সিডনিতে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষার দ্বিতীয় স্মৃতিসৌধ নির্মানের জন্য তহবিল সংগ্রহ

গত ১৩ অক্টোবর (রবিবার) সিডনির রকডেলস্থ স্থানীয় একটি ফাংশন সেন্টারে সিডনির দ্বিতীয় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা স্মৃতিসৌধ নির্মানের জন্য তহবিল সংগ্রহ ও রাতের খাবারের আয়োজন করা হয়। তহবিল সংগ্রহের এই মহতি সন্ধ্যায় সর্বস্তরের বাংলাদেশী সংগঠন, সামাজিক সাংস্কৃতিক ও রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ববর্গের সাথে উপস্থিত ছিলেন সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ, কেন্টারবুরী ব্যাঙ্কসটাউন সিটি কাউন্সিলের মেয়র কাউন্সিলর খালিদ আশফর, শোফি কোটসি এমপি, বাংলাদেশের হাই কমিশনার মান্যবর সুফিউর রহমান প্রমুখ।

তহবিল সংগ্রহের এই সন্ধ্যায় নাজমুল হুদার সঞ্চালনায় অতিথিদের স্বাগত জানান ডঃ তানভীর। আয়োজক কমিটি স্মৃতিসৌধের নির্মান পরিকল্পনা ব্যাখা, কাউন্সিলের কাজের বিস্তারিত অগ্রগতি, ৫২-এর ভাষা আন্দোলনের সাথে এই স্মৃতিসৌধ’র সম্পর্ক সহ প্রবাসীদের নিয়ে এই সমন্বিত প্রয়াসের বিস্তারিত আলোচনা উপস্থাপন করেন। আয়োজকরা জানিয়েছেন, অনুষ্ঠানে প্রবাসী বাঙ্গালীদের ঐকান্তিক সহযোগিতায় প্রায় ৩৫ হাজার ডলার সংগ্রহ করার পাশাপাশি বিশিষ্ট ব্যবসায়ী মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম রাতের খাবারের সম্পূর্ণ অর্থ অনুদান দিয়েছেন।

প্রধান অতিথির ভাষনে বাংলাদেশের মান্যবর হাই কমিশনার বলেন, ‘ভাষাযোদ্ধাদের প্রতি শ্রদ্ধা ও সিডনির সফল এই কাজে আবারো এটি প্রমান হলো, বাঙ্গালী ঐক্যবদ্ধ তাঁর দেশ, ঐতিহ্য ও অহঙ্কারের অবস্থান থেকে।

দ্বিতীয় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা স্মৃতিসৌধ নির্মানের পরিকল্পনা ও পৃষ্ঠপোষকতার অগ্রভাগে আছেন কেন্টারবুরী-ব্যাঙ্কস টাউনের কাউন্সিলর নাজমুল হুদা, কাউন্সিলর শাহে জামান টিটো, অস্ট্রেলিয়া যুবলীগের সাধারন সম্পাদক আব্দুল্লাহ আল নোমান শামিম, সিডনির বাংলা হাবের সভাপতি মুনীর হোসেইন ও সমাজসেবক লিঙ্কন শফিকুল্লাহ। উল্ল্যখ্য, এর আগে ২০০৬ সালে একুশে একাডেমী অস্ট্রেলিয়ার উদ্যোগে সিডনির এশফীল্ড পার্কে প্রথম আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা স্মৃতিসৌধ নির্মিত হয়।

আবরার হত্যার প্রতিবাদে সিডনিতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত

আবরার ফাহাদকে পিটিয়ে হত্যার প্রতিবাদে সিডনিতে আইরাইট মানবাধিকার সংগঠনের ব্যানারে মানববন্ধন করেছেন বাংলাদেশি প্রবাসীরা। গত ১৩ অক্টোবর ( রোববার) বিকেল সাড়ে ৫ টায় সিডনির ল্যাকাম্বা রেলওয়ে প্যারেডে প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে শুরুতে বাংলাদেশ ও অস্ট্রেলিয়ার জাতীয় সংগীত পরিবেশন করা হয়।

অনলাইন নিউজ পোর্টাল নবধারার সম্পাদক আবুল কালাম আজাদের সঞ্চালনায় মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন হাবিব রহমান, এএনএম মাসুম, লিয়াকত আলী স্বপন, ড. নার্গিস বানু, ডাঃ আব্দুল ওয়াহব, ফজলুল হক শফিক প্রমুখ। মানববন্ধন প্রবাসীরা অনতিবিলম্বে আবরার হত্যার সঙ্গে জড়িত সকল খুনিদের বিশেষ ট্রাইব্যুনালের আওতায় দ্রুত বিচার সহ দেশের সকল বিশ্ববিদ্যালয়ে হিংস্র ছাত্র রাজনীতির মতো অসুস্থ প্রতিযোগিতা বন্ধের দাবি জানান।

মানববন্ধনে দেশের স্বার্থকে সমুন্নত করে বুয়েটের মেধাবী  শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদকে পিটিয়ে নির্মমভাবে হত্যার তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে বক্তারা বলেন, বুয়েট শিক্ষার্থী আবরার ভারতের সাথে সরকারের অসম চুক্তির প্রতিবাদে ফেসবুকে লিখে প্রতিবাদ করেছিলেন। আবরার দেশপ্রেম ও দেশের স্বার্থকে সমুন্নত রাখতেই লিখেছিলেন। কিন্তু খুনিরা এটা সহ্য করতে পারেনি। তাই তারা আবরারকে জানোয়ারের মতো পিটিয়ে হত্যা করেছে। এমন জঘন্য আচরণের নিন্দা জানানোর ভাষা নেই।

প্রতিবাদ সভায় বক্তারা আরও বলেন,  দেশের মানুষের বাক-স্বাধীনতা ও নাগরিক অধিকার বলে কিছুই নেই। যারাই দেশের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্বের পক্ষে কথা বলছেন, হামলা-মামলা ও ভয়-ভীতি দেখিয়ে তাদের কণ্ঠরোধ করে গুম, খুন, মামলা দিয়ে জেলে রাখা হচ্ছে।