অস্ট্রেলিয়া আওয়ামী লীগের বিজয় দিবস উদযাপন

‘বঙ্গবন্ধু জাতিকে দিয়েছিলেন স্বাধীনতা, শেখ হাসিনা দিচ্ছেন মুক্তির স্বাদ’

গতকাল ১৫ ডিসেম্বর (রবিবার ) সন্ধ্যায় অস্ট্রেলিয়া আওয়ামী লীগের উদ্যোগে সিডনিতে বিজয় দিবস উদযাপন করা হয়। এ উপলক্ষ্যে অস্ট্রেলিয়া আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা এনায়েতুর রহিম বেলালের সভাপতিত্বে ও সাধারন সম্পাদক অধ্যাপক ড. আবুল হাসনাৎ মিল্টনের সঞ্চালনায় এক আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।  

অনুষ্ঠানের শুরুতে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ মুক্তিযুদ্ধে নিহত ত্রিশ লাখ শহীদের বিদেহী আত্মার প্রতি সম্মান জানিয়ে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক নোমান শামীম, অস্ট্রেলিয়া আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ফয়সাল মতিন, সহ-সভাপতি ব্যারিস্টার নির্মাল্য তালুকদার, সাংগঠনিক সম্পাদক মশিউর রহমান হৃদয়, যুগ্ম-সাধারন সম্পাদক জুয়েল তালুকদার, নিউ সাউথ ওয়েলস আওয়ামী লীগের সভাপতি হাসান শিমুন ফারুক রবিন, আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক মোহাম্মদ মুনীর হোসেন, মহিলা বিষয়ক সম্পাদিকা সৈয়দা তাজমিরা আখতার এবং কার্যকরী কমিটির সদস্য মুখতার হোসেন। 

সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে স্বরচিত কবিতা পাঠ করেন কবি আইভি রহমান, কবিতা আবৃত্তি করেন ফাহাদ আসমার এবং আরিফুর রহমান। অনুষ্ঠানে দেশাত্মবোধক গান পরিবেশন করেন সিডনির জনপ্রিয় গায়ক গোলাম হাবীব তপু। 

আলোচনা সভায় বক্তারা বলেন, বঙ্গবন্ধু জাতিকে দিয়েছিলেন স্বাধীনতা, তার মেয়ে শেখ হাসিনা দিচ্ছেন মুক্তির স্বাদ। অনুষ্ঠানের দিন বাংলাদেশে রাজাকারের তালিকা প্রকাশিত হওয়ায় শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন সরকারকে ধন্যবাদ জানানো হয়। পাশাপাশি উচ্চ আদালত কর্তৃক ‘জয় বাংলা’কে জাতীয় শ্লোগান হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়ায় আনন্দ প্রকাশ করে বলা হয় জয় বাংলা ছিল আমাদের স্বাধীনতা সংগ্রামের মূলমন্ত্র। এই শ্লোগানটি সর্বত্র উচ্চারিত হতে হবে। সেই সাথে দেশের সর্বস্তরে মুক্তিযুদ্ধের প্রকৃত চেতনাকে প্রতিষ্ঠিত করতে হবে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ গড়ার সংগ্রামে দেশবাসীর পাশাপাশি প্রবাসীরাও কার্যকর ভূমিকা রাখতে চায়। এ ব্যাপারে সরকারকে অনুকূল পরিবেশ তৈরী করতে হবে।

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ অস্ট্রেলিয়া’র পক্ষে জাতীয় স্মৃতিসৌধে শ্রদ্ধা নিবেদন

আজ ১৬ ডিসেম্বর (সোমবার) মহান বিজয় দিবসের সকালে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ অস্ট্রেলিয়া, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সিডনি, অস্ট্রেলিয়া ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ মেলবোর্ন, অস্ট্রেলিয়ার এর পক্ষ থেকে সাভারের জাতীয় স্মৃতিসৌধে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়।

