ক্যাম্বেলটাউন বাংলা স্কুলে মহান বিজয় দিবস পালন

মহান মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে অর্জিত সব অর্জন হৃদয়ের গভীরে ধারণ করে প্রবাসে বেড়ে ওঠা পরবর্তী প্রজন্মকে একই আদর্শে গড়ে তোলার প্রত্যয় ক্যাম্বেলটাউন বাংলা স্কুল নিয়ে থাকে প্রতিনিয়ত। মাতৃভূমি থেকে দূরে থাকলেও বিজয়ের এই বিশেষ দিনের তাৎপর্য যাতে ছাত্রছাত্রীদের মনে চিরস্থায়ী রূপ নেয় তা নিশ্চিত করতেই প্রতিবছরের মত এবারও আয়োজন করা হয়েছিল বিজয় উৎসব এবং বর্ষ সমাপনী সনদ বিতরণ।

গত পনেরোই ডিসেম্বর স্কুল মিলনায়তনে  বেলা এগারোটায়  বিজয় দিবসের শুভেচ্ছা জানিয়ে অনুষ্ঠানে  সবাইকে স্বাগত জানান বাংলা স্কুল সাধারন সম্পাদক কাজী আশফাক রহমান। সমবেত কন্ঠে বাংলাদেশ ও অস্ট্রেলিয়ার জাতীয় সংগীত পরিবেশনের মাধ্যমে এই বিজয় উৎসব আয়োজনের সূচনা ঘটে। এর পরপরই স্কুলের ছেলেমেয়েরা একটি আকর্ষণীয় পরিবেশনা উপহার দিয়ে সবাইকে বিমোহিত করে। একক আবৃত্তি ও একক সংগীত এবং বৃন্দ আবৃত্তি ও দলগত সংগীতের প্রতিটি শাখায় স্কুলের ছাত্রছাত্রীরা তাদের নামের প্রতি পূর্ণ সুবিচার করতে সক্ষম হয়। একক আবৃত্তিতে অংশ নেয় শোভা, এথিনা, স্বপ্নীল, ওয়াফি, তাওহিদ, রেইনর, দৃপ্ত, রুশদা,এথিনা, তাহিয়া ও এলভিরা। একক সংগীতের ডালি আসে নাশওয়া, ঋষিকা, রাসমিয়া, সুবা এবং এলভিরা। স্কুলের ক্ষুদে ছাত্রী জেইনা দাদা স্কুলের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা নাজমুল আহসান খান এর সাথে একটি ভক্তিমূলক গান গেয়ে সবাইকে আবেগতাড়িত করে তোলে। ঈশপের একটি শিক্ষামূলক গল্প বাংলা বই থেকে পড়ে সবাইকে চমৎকৃত করে নুরিন। 
দ্বিতীয় পর্বে স্কুলের নিজস্ব শিল্পীরা বিজয় দিবসের মূল ভাবকে প্রতিপাদ্য করে গান ও কবিতা পাঠ করেন। সংগীত পরিবেশন স্কুলের সংগীত শিক্ষক রুমানা ফেরদৌস লনি। কবিতা পড়ে শোনান বাংলা স্কুলের শিক্ষক নাসরিন মোফাজ্জল এবং রুমানা সিদ্দিকী। 

তৃতীয় ও শেষ পর্বে বর্ষ সমাপনী সনদ বিতরণ করা হয়। সভাপতি আবদুল জলিল ছাত্রছাত্রীদের হাতে সনদ তুলে দেন। এই পর্বে গত বছর এবং এবছরের মর্যাদাপূর্ণ মিনিস্টারস এওয়ার্ড তুলে দেয়া হয় যথাক্রমে আলিশা কাজী রহমান এবং এলভিরা সাহার হাতে। এই পর্বটি পরিচালনা করেন অধ্যক্ষ রোকেয়া আহমেদ। সহায়তা করেন শ্রেণি শিক্ষক রুমানা সিদ্দিকী, নাসরিন মোফাজ্জল এবং মাহসিনা জেলিন। 

পুরো সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন সাংস্কৃতিক সম্পাদক বিজয় সাহা এবং  সংগীত শিক্ষক রুমানা ফেরদৌস লনি। সঞ্চালনায় ছিলেন রুমানা সিদ্দিকী এবং স্কুলের অধ্যক্ষ রোকেয়া আহমেদ।  তবলায় সংগত করেন বিজয় সাহা এবং দোতারা ও বাঁশিতে ছিলেন আহমেদ তারিক। শব্দ নিয়ন্ত্রণ এবং জাতীয় স্মৃতিসৌধের ত্রিমাত্রিক ব্যঞ্জনায় নির্মিত মঞ্চের মূল পরিকল্পনা ও নির্মানে ছিলেন সহসভাপতি মাসুদ মিথুন। অনুষ্ঠানের সার্বিক তত্ত্বাবধানে ছিলেন মসিউল আজম খান স্বপন এবং রুমানা খান মোনা।

