Featured

মেলবোর্নে ইন্টারন্যাশনাল সোর্সিং এক্সপোতে বাংলাদেশের অংশগ্রহন

অস্ট্রেলিয়ার মেলবোর্নের কনভেনশন অ্যান্ড অ্যাক্সিভিশন সেন্টারে অনুষ্ঠিত হয়ে গেল ইন্টারন্যাশনাল সোর্সিং এক্সপো-২০১৯। দুই দিনব্যাপী এ অ্যাক্সিভিশন গত মঙ্গলবার (১২ নভেম্বর) শুরু হয়ে চলে বৃহস্পতিবার (১৪ নভেম্বর) পর্যন্ত।  

এটি মূলত বিভিন্ন দেশের এপারেল, এক্কেসরিজ, ও টেক্সটাইল সামগ্রী রফতানিকারকদের অস্ট্রেলিয়ার ক্রেতা আকৃষ্ট করার মেলা। এই উপলক্ষে গত ১১ ই নভেম্বর (সোমবার) বাংলাদেশ এক্সপোর্ট প্রমোশন ব্যুরোর উদ্যোগে এক প্রতিনিধিদল নিয়ে মেলবোর্নে আসেন কুষ্টিয়া-৪ আসনের সংসদ সদস্য, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সংসদীয় স্ট্যান্ডিং কমিটি ও প্রাইভেট মেম্বারস বিলস অ্যান্ড রেসোল্যুশনস কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার সেলিম আলতাফ জর্জ। মেলায় স্টল দেয়ার জন্যে বাংলাদেশ থেকে প্রায় ১৮টি কোম্পানির লোকজন ছাড়াও উনার সফর সঙ্গী হিসেবে আসেন বাংলাদেশ এক্সপোর্ট প্রমোশন ব্যুরোর ডিরেক্টর জেনারেল (অতিরিক্ত সচিব) অভিজিত চৌধুরী ও অ্যাসিস্ট্যান্ট ডিরেক্টর মো. রফিকুল ইসলাম। 

মেলা ঘুরে ও বিভিন্ন প্রতিনিধিদের সাথে কথা বলে জানা যায়, অস্ট্রেলিয়ার ক্রেতারা বাংলাদেশি সামগ্রী কিনতে খুব আগ্রহী। তারা বিভিন্ন বাংলাদেশি রফতানিকারক ও পরিবেশকদের কাছে অনেক সামগ্রীর অর্ডার দেন ও চুক্তিবদ্ধ হন। সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার সেলিম আলতাফ জর্জ ও বাংলাদেশ এক্সপোর্ট প্রমোশন ব্যুরোর ডিরেক্টর জেনারেল (অতিরিক্ত সচিব) অভিজিত চৌধুরীর বরাতে জানা যায়- বাংলাদেশ সরকার বাংলাদেশের সামগ্রীর আন্তর্জাতিক ব্রান্ডিংয়ের জন্যে সারা পৃথিবীব্যাপী এই ধরনের মেলায় অংশ নেয় ও বাংলাদেশের বিভিন্ন রফতানিকারকদের সরকারি খরচে বিদেশে দেশের পণ্য বিক্রির সুযোগ করে দেয়। বাংলাদেশের গার্মেন্টস ইন্ডাস্ট্রি যাতে উত্তরোত্তর সফলতা পায়, তার জন্যে বাংলাদেশ সরকার সদা তৎপর রয়েছে।

মেলায় বাংলাদেশ এক্সপোর্ট প্রমোশন ব্যুরোর পক্ষে সার্বিক দায়িত্বে ছিলেন বাংলাদেশ হাই কমিশনের কর্মকর্তা জনাব পীযুষ। এছাড়া মেলবোর্ন থেকে সর্বাত্মক সহযোগিতায় ছিলেন মেলবোর্ন আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ড. মাহবুবুল আলম, ও সাধারণ সম্পাদক আলহাজ মোল্লা মো. রাশিদুল হক। এছাড়া বাংলাদেশ সরকারের কর্মকর্তা এ কে আজাদ খান, রহিমা খাতুন ও মেলবোর্ন কনভেনশন অ্যান্ড এক্সিভিশন সেন্টারের কর্মকর্তা জুলিয়া হল্ট অনেক সহযোগিতা করেন। প্রেস বিজ্ঞপ্তি

সিডনিতে আওয়ামী লীগের ৭২তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপযাপন

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সিডনি, অস্ট্রেলিয়ার উদ্যোগে আওয়ামী লীগের ৭২ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপযাপন করা হয়েছে। গত ২৩ জুন (বুধবার) প্রথম প্রহরে সিডনির গ্রামীণ চটপটি রেস্টুরেন্টে  আওয়ামী লীগ ও সহযোগী-অঙ্গসংগঠনের নেতৃবৃন্দের আনন্দঘন উপস্থিতিতে কেক কেটে  প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন করা হয়। এ সময় নেতৃবৃন্দ বাংলাদেশ অাওয়ামী লীগ,  জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অবদানের কথা স্মরণ করেন এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বের ভূয়সী প্রশংসা করে বক্তব্য রাখেন।

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ অস্ট্রেলিয়ার সভাপতি মো. সিরাজুল হক তার বক্তৃতায় বলেন, ২৩ শে জুন বাংলাদেশের জন্য  অবিস্মরণীয় একটি দিন। কেননা আওয়ামী লীগের জন্ম না হলে আমরা আজকের এই স্বাধীন বাংলাদেশ পেতাম না। তাই বাংলাদেশের সমগ্র অর্জনের পেছনে আওয়ামী লীগের অবদান অনস্বীকার্য। এছাড়া প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেছেন বাংলাদেশ অাওয়ামী লীগ সিডনি, অস্ট্রেলিয়ার সাধারণ সম্পাদক ফয়সাল আজাদ।

