সিডনিতে প্রথম অস্ট্রেলিয়ান বাংলাদেশী ব্যাডমিন্টন সুপার সিরিজ ২০১৯ অনুষ্ঠিত

গত ১৫ ডিসেম্বর সিডনি’র টেম্পির রবিন ওয়েবস্টার স্পোর্টস সেন্টারে জাকজমকপূর্ণ ভাবে প্রথম “অস্ট্রেলিয়ান বাংলাদেশী ব্যাডমিন্টন সুপার সিরিজ ২০১৯” শেষ হয়। এই প্রথমবারের মতো ৪০ টিরও বেশি বাংলাদেশী টীম ২ টি বয়স শ্রেণীতে বিভক্ত হয়ে এই টুর্নামেন্ট এ অংশগ্রহণ করে। এই টুর্নামেন্ট এ ওপেন গ্রুপ এ চ্যাম্পিয়ন হয়েছে রাকেশ – আরাফাত জুটি এবং রানার আপ হয়েছে সাহেদ – রবিন জুটি। অন্য দিকে সিনিয়র গ্রুপ এ চ্যাম্পিয়ন হয়েছে বাবু – সাহেদ জুটি এবং রানার আপ হয়েছে টুটুল – আতিক জুটি। 

টুর্নামেন্ট এ ওপেন গ্রুপ ও সিনিয়র গ্রুপ এর চ্যাম্পিয়ন, রানার আপ ও সেমিফাইনালিস্ট এর জন্য ট্রফি সহ সর্বমোট ৩০০০ ডলার পুরস্কারের ব্যবস্থা ছিল। গত ২২ ডিসেম্বর রকডেল ওল্ড টাউন ষ্টার কাবাব ফাঙ্কশন সেন্টারে এক জাকজমকপূর্ণ অনুষ্ঠানের মাধ্যমে বিজয়ীদের হাতে ট্রফি তুলে দেওয়া হয়। সিডনির গণ্য-মান্য ব্যক্তিত্ব, অস্ট্রেলিয়া বাংলাদেশ প্রেস এন্ড মিডিয়া ক্লাব এর মিডিয়া ব্যক্তিত্ব সহ প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণকারী সকল প্রতিযোগী ও তাদের পরিবার পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

লিংকন সফিকউল্লার সঞ্চলনায় পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে ধন্যবাদ বক্তব্য প্রদান করেন প্রতিযোগিতার অন্যতম আয়োজক ইকবাল ইউসুফ টুটুল। এছাড়া বক্তব্য প্রদান করেন বাংলাদেশী কমিশনার মোহাম্মদ জামান টিটু ও বাংলাদেশী ব্যাডমিন্টন প্লেয়ার্স এসোসিয়েশন সিডনি’র সভাপতি কেসিম শামীম। পুরস্কার বিতরিনী শেষে উপস্থিত সকলের সৌজন্যে এক বিশেষ নৈশ ভোজের আয়োজন করা হয়।

প্রথম “অস্ট্রেলিয়ান বাংলাদেশী ব্যাডমিন্টন সুপার সিরিজ ২০১৯” এর মিডিয়া পার্টনার ও সার্বিক সহযোগিতায় ছিল অস্ট্রেলিয়া বাংলাদেশ প্রেস এন্ড মিডিয়া ক্লাব। অনুষ্ঠান শেষে উপস্থিত সকলকে ধন্যবাদ জানানো হয় এবং আগামীতে আরো আকর্ষণীয় ভাবে অস্ট্রেলিয়ান বাংলাদেশী ব্যাডমিন্টন সুপার সিরিজ আয়োজনের প্রত্যয় ব্যাক্ত করা হয়। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

সিডনিতে যীশু খ্রিস্টের জন্মদিন উপলক্ষে বড়দিন উদযাপন

ডঃ রতন কুণ্ডুঃ গত ২৫ ডিসেম্বর (বুধবার) সিডনির ওয়েন্টওয়ার্থ ভিল রেডগাম সেন্টারে বাংলাদেশ ক্রিস্টিয়ান ফেলোশিপ অফ অস্ট্রেলিয়া প্রভু যীশু খ্রিস্টের জন্মদিন উপলক্ষে বড়দিন উদযাপন করে। সংগঠনটি সিডনিতে দীর্ঘ চব্বিশ বছর যাবৎ খ্রিষ্টধর্ম, বাঙালি সংস্কৃতি ও মূল্যবোধ নিয়ে কাজ করে আসছে।