বেলা আড়াইটায়  ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানিয়ে সবাইকে  ক্যাম্বেলটাউন বাংলা স্কুলে আমন্ত্রণ জানিয়ে অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘোষণা করেন সভাপতি আবদুল জলিল

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য ক্যাম্বেলটাউন বাংলা স্কুল প্রতি রবিবার সকাল দশটা থেকে দুপুর একটা পর্যন্ত ধর্ম বর্ণ নির্বিশেষে সব বাংলা ভাষাভাষীর জন্য উন্মুক্ত থাকে।

শিক্ষাবিষয়ক গবেষণায় সিঙ্গাপুরে বাংলাদেশীর ইনোভেশন এওয়ার্ড প্রাপ্তি

উচ্চশিক্ষার ক্ষেত্রে প্রযুক্তির ব্যবহার বিষয়ক অস্ট্রেলিয়ান সংস্থা আসিলাইট আন্তর্জাতিকভাবে সুপরিচিত একটি প্রতিষ্ঠান। প্রতিবছর এই সংস্থাটি শিক্ষায় প্রযুক্তির ব্যবহারে অনন্য অবদান রাখার জন্য কৃতি গবেষক এবং শিক্ষাবিদদের আসিলাইট ইনোভেশন এওয়ার্ড প্রদানের মাধ্যমে স্বীকৃতি জানায়। ২০১৯ সালে এই ইনোভেশন এওয়ার্ড বিজয়ী তিনজন কৃতি গবেষকদের মাঝে একজন হলেন বাংলাদেশের গর্ব শামীম জোয়ার্দার। এ বছর তার সাথে যৌথভাগে ইনোভেশন এওয়ার্ডপ্রাপ্ত অন্য গবেষকরা হলেন ক্রিশ্চিয়ান মোরো,  ব্রেন্ট গ্রেগরি এবং লিসা হ্যারিস।

শামীম জোয়ার্দার দীর্ঘদিন যাবত অস্ট্রেলিয়ার ম্যাকোয়ারি ইউনিভার্সিটিতে কর্মরত রয়েছেন। তিনি আইলার্ন ইনসাইট নামক একটি এপ্লিকেশন ডেভেলপমেন্ট করেছেন যা শিক্ষাবিষয়ক কার্যক্রমের সাথে শিক্ষার্থীদের সংযুক্ততা সম্পর্কে শিক্ষক এবং অন্যান্য কর্মকর্তাদেরকে অধিকতর পরিস্কার ধারণা দেবে। এই ডিজিটাল এপ্লিকেশনের মাধ্যমে একটি প্লাটফর্মেই ছাত্রছাত্রীদের কর্মতৎপরতা সংক্রান্ত তথ্যের বিশ্লেষণ পাওয়া যাবে এবং তার ভিত্তিতে শিক্ষকদের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করার সুযোগ থাকবে। কোন শিক্ষার্থী যদি তার পড়ালেখার ক্ষেত্রে সন্তোষজনক অগ্রগতি অর্জন করা থেকে পিছিয়ে পড়ে তাহলে সেক্ষেত্রে সরাসরি তাদের সাথে যোগাযোগ এবং প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ বা পরামর্শ দেয়ারও সুযোগ থাকছে এই প্লাটফর্মটিতে।

উচ্চতর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে শিক্ষার্থীদের শিক্ষা ব্যবস্থাপনা সহজতর এবং কার্যকরী করে তোলার ক্ষেত্রে এই ধরণের এপ্লিকেশনগুলো অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। শামীম জোয়ার্দারের নেতৃত্বে ম্যাকোয়ারী ইউনিভার্সিটির লার্নিং ইনোভেশন হাব এই এপ্লিকেশনটি তৈরি করেছে। আইলার্ন ইনসাইট নামক নতুন এই এপ্লিকেশনটির উচ্চমানের কারণেই গত ২ – ৫ ডিসেম্বর তিনদিন ব্যাপী সিঙ্গাপুরে অনুষ্ঠিত অস্ট্রেলিয়ান সোসাইটি ফর কম্পিউটারস ইন লার্নিং ইন টারশিয়ারি এডুকেশন বা আসিলাইটের বার্ষিক কনফারেন্সে তাকে এই বছরের ইনোভেশন এওয়ার্ডে ভূষিত করা হয়। উচ্চশিক্ষার সাথে সংশ্লিষ্ট এই ক্ষেত্রে একজন বাংলাদেশী হিসেবে এই বিরল সম্মাননা লাভের মাধ্যমে তিনি দেশের জন্য বিপুল সম্মান বয়ে এনেছেন।