অনুষ্ঠানে আওয়ামী লীগের অন্যান্য নেতৃবৃন্দের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ অস্ট্রেলিয়ার সহ-সভাপতি মো. হারুনুর রশিদ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান কচি,  সাংগঠনিক সম্পাদক দিদার হোসেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সিডনি, অস্ট্রেলিয়ার যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. জাহিদ হোসেন ও হাজী দেলোয়ার হোসেন সরকার, সাংগঠনিক সম্পাদক মো. ইমরান হোসেন, কোষাধক্ষ্য মো. আব্দুস সালাম, আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগ অস্ট্রেলিয়ার সভাপতি জাকারিয়া আল মামুন, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ অস্ট্রেলিয়ার সভাপতি আমিনুল ইসলাম রুবেল ও বিশিষ্ট আওয়ামী লীগ নেতা মো. এনামুল হকসহ প্রমুখ।

উল্লেখ্য, ১৯৪৯ সালের ২৩ জুন পুরান ঢাকার কে এম দাস লেনের রোজ গার্ডেনে আত্মপ্রকাশ ঘটে ঐতিহ্যবাহী সংগঠন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের, প্রায় দুই যুগ পর এই দলের শীর্ষনেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে স্বাধীন হয় বাংলাদেশ।

সিডনি প্রেস অ্যান্ড মিডিয়া কাউন্সিল’র নতুন কার্যকরী পরিষদ গঠিত

অস্ট্রেলিয়া প্রবাসি বাংলাদেশি লেখক ও সাংবাদিকদের বৃহত্তম সংগঠন ‘সিডনি প্রেস অ্যান্ড মিডিয়া কাউন্সিল’র নতুন কার্যকরী পরিষদ গঠিত হয়েছে। ব্যাপক উৎসাহ উদ্দেীপনার মধ্য দিয়ে গত ২০ জুন (রবিবার) দুপুরে সিডনির ইঙ্গেলবার্নস্থ দাওয়াত রেস্টুরেন্ট ও ফাংশন সেন্টারে নির্বাচনের মাধ্যমে এ কার্যকরী পরিষদ গঠিত হয়। আগামি ২২ জুন পুরনো কমিটির মেয়াদ শেষ হওয়ার দুইদিন আগে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে এই কমিটি গঠন করা হয়।

অনুষ্ঠানের শুরুতে কাউন্সিলের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মোহাম্মদ আসলাম মোল্লা পবিত্র কোরআন থেকে তেলোয়াতের পর তার সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মেদ আব্দুল মতিনের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানের শুভ সূচনা করা হয়।

কাউন্সিলের সাধারণ সম্পাদকের রিপোর্ট ও অন্তর্বর্তীকালান কোষাধ্যক্ষ বেলাল হোসেন ঢালী বিগত বছরের বার্ষিক প্রতিবেদনপেশ করেন। এরপর কাউন্সিলের সদস্য এবং নির্বাচন পর্যবেক্ষক অতিথিগণ বিভিন্ন বিষয়ে পর্যালোচনা ও মতামত পেশ করেন। সর্বসম্মতিক্রমে বার্ষিক প্রতিবেদন ও নতুন পাবলিক অফিসার অনুমোদনের পর বিদায়ী ভারপ্রাপ্ত সভাপতি কার্যকরী কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশনকে নির্বাচন পরিচালনার অনুরোধ জানান।

দুপুরের খাবারের বিরতির পর অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় পর্বে নির্বাচন কমিশন ও পর্যবেক্ষক অতিথিগণ মঞ্চে আসন গ্রহণ করেন। জরুরী কাজে নির্বাচন কমিশনার বীর মুক্তিযাদ্ধা মিজানুর রহমান তরুণ দ্বিতীয় পর্ব শুরুর আগে চলে যাওয়ায় নির্বাচন কমিশন ড. তারিকুল ইসলাম ও বীরমুক্তিযাদ্ধা এনায়েতুর রহিম বেলালের কাছে রিটার্নিং অফিসার নাইম আবদুল্লাহ নতুন কার্যনির্বাহী পরিষদের নির্বাচনের জন্য জমাকৃত মনোনয়নপত্র হস্তান্তর করেন। নির্বাচন কমিশনকে সহযোগিতা করেন ড. রতন লাল কুন্ডু।

উল্লেখ্য যে, সিডনি প্রেস এন্ড মিডিয়া কাউন্সিলের চলমান সঙ্কটের সুষ্ঠ সমাধানে একটি টিম কাজ করছে। এই সম্মানিত টিমের প্রতি আস্থা রেখে কাউন্সিলের পক্ষ থেকে চারটি পদের মনোনয়ন স্থগিত রাখা হয়। ভবিষ্যতে যদি ঐক্যমতে পৌঁছানো সম্ভব হয় তাহলে সমঝোতার ভিত্তিতে এই চারটি পদে মনোয়ন দেয়া হবে। অন্যথায় অপেক্ষমান তালিকা থেকে পদগুলি পূরণ করা হবে।

