ত্রিমাত্রা অস্ট্রেলিয়া আয়োজিত তিন দিনব্যাপী লাকেম্বা ঈদ মেলা অনুষ্ঠিত

গত ২৭ জুলাই ৩ অগাস্ট এবং ১০ অগাস্ট ঈদুল আযহাকে সামনে রেখে  ত্রিমাত্রা অস্ট্রেলিয়া ইনক ল্যাকেম্বা ইউনাইটিং চার্চে তিন দিনব্যাপী (পর পর তিন শনিবার ) লাকেম্বা ঈদ মেলা অনুষ্ঠিত হয়। সকাল ১১ টা থেকে রাত ১০ টা পযন্ত সিডনির  বিখ্যাত ফ্যাশন হউসগুলোর অংশগ্রহনে  এই ঈদ মেলা অনুষ্ঠিত হয়।

মেলার শেষ দিন ছিল ক্রেতাদের জন্য  আকর্ষণীয় রাফেল ড্র । ঈদ মেলায় ক্রেতা সমাগমের পাশাপাশি ছিল নতুন বুটিক্স এবং দেশীও কাপড়ের সমাহার। তীব্র ঠাণ্ডা উপেক্ষা করে সকাল থেকে প্রচুর ক্রেতাদের সমাগম ঘটে ত্রিমাত্রার এই ঈদ মেলায়। প্রত্যেকটি ফ্যাশান হউজের রকমারি পোশাক মেলার সৌন্দর্য অনেকখানি বাড়িয়ে দিয়েছিল। সবগুলো স্টল সজ্জিত ছিল রকমারি দেশিও পোশাকে। দেশী শাড়ি ,সালওয়ার-কামিজ , গহনা ,ছেলেদের পাঞ্জাবি, ছোটোদের পোশাক এবং রকমারি খেলনার পসরা সাজিয়ে বসেছিল বিক্রেতারা। পাশাপাশি দেশীও খাবার যা চিরচেনা বাংলাদেশকে মনে করিয়ে দিয়েছে। ছিল ছোটদের জন্য খেলনার দোকান।

মেলার আয়োজক সিডনির বিখ্যাত ফ্যাশান হউস  “শাহিন’স বুটিক “এবং  সিডনির  বাংলা হেয়ার এন্ড বিউটি স্টুডিও এর কর্ণধার,  শাহিন আকতার স্বর্ণা ও শিরিন আকতার। আয়োজকরা জানান, প্রবাসে বসে সিডনির নারী উদ্যোক্তাদের তাদের প্রদর্শিত পণ্য প্রবাসী ক্রেতাদের পৌঁছে দেয়া, প্রবাসে বসে দেশের স্বাদ গ্রহন করা এবং নতুন প্রজন্মের কাছে  দেশীয় ঐতিহ্যকে তুলে ধরতেই ঈদ মেলার আয়োজন। 

তারা আরও জানান, ঈদ মেলাকে ভিন্নরূপ দেয়াই ত্রিমাত্রার নতুনত্ব । আমরা মূলত বাংলা এবং দক্ষিণ এশিয়ার কমিউনিটিকে বিভিন্ন ভাবে সাহায্য করার জন্য এই মেলা আয়োজন করে থাকি। পাশাপাষী সিডনিতে পোশাক ব্যবসায়ী বিশেষত মহিলাদের কাজের সুযোগ  তৈরি করা সহ বিভিন্ন জন সচেতনতামুলক কাজ করা এই মেলার মূল উদ্দেশ্য। বাংলাদেশের ডেঙ্গু ও ভয়াবহ বন্যা কবলিত  মানুষের পাশে দাঁড়ানোর পাশাপাশি সবাইকে সাধ্যমত সহযোগিতা করার আহবান জানান। ভবিষ্যতে তারা  ক্রেতাদের আরও নতুন কিছু উপহার দেয়ার প্রত্যয় ব্যাক্ত করেন।