সংগঠনের সভাপতি ড. রোনাল্ড পাত্র ও সাধারণ সম্পাদক ডেইজি মিঠু বিশ্বাসের নেতৃত্বে নিবেদিত প্রাণ সদস্যরা তাদের প্রতিটি অনুষ্ঠানই খুব সুন্দর ভাবে উপস্থাপন করে সার্থক করে তোলে।ডেইজি মিঠু বিশ্বাসের সূচনা বক্তব্যের পরে মানিক বাড়ৈ ও আমোস দেউড়ির সঞ্চালনায় প্রার্থনা পর্ব শুরু হয়।

বর্তমান প্রজন্মের একটি মেয়ে ও ছেলে পবিত্র বাইবেল থেকে পাঠ করে শোনায়। এরপরে সমবেত শিশু শিল্পীরা এডওয়ার্ড অধিকারীর লিখা একটি প্রার্থনা সংগীতে অংশগ্রহণ করে। মানিক বাড়ৈ পবিত্র বাইবেল থেকে পাঠ করেন ও প্রার্থনা পরিচালনা করেন। প্রার্থনা সংগীতে ফেলোশিপের বড় শিল্পীরা অংশগ্রহণ  করেন। এরপর ড. রোনাল্ড পাত্র অভ্যাগত অতিথিদের বড়দিনের শুভেচ্ছা জানিয়ে বক্তব্য রাখেন। জুলিয়েট পপি শাহ সংগঠনের বড়দিনের প্রকাশনা “জল” সম্পর্কে বক্তব্য রাখেন। এ সময়ে জলের প্রচ্ছদকার এডওয়ার্ড অধিকারী ও পল সি মধুও জল সম্পর্কে বক্তব্য রাখেন।

প্রতিবারের মতো ছোটদের ও বড়দের নিয়ে সাংস্কৃতিক পর্ব  পরিচালনা করেন ন্যান্সি লিনা ব্যারেল ও এডওয়ার্ড অধিকারী।এতে নাচ, গান ও অভিনয় দর্শক শ্রোতাদের মুগ্ধ করে। একটি একাংকিকায় লরেন্স ব্যারেল ও জুলিয়েট পপি শাহ অনবদ্য অভিনয় করে সবাইকে আমোদিত করেন। বড়দিনের মূল আকর্ষণ হলো দক্ষিণ মেরু থেকে শান্তার  আগমন ও শিশু, কিশোরদের জন্য আকর্ষণীয় গিফট ও মিষ্টি বিতরণ করে। সর্বশেষ আকর্ষণ রাফেল ড্র পরিচালনা করেন লরেন্স ব্যারেল।

প্রতিবছরের ন্যায় এবারেও অভ্যাগত অতিথিদের জন্য হরেক প্রকার এন্ট্রি আইটেম, চা, কফি, কোমল পানীয়, মধ্যাহ্ন ভোজ ও দিনের শেষে অনেক প্রকার পিঠা, পায়েস ও কেক এর বন্দোবস্ত ছিলো বিশ্বমানবতার মঙ্গল কামনা করে অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘোষণা করা হয়।

টংগীর হাজী সাইদ ল্যাবরেটরি স্কুলের ফলাফল প্রকাশ

টংগীর স্বনামধন্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হাজী সাইদ ল্যাবরেটরি স্কুলের বার্ষিক পরীক্ষার ফলাফল ও মেধা পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠান গত ১৯ ডিসেম্বর (বৃহস্পতিবার) অনুষ্ঠিত হয়। বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা ও টংগী প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি সৈয়দ অাতিকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সিডনি প্রেস অ্যান্ড মিডিয়া কাউন্সিলের সাধারণ সম্পাদক বিশিষ্ট সাংবাদিক মোহাম্মদ আবদুল মতিন।