নির্বাচন কমিটি যাচাই বাছাই শেষে আগামী দুই বছরের জন্য মোহাম্মাদ আব্দুল মতিনকে সভাপতি করে ৯ সদস্য বিশিষ্ট নতুন কার্যকরী পরিষদের নাম ঘোষণা করেন। কার্যকরী পরিষদের অন্যান্য সদস্যরা হলেন, মোহাম্মেদ আসলাম মোল্লা (সিনিয়র সহ-সভাপতি), মোহাম্মাদ রেজাউল হক (সহ-সভাপতি), ফয়সাল আহমেদ (যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক), দিলারা জাহান (কোষাধ্যক্ষ), হাজী মোহাম্মাদ দেলোয়ার হোসেন (প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক)। কার্যকরী পরিষদের সম্মানিত সদস্যরা হলেন, ড. রতন লালকুন্ডু, আকিদুল ইসলাম ও নাইম আবদুল্লাহ। এই সময় কাউন্সিলের সদস্য ও অতিথিগণ করতালির মাধ্যমে নতুন কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্যদের স্বাগত জানান।

নতুন কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্যদেরকে অভিনন্দন জানিয়ে বক্তব্য রাখেন, অস্ট্রেলিয়া আওয়ামিলীগের সভাপতি বিশিস্ট আইনজীবি সিরাজুল হক, সাবেক কাউন্সিলর শাহে জামান টিটো, অস্ট্রেলিয়া বাংলাদেশ প্রেস অ্যান্ড মিডিয়া ক্লাবের সভাপতি রহমত উল্লাহ, অস্ট্রেলিয়ার সর্বদলীয় সামাজিক সংগঠন বিডি হাবের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল খান রতন, বাংলাদেশ এসোসিয়েশন অব নিউ সাউথ ওয়েলসের সাবেক সভাপতি ওকেএম ফজলুল হক শফিক ও একই সংগঠনের সাবেক সভাপতি মোবারক হোসেন।

নব নির্বাচিত সভাপতি, সহ-সভাপতি ও অন্যান্য সদস্য তাদের সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে কাউন্সিলের সদস্যদের প্রতি আন্তরিক ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে আগামী দিনগুলোতে একসাথে কাজ করার অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন।

সিডনিতে মাতৃভাষা স্মৃতিসৌধ নির্মাণের উদ্যোগ

প্রবাসী বাঙালিদের উদ্যোগে সিডনিতে তৈরি হচ্ছে মাতৃভাষা স্মৃতিসৌধ। সিডনির কেমবেলটাউন কাউন্সিল এলাকায় একটি ‘আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস মনুমেন্ট’ নির্মাণের লক্ষ্যে সম্প্রতি স্থানীয় বিভিন্ন ভাষাভাষী মানুষকে নিয়ে এক সেমিনার হয়।

প্রস্তাবিত স্মৃতিসৌধের মূল ডিজাইন ও অ্যানিমেশন সেমিনারে দেখানো হয়। এতে উপস্থিতরা ডিজাইনটির স্থপতি মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান ও উদ্যোক্তাদের ভূঁয়সী প্রশংসা করেন। বাংলাদেশ, ভারত, টোঙ্গা, সামোয়া, নেপাল, পাকিস্তান, শ্রীলঙ্কা, নিউজিল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়াসহ বিভিন্ন ভাষাভাষী লোক সেমিনারে উপস্থিত ছিলেন।

সেমিনারের উদ্যোক্তা আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস মনুমেন্ট প্রজেক্ট কমিটির পক্ষ থেকে কো-অর্ডিনেটর কায়সার আহমেদ উপস্থিত সবাইকে স্বাগত জানান। অনুষ্ঠানে কাউন্সিলর মাসুদ চৌধুরী উপস্থিত ছিলেন। কাউন্সিলের উদ্যোগে গত পাঁচ বছর ধরে ২১ ফেব্রুয়ারি সরকারিভাবে কাউন্সিল চত্বরে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের আলোচনা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান হয়। মাসুদ চৌধুরী এই মনুমেন্ট স্থাপনায় তার সর্বাত্মক সহযোগিতার আশ্বাস পুনর্ব্যক্ত করেন। তিনি বলেন, পৃথিবীর সব মাতৃভাষাকে সংরক্ষিত করার জন্য সবাইকে একযোগে কাজ করতে হবে।

এতে আরও বক্তব্য দেন ইঞ্জিনিয়ার ওসমান চৌধুরী, আর্কিটেক্ট আশেক চৌধুরী, ইঞ্জিনিয়ার মাসুদ হাসান, ক্রিস্টিয়ান হোয়াইট (অস্ট্রেলিয়া), করামজিৎ সিং (ভারত), মুস্তাফিজুর রহমান, হেরিশ গয়াল (ভারত), পারভেজ খান (পাকিস্তান), গনেন্দ্র রাজ ফিয়াক (নেপাল), মোফাজ্জল ভূঁইয়া, মেল ফুয়েন (নিউজিল্যান্ড-মাওরি), এ কে এম এমদাদুল হকসহ আরও অনেকে।

