আন্ত: বিশ্ববিদ্যালয় ফুটবল টুর্ণামেন্ট কমিটি গঠিত

ঢাকা: বাংলাদেশ কালচারাল ফোরাম ও গ্রিন ইউনিভার্সিটির যৌথ উদ্যোগে আন্ত: বিশ্ববিদ্যালয় ফুটবল টুর্ণামেন্ট ২০১৯ শুরু হতে যাচ্ছে। আজ ১২ জুলাই দুপুর ১২ টায় গ্রিন ইউনিভার্সিটির বোর্ডরুমে টুর্ণামেন্ট কমিটি গঠিত হয়। কমিটির চেয়ারম্যান মোননীত হন অধ্যাপক ড. আনিসুজ্জামান, কো- চেয়ারম্যান মো: শহীদুল্লাহ, ট্রেজারার, সদস্য সচিব, ড. মো: আফজাল হোসেন খান।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ফোরামের ভাইস প্রেসিডেন্ট রহমতউল্লাহ, ভাইস প্রেসিডেন্ট অভিনেতা ঝুনা চৌধুরী, সদস্য নূরে আলম সিদ্দিকী, ডেপুটি মডারেটর মনিরুজ্জামান, স্পোর্টস ক্লাবের প্রেসিডেন্ট এবং সাধারন সম্পাদক।

এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন গ্রিন বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র ক্রিকেটার সৌম সরকার। সকলের উপস্থিতিতে গ্রিন বিশ্ববিদ্যালয়ের স্পোর্টস ক্লাবের মডারেটর নাইম মিয়াজী এবং কালচারাল ফোরামের ভাইস প্রেসিডেন্ট ঝুনা চৌধুরী সমঝোতা চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন।

ড্রিম ক্যাচার

সাকিনা আক্তার: সকাল থেকেই দেখি আমার সাত বছরের ছোট্ট মেয়েটা ভীষণ ব্যস্ত। নিজের পড়ার  টেবিলে চিন্তিত হয়ে বসে আছে একটা পেপার আর কিছু পেন্সিল নিয়ে। কিছুক্ষণ পর পর জানালা দিয়ে তাকিয়ে সামনের খোলা আকাশ দেখে অন্যমনস্ক হয়ে। 

খুব তাড়াহুড়া করে দৌড়ে এলো, মা চলো বাংলাদেশ চাই। ওর হাতে একটা  আঁকা ছবি।

অবাক হয়ে বললাম হঠাৎ করে বাংলাদেশ কেন যেতে চাইছ?

ছবি দেখিয়ে বলল, বাংলাদেশ পৃথিবীর সেরা দেশ তাই একটা মুকুট দিয়েছি । দেখো মা সবার উপরে বাংলাদেশের লাল সবুজ পতাকা। 

তুমি সারাক্ষণ বাংলাদেশ বাংলাদেশ করো। বাংলাদেশ ভালোবাসো। তুমি বাংলায় কথা বল, তুমি বাংলায় গান গাও, তুমি বাংলার গান শোন। 

তুমি তো বলো বাংলাদেশের মত এত সুন্দর সবুজ আর কোথাও নেই। বৃষ্টির ছন্দে  মন আনন্দে নাচতো তোমার। 

পৃথিবীর সবচাইতে সুন্দরতম সমুদ্র আমাদের।

পহেলা বৈশাখে ছায়ানটের জন্য তোমার মন অস্থির হয়।

চারুকলার নেশায় তুমি ছুটে যাও এখানে বাংলা আর্ট এক্সিবিশনে। 

বাংলাদেশ যদি তোমার এত প্রিয় তবে তুমি অস্ট্রেলিয়া এসেছ কেন?

ছবির এই মেয়েটা আমি মা। দেখো দেখো,  কি সুন্দর একটা পাখির বাসা।  ছোট্ট নীড়ে পাখিরা কিচিরমিচির করে আর সুখে শান্তিতে খেলা করে বেড়ায়।  

আমি জানতে চাইলাম তোমার হাতে ওটা কি মা?

হেসে বলে  ড্রিম কেচার, রক্ষা ও শান্তির প্রতিক মা। 

এতো ভালোবাসা পেছনে ফেলে তুমি কেন অস্ট্রেলিয়া চলে এসেছে মা,  আমি চাই কারণটা খুঁজে পেতে। 

তুমি আমি বাংলাদেশে গিয়ে ড্রিম ক্যাচার দিয়ে সব সমস্যার সমাধান করে ফেলব।  আর কাউকে দেশ ছেড়ে আসতে হবে না মা। বাংলাদেশ হয়ে উঠবে স্বপ্নের মতো সুন্দর, শান্তিময়, ঐশ্বর্য পূর্ণ। বাংলাদেশই আমাদের স্বপ্নের স্বর্গ। 

মুহূর্তে আমার চোখ ঝাপসা হয়ে গেল। অদ্ভুত ভাললাগায় হৃদয় ভরে গেল। মনে পড়ে গেল খুব প্রিয় একটা গানের কিছু কথা “আমার এই দেশেতে জন্ম যেন এই দেশেতে মরি”।