এ ছাড়া অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন বিশিষ্ট সমাজ সেবক আলহাজ্ব সাইদুল ইসলাম। স্বাগত বক্তব্য রাখেন বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক অাব্দুস সালাম। অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন আবু তাহের, মশিউর রহমান, সাজ্জাদ নাদিম সাজু, ইমামুল হক, হাসান শেখ, আব্দুর রাজ্জাক রকি, আখতার হোসেন প্রমুখ।

আলোচনা শেষে বার্ষিক পরীক্ষার ফলাফল ঘোষণা করেন শ্রেণি শিক্ষকগণ। পরে মেধাবী শিক্ষার্থীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করেন অতিথিবৃন্দ। উল্লেখ্য হাজী সাইদ ল্যাবরেটরি স্কুলে একাডেমিক লেখাপড়ার পাশাপাশি নানাবিধ সহশিক্ষা কার্যক্রমে ইতোমধ্যে সর্বমহলে প্রশংসিত ও সমাদৃত হয়েছে। এই সাফল্যের ধারা অব্যাহত থাকবে বলে অাশাবাদ ব্যক্ত করেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি সাংবাদিক মোহাম্মদ আবদুল মতিন।

সিডনিতে আমরা বাংলাদেশী আয়োজিত বাংলা মেলা অনুষ্ঠিত

গত ২২ ডিসেম্বর (রবিবার) সিডনি প্রবাসী সাংস্কৃতিক সংগঠন আমার বাংলাদেশী বিজয় দিবস উপলক্ষে বাংলা মেলা’র আয়োজন করে। বিজয়ের এই মেলায় শিশু কিশোরদের সংগঠন ড্রীম ওয়ার্ল্ড, কিশলয় কচিকাঁচা, বাংলার আবহমান গানের ধারক সৃষ্টি ও ঐকতান সহ কুমকুম শর্মা, মুনা মুসতাফা, রূপকথা, রানা শরীফ, পলি, রুমাইসা, শুচি, নিলয়, আরমান, সাব্বির, আতিক হেলাল, মিতা আতিক প্রমুখ গান, কবিতা সহ বিজয়ের সাংস্কৃতিক পরিবেশনায় অংশ গ্রহন করে। বাদ্যযন্ত্রে সহায়তা করছে সোহেল, শুভ খান, তপন, সোহান।

বিজয়ের এই অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, ল্যাকেম্বার এমপি জিহাদ দিপ, ক্যানটাবুরি-ব্যাঙ্কসটাউনের মেয়র খাল আসফর, প্রাক্তন ডেপুটি মেয়র কার্ল সালেহ ও কাউন্সিলর মোহাম্মদ জামান টিটু।  

২০১৭ সাল থেকে ‘বাংলা মেলা বিজয় সম্মাননা’ প্রদান করে আসছে। এই ধারাবাহিকতায় এই বছর বিশিষ্ট মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আজিজুল হক এবং মোহাম্মদ মোবারক হোসেনকে সম্মাননা প্রদান হয়। এছাড়াও প্রবাসে সাংবাদিকতা ও সামাজিক কার্যক্রমের স্বীকৃতি স্বরূপ আবদুল্লাহ ইউসুফ শামীম ও নাইম আবদুল্লাহ’কে বিশেষ সম্মাননা দেওয়া হয়। 

এছাড়াও বিজয় দিবস উপলক্ষে শিশু কিশোরদের চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতায় পুরস্কার বিতরন করা হয়। আয়োজকরা জানান, শিশু- কিশোরদের বাংলাদেশী সংস্কৃতি চর্চায় উৎসাহিত করতে, অন্যান্য সংস্কৃতির সাথে পরিচিত করতে এবং বিশ্বের কাছে বাংলাদেশকে তুলে ধরতে আমাদের এই প্রচেষ্টা। আমাদের মূল উদ্দেশ্য, আমাদের কমিউনিটিকে আরও শক্তিশালী করে অষ্ট্রেলিয়ার বৃহত্তর সমাজে ইতিবাচক অবদান রাখা।