সিডনিতে সাংবাদিক আব্দুল মতিনের মায়ের মৃত্যুতে দোয়া অনুষ্ঠিত

আজ ২১ জুন (সোমবার) এশার নামাজের পর অস্ট্রেলিয়ান মুসলিম ওয়েলফেয়ার সেন্টারে সিডনি প্রেস ও মিডিয়া কাউন্সিলের নব নির্বাচিত সভাপতি মোহাম্মদ আব্দুল মতিনের মায়ের মৃত্যুতে দোয়া করা হয়। দোয়া পরিচালনা করেন সেন্টারের সভাপতি মোঃ গোলাম কিবরিয়া। দোয়ায় অস্ট্রেলিয়ান মুসলিম ওয়েলফেয়ার সেন্টার ও সিডনি প্রেস ও মিডিয়া কাউন্সিলের সদস্যবৃন্দ, কনিউনিটির নেতৃবৃন্দ সহ মুসুল্লিরা উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য প্রবাসী সাংবাদিক মোহাম্মদ আব্দুল মতিনের মা গতকাল রবিবার বাংলাদেশ সময় সন্ধ্যা ৬ টা ৪০ মিনিটে ভোলার বোরহানউদ্দিনে বার্ধক্য জনিত রোগে মৃত্যুবরন করেন। ইন্না লিল্লাহে ও ইন্না ইলাইহে রাজেউন। সিডনিতে তার মৃত্যুর খবর ছড়িয়ে পড়ার সাথে সাথে প্রবাসী কমিউনিটিতে শোকের ছায়া নেমে আসে। ফোনে এবং বাসায় এসে আব্দুল মতিনের বন্ধু-বান্ধব ও শুভানুধ্যায়ীরা সমবেদনা জানিয়ে তার মায়ের আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন। সিডনি প্রেস ও মিডিয়া কাউন্সিল সহ সিডনি প্রবাসী বিভিন্ন সংগঠন শোক সংতপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানিয়েছেন।

সিডনিতে বাসভূমি উৎসব অনুষ্ঠিত

স্থানীয় সময় গত ৫ জুন (শনিবার) সিডনিতে অস্ট্রেলিয়া ভিত্তিক মিডিয়া বাসভূমির ১৭ বছর পূর্তি উৎসব অনুষ্ঠিত হয়। এবারে উৎসব জুড়ে ছিল ছিল নৃত্য, আবৃতি, গান, গীতি আলেখ্য। অনুষ্ঠানের শুরুতে সবাইকে স্বাগত জানিয়ে বক্তব্য রাখেন বাসভূমির কর্ণধার আকিদুল ইসলাম ও শামীমা সুমী। শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন সিডনি প্রেস এন্ড মিডিয়া কাউন্সিলের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মতিন ও সাবেক কাউন্সিলর শাহে জামান টিটো।

উৎসবে দলীয় নৃত্য পরিবেশন করেন তাম্মি পারভেজ, তাফতুন নাইম, নাতাশা, অরনা এবং মৌসুমি সাহার নির্দেশনায় নৃত্যাঞ্জলি ড্যান্স একাডেমীর শিল্পীরা এবং শ্রেয়সী দাস ও মিতা দে’র গ্রুপ নটরাজ ড্যান্স একাডেমীর শিল্পীরা।

একক নৃত্য পরিবেশন করেন পূরবী পারমিতা বোস ও আনুভা। দলীয় সঙ্গীতে অংশ নেন বঙ্গবন্ধু পরিষদ অস্ট্রেলিয়ার শিল্পীরা। একক সঙ্গীতে অংশ গ্রহণ করেন শাম্মি আহমেদ, আয়েশা কলি, ফারজানা রুবা, নিলুফা ইয়াসমিন, রাসেল ইসলাম প্রমুখ। শ্রুতি নাটক পরিবেশন করেন রতন কুন্ডু ও পলি ফরহাদ। উৎসবে স্বপ্ন ব্যান্ড সংগীত পরিবেশন করে দর্শকদের মন জয় করেন। 

অনুষ্ঠানে এক পর্যায়ে হাসন রাজা পরিষদ, অস্ট্রেলিয়া ঘোষণা দিতে মঞ্চে আসেন বিশিষ্ট ব্যবসায়ী সোলায়মান দেওয়ান, শ্রাবন্তী কাজী এবং সাংস্কৃতিক জন এহসান রেজা ও সায়রা মির্জা।

উৎসবটি উপস্থাপনা করেন জাহাঙ্গীর আলাম ও আয়েশা মানহা।

সিডনিতে ন্যাশনাল স্পোর্টস ক্রিকেট একাডেমীর বার্ষিক পুরষ্কার বিতরণী অনুষ্ঠিত

স্থানীয় সময় গত ১৩ জুন (রবিবার) সিডনির গ্রিনআক্রে সিটিজেন সেন্টারে ন্যাশনাল স্পোর্টস ক্রিকেট একাডেমী’র (NSCA) বার্ষিক পুরষ্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে কমিউনিটির নেতৃবৃন্দ ও খেলোয়াড়দের পিতামাতা সহ ৫০ জন প্রতিযোগী খেলোয়াড় স্বতঃস্ফূর্ত ভাবে অংশ নেয়।

এই অনুষ্ঠানে প্রতিযোগীদের খেলায় অংশ গ্রহণের জন্য পুরষ্কার প্রদানের পাশাপাশি ক্লাব গঠনে বিশেষ অবদানের জন্যে বিভিন্ন কমিউনিটি ব্যক্তিত্বকে ফুলেল শুভেচ্ছা জ্ঞাপন করা হয়l এছাড়াও বাংলাদেশ অরজিন ক্রিকেট ক্লাবের পক্ষ থেকে নওফেল রশিদকে টপ অলরাউন্ডার অফ দি ডিস্ট্রিক্ট পুরস্কারে ভূষিত করে।

পুরষ্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন নিউ সাউথ ওয়েলস প্রক্তন প্রিমিমিয়ার মরিস ইয়ামা। অন্যান্য অতিথিবৃন্দের মধ্যে ছিলেন ব্যাংকসটাউন ক্যান্টারবুরি সিটি কাউন্সিলের মেয়র কার্ল আসফাওর ও কাউন্সিলর বিলাল আল হায়েক। দুই শতাধিক অতিথির উপস্থিতিতে ক্লাবের দপ্তর  সম্পাদক অমিত ভাসা’র সঞ্চালনায় শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন ক্লাবের প্রেসিডেন্ট মামুন রশিদl