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সিডনি, অস্ট্রেলিয়া শাখার সভাপতি গাউছুল আলম শাহাজাদা, সাধারণ সম্পাদক ও স্বদেশ বার্তা পত্রিকার প্রধান সম্পাদক ফয়সাল আজাদ এবং বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ মেলবোর্ন, অস্ট্রেলিয়া শাখার সাধারণ সম্পাদক মোল্লা মো. রাশিদুল হকের নেতৃত্বে স্মৃতিসৌধের বেদিতে ফুল দিয়ে একাত্তরের শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানান।

এর আগে জাতীয় স্মৃতিসৌধে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী।  রাষ্ট্রীয়ভাবে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে আওয়ামী লীগের সভাপতি হিসেবে দলীয় নেতাকর্মীদের নিয়ে দলের পক্ষ থেকে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

উল্লেখ্য, আগামী ২০ ও ২১ ডিসেম্বর বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের জাতীয় সম্মেলনে যোগদানের উদ্দেশ্যে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ, অস্ট্রেলিয়া’র বিভিন্ন শাখার নেতৃবৃন্দ এখন ঢাকায় অবস্থান করছেন।

বেগম জিয়ার মুক্তির দাবীতে সিডনিতে বিএনপির মানববন্ধন

বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি অস্ট্রেলিয়ার উদ্যোগে বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবীতে গত ১৫ ডিসেম্বর (রবিবার) মানববন্ধন ও মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা সিডনির লাকেম্বাস্থ রেলওয়ে প্যারেডে অনুষ্ঠিত হয়। পবিত্র কোরআন তেলোয়াতের মাধ্যমে অনুষ্ঠান শুরুর পর সভায় মহান মুক্তিযুদ্ধ কালীন সময় এবং সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলনের সময় আহত নিহত এবং মহান স্বাধীনতার ঘোষক শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের রুহের মাগফেরাত কামনা করে বিশেষ মোনাজাত করা হয়।  

 মোঃ মোসলেহ উদ্দিন হাওলাদার আরিফের সভাপতিত্বে মানব বন্ধন ও আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন বিএনপি অস্ট্রেলিয়ার সাবেক সভাপতি মনিরুল হক জর্জ, আমন্ত্রিত অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন, বিএনপি অস্ট্রেলিয়ার সাবেক সভাপতি মোঃ দেলোয়ার হোসেন, অধ্যাপক শিবলী আব্দুল্লাহ। বিশেষ অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন  আলহাজ্ব লুৎফুল কবির, সাবেক সাধারন সম্পাদক লিয়াকত আলী স্বপন, ডাঃআব্দুল ওহাব বকুল, কুদরত উল্লাহ লিটন, একে এম ফজলুল হক শফিক, ইব্রাহিম খলিল মাসুদ প্রমুখ।    

আবুল হাসানের পরিচালনায় অনুষ্ঠানে কোরআন থেকে তেলোয়াত করেন মোহাম্মদ নাসির আহম্মেদ। আরও বক্তব্য রাখেন মাহমুদ আলম, এএনএম মাসুম, সেলিম লকিয়ত,হাবিব রহমান। উপস্থিত ছিলেন এ্যাড.মোবারক হোসেন, জামিল হোসেন, এস এম খালেদ, ইলিয়াস কান্চন শাহীন, আব্দুল মালেক মানিক, আব্দুস সামাদ শিবলু, কামরুল ইসলাম শামীম, জাবেল হক জাবেদ, কামরুল ইসলাম আজাদ, এস এম রানা সুমন, আব্দুল মজিদ, কামরুল ইসলাম, ফরিদ আহম্মেদ, শফিকুল ইসলাম, আব্দুল করিম, জাহাংগীর হোসেন, গোলাম রাব্বানী, গোলাম রাব্বী শুভ, মেহেদী হাসান মেহেদী, আশরাফুল ইসলাম,মাসুদুর রহমান, মোহাম্মদ মঈন, কাজী সাজেদুল ইসলাম, আনিক হাসান, সামিউল মাহমুদ, মোহাম্মদ আলম, জুবাইল হক মানিক, আমজাদ খান প্রমুখ।                                                    

