক্ত অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের এই সাহসী নারী উদ্যোক্তা ও জয়যাত্রা টিভি অস্ট্রেলিয়া, যৌথভাবে কয়েকটি ক্ষেত্রে স্থানীয় প্রবাসী বাংলাদেশীদের কল্যাণে বিশেষ অবদানের জন্য সম্মাননা ক্রেস্ট প্রদানের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। Venue : St. Goerge Rowing Club, 1 Levey St,Wolli Creek, NSW, 2205 Date: 07 March 2020 Time: 06.00pm (উল্লেখ্য, অনুষ্ঠানটি সরাসরি জয়যাত্রা টিভিতে লাইভ সম্প্রচার হবে, তাই সকল অতিথিকে নির্দিষ্ট সময়ে উপস্থিত হওয়ার বিশেষ অনুরোধ করা হয়েছে) যেকোন প্রয়োজনেঃ 0413006887 রহমত উল্লাহ পরিচালক, জয়যাত্রা টিভি অস্ট্রেলিয়া 0406174723 বেলাল হোসাইন প্রতিনিধি, জয়যাত্রা টিভি (বি. দ্র. ফ্রি পার্কিংয়ের ব্যবস্থা রয়েছে) সংবাদ বিজ্ঞপ্তি