উল্লেখ্য, ন্যাশনাল স্পোর্টস ক্রিকেট একাডেমী গত বছর মার্চে প্রাক্তন বাংলাদেশী ক্রিকেটার মামুন রশিদের নেতৃত্বে ভিন্ন প্রত্যয় নিয়ে যাত্রা শুরু করে। নুতন প্রজন্মের বাংলাদেশীদের ধাপে ধাপে ভবিষ্যৎ ক্রিকেটার হিসেবে তৈরি করে তোলার পাশাপাশি ক্যান্টারবুরি ডিস্ট্রিক্ট ও ওয়েস্টার্ন সবার্বের অন্যান্য টিমের সাথে খেলার সুযোগ সৃষ্টি করে দেওয়া  ক্লাবটির মুল উদ্দেশ্য। পরবর্তীতে জুনিয়র ক্রিকেটারদের মধ্যে পরবর্তীতে নেতৃত্বদান, টীম ওয়ার্ক ও আত্মবিশ্বাসী করে গড়ে তোলা।

সেই প্রত্যয় নিয়ে ক্লাবে যোগ হয় নিউ সাউথ ওয়েলস এর জুনিয়র ক্রিকেট এসোসিয়েশনে ৪টি টিম। এর মধ্যে দুটি ১১ বছরের নীচে, বাকী দুটি ১৩ বছরের নীচে। গত ছয় মাস কঠোর অনুশীলন ও প্রফেশনাল কোচিংয়ের মাধ্যমে ১৩ বছরের নীচের টীমটি ডিস্ট্রিকের সেরা ১২ টি টিমকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ান হাওয়ার গৌরব অর্জন করে।

ক্লাবের ১৩ বছরের নীচের গ্রপের ক্ষুদে ক্রিকেটার নাওফের রশিদ নিউ সাউথ ওয়েলস রাজ্যের সেরা অল রাউন্ডার ও সব্বোর্চ রান করে সেরা ব্যাটসম্যান নির্বাচিত হাওয়ার গৌরব অর্জন করে। সেই ধারাবাহিকতায় ক্লাবের দুইটি টিম নিউ সাউথ ওয়েলস জুনিয়র উইন্টার প্রতিযোগিতায় অংশ নেয়।

সিডনিতে বিডি হাব আয়োজিত সাংবাদিক সম্মেলনে বিজয়মেলা’র ঘোষনা

স্থানীয় সময় গত ১২ জুন (শনিবার) বিডি হাব তাদের সিডনির মিন্টুস্থ নিজস্ব হাব ভবনে এক সাংবাদিক সম্মেলনের আয়োজন করে।

সাংবাদিক সম্মেলনের শুরুতে বিডি হাবের সভাপতি আবুল সরকার উপস্থিত সকল সাংবাদিকদের স্বাগত জানান। এরপর সংগঠনের সাধারন সম্পাদক আব্দুল খান রতন সাংবাদিক সম্মেলনের মুল উদ্দেশ্য সবার সামনে তুলে ধরেন। সংগঠনটির ট্রেজারার ও ক্যারম টুর্নামেন্টের অন্যতম সদস্য সাখাওয়াত হোসেন টুর্নামেন্ট বিষয়ক যাবতীয় নিয়মাবলী সাংবাদিকদের অবহিত করে জানান, সিডনির বিভিন্ন এলাকা থেকে খেলোয়ারগণ অংশগ্রহন করে আমাদের টুর্নামেন্টে অভাবনীয় সাফল্য এনে দিয়েছে।

এরপর বিডি হাবের যুগ্ম সম্পাদক ফয়সাল আজাদ শীতকে সামনে রেখে আগামী ৩১ জুলাই (শনিবার) হাবের পক্ষ থেকে পিঠা মেলা আয়োজনের বিস্তারিত ঘোষনা দেন।

সংগঠনের আরেক যুগ্ম সম্পাদক সাইদ মিঠু অত্র এলাকায় ঈদ উল আজহা উপলক্ষ্যে এই সাংবাদিক সম্মেলনের মাধ্যমে একটি ঈদমেলা করার ঘোষনা দিয়ে জানান, এই ঈদ মেলা আগামী ১১ ও ১৮ জুলাই হাব প্রাংগনে অনুষ্ঠিত হবে। এই সময় বিডি হাবের যুগ্ম সম্পাদক মেহান্মদ টিপু ঈদমেলা বিষয়ে সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নেরও বিষদ ব্যাখা দেন।

সর্বশেষে যৌথভাবে আবুল সরকার ও আব্দুল খান রতন স্থানীয় কমিউনিটির কাঙ্ক্ষিত বিজয়মেলা ২০২১ ঘোষনা দেন। তারা জানান, আগামী ১৮ ডিসেম্বর (শনিবার) এই মেলা ক্যাম্বেলটাউন স্পোর্টস ষ্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত হবে। প্রশ্নোত্তর পর্বে আব্দুল খান রতন, সহ-সভাপতি সফিক শেখ ও নিরব এই মেলার প্রস্তুতি ও খুটিনাটি সব বিষয় উপস্থিত সাংবাদিকদের অবহিত করে মেলা সহ তাদের সকল কর্মকান্ডকে সফল করার জন্য সকল সাংবাদিকগনের প্রতি বিনীত আহ্বান জানান।