আয়োজকরা এই মেলাকে আকর্ষণীও করার জন্য ধন্যবাদ জানান, আমাদের সকল স্পন্সর এবং মিডিয়া পার্টনার জন্মভুমি টেলিভশনকে। পাশাপাশি কৃতজ্ঞতা  মুহাম্মাদ রাশেদসহ সকল কমিউনিটি এবং টিভি মিডিয়া ওপ্রিন্ট মিডিয়ার সকল সাংবাদিকবর্গ।

মেলার দ্বিতীয় দিন গত ৩রা অগাস্ট ,বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ এবং স্পনসরদের উপস্থিতিতে আগামী বছর ঈদ উল ফিতরকে সামনে রেখে ল্যাকেম্বা ইউনাইটিং চার্চে ৫ দিন ব্যাপি (পরপর ৫ শনিবার ) ঈদ মেলা উৎযাপনর ঘোষণা দেয়া হয়। দিন গুলো হলো  ২৫শে এপ্রিল ,২ মে, ৯ মে, ১৬  মে এবং ২৩ মে। ১০ অগাস্ট চাঁদ রাত মেলা পালনের মধ্য দিয়ে  ত্রিমাত্রা অস্ট্রেলিয়া ইন্ক্ আয়জিত তিন দিনব্যাপী (পর পর তিন শনিবার ) লাকেম্বা ঈদ মেলা শেষ হয়।

সিডনিতে ঈদুল আযহা উদযাপিত

যথাযথ মর্যাদা আর ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে সিডনিতে গত ১১ ও ১২ অগাস্ট মুসলমানদের বড় ধর্মীয় উৎসব পবিত্র ঈদুল আযহা পালিত হয়েছে।

কোরবানীর দিনটি হল মুসলমানদের জন্য বছরের শ্রেষ্ঠ দিন। রাসূলে কারীম (সঃ) বলেছেন, আল্লাহর নিকট দিবস সমূহের মাঝে সবচেয়ে শ্রেষ্ঠ দিন হল কোরবানীর দিন, তারপর পরবর্তী তিনদিন। কোরবানী বলা হয় আল্লাহ রাব্বুল আলামিনের নৈকট্য অর্জন ও তার এবাদতের জন্য পশু জবাই করা।

 এই দিনের করনীয় বিষয়গুলো হলো, ঈদের সালাত আদায় করা, এর জন্য সুগন্ধি ব্যবহার, পরিচ্ছন্নতা অর্জন, সুন্দর পোশাক পরিধান করা, তাকবীর পাঠ করা, কোরবানির পশু জব‍াই করা ও তার গোশত আত্মীয়-স্বজন, পাড়া-প্রতিবেশী, বন্ধু-বান্ধব ও দরিদ্রদের মাঝে বিতরণ করা। এ সকল কাজের মাধ্যমে আল্লাহ রাব্বুল আলামিনের নৈকট্য অর্জন ও সন্তুষ্টি অন্বেষণের চেষ্টা করা।

 আল্লাহর নৈকট্য লাভের আশায় সিডনিতে বসবাসকারী প্রবাসী মুসলমান ও বাংলাদেশীরা ব্যাংকস টাউন, আরলউড, গ্রানভীল, গ্রিন-ভ্যালি, হক্সটন পার্ক, কিন্সগ্রোভ, লাকেম্বা, লিউমিয়াহ, ম্যাসকট, মিন্টু, মাউন্ট ডুরিথ, রকডেল, সেফটন, সারি-হিলস, ইঙ্গেলবার্ন, ম্যাকুরিফিল্ড গ্লেনফিল্ড, কাম্পবেলটাউন ও লিভারপুল এলাকায় মসজিদ, ইসলামিক সেন্টার, পার্ক, মাসালা কিংবা কনভেনশন হলে ঈদের নামাজের জন্য সমবেত হন।