বিএনপির নেতৃবৃন্দ বলেন, আওয়ামী লীগ সরকার একমাত্র ক্ষমতা পাকাপোক্ত করার জন্য সুকৌশলে আদালতকে ব্যবহার করে বেগম খালেদা জিয়াকে বন্দী করে রাখছে। নেতারা হুশিয়ারি করে বলেন অবিলম্বে বেগম খালেদা জিয়াকে জামিন না দেওয়া হয় তাহলে সারা বিশ্বব্যাপী কঠিন আন্দোলনের মাধ্যমে নেএীকে মুক্তি করা হবে। তারা দৈনিক সংগ্রামের পত্রিকার প্রবীন সম্পাদক আবুল আসাদের উপর সন্ত্রাসী হামলার তীব্র নিন্দা জানিয়ে অবিলম্বে তাঁর নিঃশর্ত মুক্তি দাবী করেন।

সিডনিতে বিজয় দিবস উপলক্ষে ক্রিকেট ম্যাচ অনুষ্ঠিত হলো

শতদল তালুকদার: মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে অস্ট্রেলিয়ার সিডনিতে জগন্নাথ হল অ্যালামনাই এসোসিয়েশন অস্ট্রেলিয়া আয়োজন করলো প্রীতি ক্রিকেট ম্যাচ । আজ রবিবার(১৫ ডিসেম্বর) ক্রেসউড রিসার্ভ সেন্টারে আয়োজিত ক্রিকেট ম্যাচে অসংখ্য প্রবাসী বাংলাদেশী উপস্থিত ছিলেন । বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে যারা আত্মাহুতি দিয়েছেন তাদেরকে স্মরণ করে এ সময় সকলে দেশের সার্বিক মঙ্গল কামনা করেন ।

প্রতি বছরের ন্যায় এবারও জগন্নাথ হল অ্যালামনাই এসোসিয়েশন অস্ট্রেলিয়া আয়োজন করে বাংলাদেশের বিজয় দিবসের অনুষ্ঠান । সংগঠনের সদস্যদের পরিবারসহ সিডনিতে বসবাসরত অনেক বাঙালি বিভিন্ন ইভেন্টে অংশগ্রহণ করেন । আর বাচ্চাদের জন্য আয়োজন করা হয় বিশেষ এক মজার প্রতিযোগিতা —বালিশ পাসিং । সব মিলিয়ে সবগুলো আয়োজনই ছিল চিত্তাকর্ষক ।

আজকে বিজয় দিবস উপলক্ষে যে ক্রিকেট ম্যাচের আয়োজন করা হয় সেটি ছিল খুবই প্রতিযোগিতাপূর্ণ । সংগঠনের সভাপতি সুদর্শন দাস আজকের আয়োজন সম্পর্কে বলেন, ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে যারা আত্মদান করেছেন তাদের জন্য আমরা গর্বিত । সেসময় যেমন সকলে জাতি-ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে দেশের জন্য যুদ্ধ করেছিলো তেমনি আজও দেশের স্বার্থে সাম্প্রদায়িক ভেদাভেদ ভুলে সকলে মিলে দেশের জন্য কাজ করা আবশ্যক।

আর সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক দিবাকর সমাদ্দার সকলকে বিজয় দিবসের এ অনুষ্ঠানে উপস্থিত হওয়ার জন্য ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, প্রশান্ত পাড়ের এই দেশে এসেও যে আমরা আমাদের মহান বিজয় দিবস পালন করতে পারছি —সেটা খুবই তাত্পর্যপূর্ণ । আমরা প্রত্যাশা করি, জগন্নাথ হল অ্যালামনাই এসোসিয়েশন অস্ট্রেলিয়া’র বিভিন্ন আয়োজনের মধ্য বাংলাদেশের স্বাধিকার আন্দোলনের বিভিন্ন আখ্যান ও বাঙালি সংস্কৃতির মূল ধারাকে উপস্থাপন করতে আমরা বদ্ধ পরিকর ।

তাছাড়া সংগঠনের অন্যতম সদস্য ও আজকের ক্রিকেট ম্যাচের তত্তাবধয়ক নিকেশ নাগ বলেন, মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে ক্রিকেট ম্যাচের আয়োজন করার মজাই আলাদা । কেননা ১৯৭১ সালের এই দিনে বাংলার দামাল সন্তানেরা পাক বাহিনীর বিপক্ষে চূড়ান্ত বিজয় অর্জন করেছিলো । তাই এই দিনটি স্মরণ করে আমরা একটি উৎসবের আমেজ তৈরি করার প্রয়াস করেছি ।