সাংবাদিক সম্মেলনে হালকা খাবার ও পানীয় দিয়ে সবাইকে আপ্যায়িত করা হয়। সাংবাদিক সম্বেলন শেষে সকল সাংবাদিক, সুধী সমাজ ও খেলোয়ার গনের উপস্হিতিতে ক্যারম খেলার উদ্ভোধনী ঘোষনা করা হয়। উল্লেখ্য এই খেলায় একক ও দৈত্ব বিভাগে প্রায় চল্লিশটি গ্রুপ অংশগ্রহন করছে।

সিডনি প্রেস অ্যান্ড মিডিয়া কাউন্সিলের সদস্য তালিকা প্রকাশ

অস্ট্রেলিয়া প্রবাসী বাংলাদেশি সাংবাদিক ও সংবাদকর্মীদের বৃহত্তম সংগঠন ‘সিডনি প্রেস অ্যান্ড মিডিয়া কাউন্সিল’ তাদের নতুন সদস্যদের তালিকা প্রকাশ করেছে।

স্থানীয় সময় ৭ জুন (সোমবার) কাউন্সিলের সহ-সভাপতি মোহাম্মেদ আসলাম মোল্যার সভাপতিত্বে কার্যনির্বাহী কমিটির এক সভায় আবেদনপত্র বাছাই করা হয়। এরপর ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মোহাম্মাদ আবদুল্লাহ ইউসুফ শামীম ও সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আব্দুল মতিনের স্বাক্ষরে ৩৭ সদস্য বিশিষ্ট (ফিন্যান্সিয়াল/নন ফিন্যান্সিয়াল) এই তালিকা প্রকাশ করা হয়। সদস্য পদে আবেদনের শেষ তারিখ ছিল গত ৪ জুন।

কাউন্সিলের সদস্যরা হলেন- মোহাম্মেদ আসলাম মোল্লা (বাংলা বার্তা), ড. রতন লাল কুন্ডু (লেখক ও কলামিস্ট), নাইম আবদুল্লাহ (সিডনি প্রতিদিন), মোহাম্মাদ আব্দুল মতিন (বিদেশবাংলা টোয়েন্টিফোর ডটকম), ড. ফজলে রাব্বি (অজ বুলেটিন), ফয়সাল আহমেদ (বাংলা বার্তা), মোহাম্মদ রেজাউল হক (আপডেট বিডিনিউজ), আকিদুল ইসলাম (বাসভূমি টেলিভিশন), মোহাম্মাদ বেলাল হোসেন ঢালী (বিদেশবাংলা টোয়েন্টিফোর ডটকম)।

এছাড়াও আছেন মোহাম্মদ কাজী আব্দুল কাদের (স্বাধীন কন্ঠ), মিজানুর রহমান সুমন (স্বাধীন কন্ঠ) কাজী মোঃ নুরুস সাফা (স্বাধীন কন্ঠ), শ্রাবন্তী কাজী (প্রভাত ফেরী), সোলায়মান দেওয়ান (প্রভাতফেরী), ফয়সাল আজাদ (স্বদেশ বার্তা), মোহাম্মদ আবু হুরায়রা (ইসলামী বার্তা), নামিদ ফারহান (প্রবাস কথা), এস এম দিদার হোসেন (দিনলিপি ডটকম), ডঃ সৈয়দ আজিম চঞ্চল (অজবাংলা নিউজ), মোহাম্মাদ কামরুল ইসলাম (অজবাংলা নিউজ), সুহৃদ সোহান হক (বাসভূমি), মুনা মুস্তফা (অজবাংলা নিউজ), এইচ এম মহসিন (বিএফএ ভয়েস), আতিকুর রহমান (প্রভাত ডটকম)।

তালিকায় আরো আছেন এইচ এম মাসুম বিল্লাহ (বিজয় কন্ঠ), আতাবুর রহমান (থ্রি সিক্সটি ইভেন্ট সেন্টার), মোহাম্মদ রেজা আজিজুল রশিদ রাসেল (প্রবাস কথা), সঞ্জয় চক্রবর্তি টাবু (গাঙ্গচিল হাইডেফিনেশন টিভি), মোহাম্মদ দেলওয়ার হোসেন সরকার (লেখক স্বদেশবার্তা), মোঃ মাসুদ পারভেজ (গাঙ্গচিল হাইডেফিনেশন টিভি), মিসেস দিলারা জাহান (ব্লগার/বিদেশবাংলাটোয়েন্টিফোর ডট কম), বুলেট তালুকদার শতদল (বাংলা নিউজ টোয়েন্টিফোর ডট কম), মোহাম্মাদ জিয়াউল কবির ( সাম্পান), তাসনিনা জাহান তাম্মি (গাংচিল হাইডেফিনেশন টিভি), মোঃ সাদ্দাম খান ( ইয়েস টিভি), মাসহুদা জামান ছবি (গাঙ্গচিল হাইডেফিনেশন টিভি)।

কাউন্সিলের একজন মুখপাত্র জানান, নতুন কার্যকরী কমিটির জন্য মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শুরু হবে ১৪ জুন এবং শেষ তারিখ ১৮ জুন। আগামী ২০ জুন (রবিবার) দুপুর ১২টায় ইঙ্গেলবার্নের দাওয়াত রেঁস্তোরার হলরুমে সিডনি প্রেস ও মিডিয়া কাউন্সিলের বার্ষিক সাধারণ সভা ও কার্যকরী কমিটির নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