 অস্ট্রেলিয়ান মুসলিম ওয়েলফেয়ার সেন্টারের উদ্যোগে মিন্টো ইনডোর স্টেডিয়ামে ১২ অগাস্ট ঈদের জামাতের আয়োজন করা হয়।  নামাজে প্রায় সহস্রাধিক মুসল্লির উপস্থিতিতে মুসলিম ঐক্যের মহামিলনে পরিণত হয়। স্টেট এমপি অনুলাক চাংটিভং, ক্যাম্বেলটাউন সিটি কাউন্সিল মেয়র জর্জ ব্রিটিসিভিক, কাউন্সিলর মাসুদ চৌধুরী, রিভারস্টোন মুসলিম সিমেট্রি বোর্ডের চেয়ারম্যান কাজী আলী, ভারভিল ক্যাথলিক সিমেট্রি’র প্রকল্প পরিচালক আরমেন মাইকআয়েলিন সহ অন্যান্য অতিথিরা উপস্থিত ছিলেন।

 জামায়াত শেষে দেশ, জাতি ও বিশ্ব মুসলিম উম্মাহর সুখ, শান্তি ও সমৃদ্ধি কামনা করে বিশেষ মোনাজাত করা করা হয়। রঙ-বেরঙের পোশাক পড়ে রাস্তায় ছোট ছোট বাচ্চাদের চলাচল, মসজিদ ও ইসলামিক সেন্টার গুলোর সামনে মুসল্লিদের ভিড় ও বাড়িতে বাড়িতে বন্ধু বান্ধবদের বাসায় ঘুরতে যাওয়া সারা সিডনিতে এনে দিয়েছিল ঈদের আলাদা এক চিত্র।

 প্রবাসী বাংলাদেশীরা বিভিন্ন হালাল দোকান ও মুসলিম কমিউনিটি কোরবানির ব্যবস্থা করেছেন। তবে কোরবানির মাংস পাওয়া যাবে ঈদের পর।

‘হাসিনাঃ এ ডটার’স টেল’ মেলবোর্নে আজ সন্ধ্যায় প্রদর্শনী

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার জীবনের উপর তৈরী “হাসিনাঃ এ ডটার’স টেল” – নামের ঐতিহাসিক ডকুড্রামা আজ ১৩ই আগস্ট (মঙ্গলবার) সন্ধ্যা ৬ টায় HOYTS Highpoint (Hightpoint Shopping Centre), ইন্ডিয়ান ফিল্ম ফেস্টিভেল অফ মেলবোর্নে “সাবকন্টিনেন্ট ক্যাটাগরী”তে প্রদর্শিত হবে।

পিপ্লু খানের পরিচালনায় তৈরী এই ডকু-ড্রামাতে সপরিবারে বঙ্গবন্ধুর হত্যাকান্ডের পর পরিবারের বেঁচে যাওয়া দুই সদস্য, দুই বোন শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানার কি করে দেশকে ঘিরে তাদের পিতার স্বপ্ন বাস্তবায়নে সংগ্রাম করেছেন তার চিত্র ফুটে উঠেছে। এই ডকু-ড্রামাটি ২০১৮ এর ১৫ই নভেম্বর ঢাকার স্টার সিনেপ্লেক্সে মুক্তি পায়।

পরবর্তীতে এই বছরের জুলাই মাসে এটি দক্ষিন আফ্রিকার ডারবার ফিল্ম ফেস্টিভেলে প্রদর্শিত হয়। এছাড়া এই বছরের শেষের দিকে স্পেনের বার্সেলোনা এসিয়ান ফিল্ম ফেস্টিভেল ও দক্ষিন কোরিয়ার DMZ International Documentary Film Festival এও প্রদর্শনের বদোবস্ত করা হয়েছে।

মেলবোর্নে বসবাসরত বাংলাদেশীদেরকে উক্ত প্রদর্শনীতে এসে এই ঐতিহাসিক ডকুড্রামা সপরিবারে দেখার অনুরোধ জানিয়েছেন মেলবোর্ন আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক জনাব মোল্লা মোঃ রাশিদুল হক।