পেন্সিল অস্ট্রেলিয়া’র উদ্যোগে বিজয় দিবস পালিত

গত ১৫ ডিসেম্বর (রবিবার) সিডনির ইঙ্গেলবার্নস্থ দাওয়াত রেস্টুরেন্টে ফেসবুক ভিত্তিক সৃজনশীল গ্রুপ পেন্সিল অস্ট্রেলিয়া বিজয় দিবস উপলক্ষে একটি সুন্দর সন্ধ্যার আয়োজন করে। পেন্সিল অস্ট্রেলিয়ার নিয়মিত সদস্য অপূর্ব’র উদ্যোগে ও ইঙ্গেলবার্ন সাবার্ব দাওয়াত রেস্টুরেন্ট এর জুনায়েদ মোহাম্মদের সহায়তায় জাতীয় পতাকা উত্তোলন, ক্ষুদে প্রজন্মকে এক সারিতে নিয়ে জাতীয় সঙ্গীত উপস্থাপন, আড্ডা আর লোকজ সঙ্গীতে অনুষ্ঠানটি হয়ে উঠেছিল মনোমুগ্ধকর।

ভিন্ন বয়সী মানুষের পদচারনায় বিজয়ের এই সন্ধ্যায় এক মুখর আবহের সৃষ্টি হয়েছিল। অদূর ভবিষ্যতে সারা দেশব্যাপী ছড়িয়ে থাকা পেন্সিল অস্ট্রেলিয়া পরিবারকে একত্রিত করার জন্য এবং আরও বৃহত্তর পরিসরে কাজ করতে অনুষ্ঠানে উপস্থিত সকলে অকুণ্ঠ সমর্থন জানান। পেন্সিল অস্ট্রেলিয়া পরিবার এভাবেই সামনে এগিয়ে যাবার আশাবাদ ব্যাক্ত করে এবং আরও সুন্দর উদ্যোগ নেয়াকে সমর্থন করে।জিয়াউল ইসলাম তমাল, ফারলিন, তানজিলা, আনামিকা ধর, রুমা কবির, নাহার, নামিদ ফারহান, আয়েশা কলি, ইসতিয়াক আহমেদ, নুজাত কবির, সাকিনা আক্তার, জয় কবির এর সার্বিক সহযোগিতার জন্য পেন্সিল অস্ট্রেলিয়ার পক্ষ থেকে কৃতজ্ঞতা সহ অনুষ্ঠানের বিশেষ মুহূর্তগুলো ফ্রেমবন্দী করার জন্য সরকার কবিরউদ্দিন, বিপুল রয়, তুমন আহসান পরিবারের পক্ষ থেকে বিশেষ ধন্যবাদ জানানো হয়।

গত ২০১৬ সালের ১২ সেপ্টেম্বর যাত্রা শুরু করা পেন্সিল অস্ট্রেলিয়া মূলত একটি ফেসবুক ভিত্তিক সৃজনশীল গ্রুপ। একদল মেধাবী স্বপ্নবাজ তরুণ-তরুণীর কল্পনার বাস্তব প্রতিফলন এই গ্রুপের চালিকা শক্তি।সৃজনশীল লেখার কথা মালায়, শিল্পীর তুলির আঁচড়ে, গল্প, কবিতা, রম্য রচনা আর ছবির মাধ্যমে অতি অল্প সময়ে পেন্সিল অস্ট্রেলিয়া দেশের আনাচে কানাচে থেকে বাঙ্গালীর শিল্পী সত্ত্বাকে এক ছাতার নীচে সফল ভাবে আবদ্ধ করছে।বিদেশের মাটিতে একটুকরো বাংলাদেশকে এভাবেই পরবর্তী প্রজন্মের মাঝে ধরে রাখতে পেন্সিল অস্ট্রেলিয়া পরিবার বদ্ধ পরিকর। thanks