অস্ট্রেলিয়ায় শোক ও শ্রদ্ধায় শহীদ জিয়ার ৪০ তম শাহদাৎ বার্ষিকী পালন

৩০ শে মে স্বাধীনতার ঘোষক, বহুদলীয় গণতন্ত্রের প্রবক্তা জেড ফোর্সের প্রধান, বীর উত্তম শহীদ প্রেসিডন্ট জিয়াউর রহমানের ৪০ তম শাহাদাৎ বার্ষিকী পালন করে বিএনপির সুবর্ন জয়ন্তী উদযাপন কমিটি, এশিয়া প্যাসিফিক অঞ্চলীয় সমন্বয় কমিটি, অস্রেলিয়া চ্যাপ্টার। অন্যান্য বছরের মত এবার বাংলাদেশ সহ সারা বিশ্বের প্রবাসী বাংলীদেশীরা অত্যন্ত শ্রদ্ধার সাথে এই দিনটি উদযাপন করে। 

এই উপলক্ষে স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী উদযাপন কমিটি এশিয়া প্যাসিফিকের অস্ট্রেলিয়া  চ্যাপ্টার ন্যাশনাল স্পোর্টস ক্লাব অডিটোরিয়ামে দোয়া ও আলোচনা সভার আয়োজন করে। আলোচনার বিষয়বস্তু ছিল জিয়া,উন্ন্য়ন ও গনতন্ত্র এবং শহীদ জিয়া স্মৃতি লাইব্রেরী ” কমল” উদ্বোধন এর প্রোগাম হাতে নেয়। দোয়া ও আলোচনা সভার সভাপতিত্ব করেন বিএনপির সুবর্ন জয়ন্তী উদযাপন কমিটি, এশিয়া প্যাসিফিক অঞ্চলীয় সমন্বয় কমিটি, অস্রেলিয়া চ্যাপ্টার এর সমন্বয়ক জনাব  প্রকৌশলী সোহেল মাহমুদ ইকবাল ও পরিচালনা করেন সংকলন বিষয়ক উপকমিটির সমন্বয়ক প্রকৌশলী হাবিবুর রহমান।

প্রথমেই পবিত্র কোরআন থেকে তেলোয়াত করেন মন্জুরুল হক আলমগীর এবং দোয়া পরিচালনা করেন মৌলানা ফেরদৌস। শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের রুহের মাগফেরাত, বেগম খালেদা জিয়া এবং তারেক রহমান সহ সারা বিশ্বের সকল মানুষের সুস্থতার জন্য দোয়া করা হয়।

সভায় প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন (ভার্চুয়ালী)বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড: আব্দুল মইন খান । বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা কমিটির সদস্য ও বিএনপি স্বাধীনতা জয়ন্তী  জাতীয় উদযাপন কমিটির  সদস্য সচিব বীর মুক্তিযাদ্ধা আব্দুস সালাম, বিএনপির প্রশিক্ষন বিষয়ক সম্পাদক এবিএম মোশারফ হোসেন, ঢাকা মহানগর উত্তরের সভাপতি জনাব আব্দুল কাইউম, স্বাধীনতা জয়ন্তী  জাতীয় উদযাপন কমিটির  এশিয়া প্যাসিফিক অন্চলের আহ্বায়ক এবং বিএনপির সহ আন্তর্জাতিক সম্পাদক ড: শাকিরুল ইসলাম শাকিল যুগ্ম আহ্বায়ক এবং মালয়শিয়া বিএনপির সভাপতি প্রকৌশলী বাদলুর রহমান খান, সিঙ্গাপুর বিএনপির প্রেসিডেন্ট শামসুর রহমান ফিলিপ, সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ কামরুল, সাবেক সাধারণ সম্পাদক লিয়াকত আলী স্বপন, অস্ট্রেলিয়া বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা আব্দুল্লাহ ইউসুফ শামীম নিউজিল্যান্ড বিএনপি, কোরিয়া বিএনপি, হংকং বিএনপি ও অনেক নেতৃবৃন্দ।

প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের কর্মময় জীবনের উপর আলোকপাত করেন এবং নুতন প্রজন্মকেও তার জীবনাদর্শ পালনের জন্য আহ্বান করেন।

সভাপতি সোহেল ইকবাল তার সমাপনী বক্তব্যে বলেন- শহীদ জিয়া মরেনি বেঁচে থাকবেন পৃথিবী যতদিন থাকে, তিনি বাঁচে থাকবেন বাংলার মানুষের অন্তরে. তিনি বলেন -শহীদ জিয়ার আদর্শ হচ্ছে গণতন্ত্রের জন্য লড়াই করা. আমরা গণতন্ত্রের জন্য লড়াই করে যাব আজীবন. তিনি অস্ট্রেলিয়া বিএনপির নেতাকর্মীদের তিনি উদাত্ব আহবান জানান, “ব্যাক্তি স্বার্থের উর্ধে উঠে গণতন্ত্রের পক্ষে দাঁড়ান, তবেই শহীদ জিয়ার আদর্শ বাস্তবায়িত হবে”। ভেদাভেদ ভুলে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে গণতন্ত্রের পক্ষে কাজ করার আহবান জানান।

সভায় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন এশিয়া প্যাসিফিকের সদস্য ব্যারিস্টার নাসির উল্লাহ, জনাব মোহাম্মদ হায়দার আলী, মুন্নী চৌধুরী মেধা। এশিয়া প্যাসিফিক অস্ট্রেলিয়ার বিভিন্ন কমিটির সমন্বয়ক জাকির আলম লেনিন, আশরাফুল আলম রনী, কুদরত উল্লাহ লিটন।

এ ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন বিএনপি অস্ট্রেলিয়া আহ্বায়ক ড: হুমায়ের চৌধুরী রানা, জিয়া ফোরাম অস্ট্রেলিয়ার সভাপতি আরিফুল হক, শিক্ষাবিদ শিবলী আব্দুল্লাহ, বিএনপি’র সাবেক আহ্বায়ক রুহুল আহমেদ সওদাগর, ফরিদ মিয়া, নজরুল ইসলাম নাফিজ,কে এম মন্জুরুল হক আলমগীর, ফয়জুর চৌধুরী হাজী মোহাম্মদ ইউসুফ আলী, ইয়াছিন আরাফাত অপু, আবু সায়ীদ খুদরী, সায়মা খুদরী, তাফতুন নাঈম নিতু, মোহাম্মাদ জসিম,  মোবারক মিয়া , জসিমউদ্দিন, মফিকুল ইসলাম, শাহিনুর রহমান,মীর হোসেন, মাহমুদা বেগম, আবুল কাশেম, সাইফুল ইসলাম, পল গোমেজ, আবু বকর সিদ্দিক, মোহাম্মদ জাকারিয়া সহ আরো অনেক নেতাকর্মী। (প্রেস বিজ্ঞপ্তি)

অস্ট্রেলিয়ায় শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ৪০ শাহাদাত বার্ষিকী উদযাপন

স্বাধীনতার মহান ঘোষক,  বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ৪০ তম শাহাদাত বার্ষিকী উপলক্ষে এক আলোচনা সভা গত রবিবার (৩০ মে) সিডনির লাকেম্বাস্থ স্থানীয় ইউনাইটিং চার্চ হলে স্বাধীনতার সূবর্ন জয়ন্তী উদযাপন কমিটি অস্ট্রেলিয়া মহাদেশের উদ্যোগে অনুষ্ঠিত হয়।

অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ থেকে বক্তব্য রাখেন প্রধান অতিথি হিসাবে স্বাধীনতার সূবর্ন জয়ন্তী জাতীয় কমিটির আহ্ববায়ক ও বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ডক্টর খন্দকার মোশারফ হোসেন, বিশেষ অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী, ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু, স্বাধীনতার সূবর্ন জয়ন্তী জাতীয় কমিটির সদস্য সচিব বীর মুক্তিযোদ্ধা আবদুস সালাম, তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক একে এম ওয়াহিদুজ্জামান, আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক শামা ওবায়েদ।

নেতৃবৃন্দ শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের জীবনীর সংক্ষিপ্ত আলোচনা করে বলেন, জিয়াউর রহমানের জম্ম না হলে বাংলাদেশ স্বাধীন হতো কিনা সন্দেহ।

স্বাধীনতার সূবর্ন জয়ন্তী উদযাপন কমিটি অস্ট্রেলিয়া মহাদেশের আহ্ববায়ক মো.মনিরুল হক জর্জের সভাপতিত্বে এবং সদস্য সচিব মোহাম্মদ রাশেদুল হকের পরিচালনায় দোয়া ও আলোচনা সভায় শুরুতেই স্বাগতম বক্তব্য রাখেন স্বাধীনতার সূবর্ন জয়ন্তী উদযাপন কমিটির সিনিয়র যুগ্ম আহ্ববায়ক মো. মোসলেহ উদ্দিন হাওলাদার আরিফ, অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন স্বাধীনতার সূবর্ন জয়ন্তী উদযাপন কমিটি অস্ট্রেলিয়া মহাদেশের প্রধান উপদেষ্টা মো. দেলোয়ার হোসেন, চালস স্টুয়ার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক শিবলী আব্দুল্লাহ, যুগ্ম আহ্ববায়ক এ এফ এম তৌহীদুল ইসলাম, উপদেষ্টা আরিফুল হক।

উপস্থিত ছিলেন যুগ্ম আহ্ববায়ক কুদরত উল্লাহ লিটন, ফারুক আহম্মেদ খান, ইলিয়াস কান্চন শাহীন, আলহাজ্ব লুৎফুল কবির, এ্যাডভোকেট আবু সাঈদ শিবলু গাজী, মো.আবুল হাছান, খালিদ হোসাইন, ইয়াসির আরাফাত সবুজ, মোবারক হোসেন, রুহুল আমিন, রাশেদ আল হাসান, এএন এম মাসুম, আশরাফুল ইসলাম, এসএম নিগার চৌধুরী, ফেরদৌস অমি, আলহাজ্ব নাসিম উদ্দিন আহম্মেদ, সেলিম লকিয়ত, তরিকুল ইসলাম মিঠু, কৃষিবিদ একে এম মাহবুব তালুকদার, উপদেষ্টা হাবিব মোহাম্মদ জকি, আব্দুল ওহাব, একে এম ফজলুল হক শফিক, জাসাসের সভাপতি আব্দুস সামাদ শিবলু, কামরুল হাসান আজাদ, নুরে আলম লিটন, কামরুল ইসলাম শামীম,  মোবারক হোসেন, গোলাম রাব্বানী, এম ডি কামরুজ্জামান, গোলাম রাব্বানী শুভ, মো. নাসির উদ্দিন, আরমান হোসেন ভূইয়া, মশিউর রহমান তুহিন, আব্দুল করিম, হুমায়ুন কবির, আনোয়ার হসেন, আবিদা সুলতানা, অসিত গোমেজ সহ অসংখ্য নেতৃবৃন্দ। প্রেস বিজ্ঞপ্তি